শীত কমলে শীতবস্ত্র বিতরণের হিড়িক

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি মেহেরপুর
প্রকাশিত: ১২:১১ পিএম, ০৮ জানুয়ারি ২০১৮

মেহেরপুরে গত কয়েকদিনে বেড়েছে শীতের প্রকোপ। তাপমাত্রা নেমেছে ৫.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াসে। শীতের প্রকোপ বাড়ায় হাসপাতালে বাড়ছে শীতজনিত রোগীর সংখ্যা। শীতে সবচাইতে বেশি বিপাকে পড়েছে ছিন্নমূল ও খেটে খাওয়া মানুষ। স্বাভাবিকভাবেই তাদের প্রতিদিনের আয়ে ভাটা পড়েছে। কাজ না পেয়ে তাদের বাড়ি ফিরে যেতে হচ্ছে। তাই সংসার চালাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে তাদের।

ছিন্নমূল এসব সাধারণ মানুষদের অভিযোগ, শীতের তীব্রতা বৃদ্ধি পেলেও এখন পর্যন্ত সরকারি বা বেসরকারিভাবে শীতবস্ত্র বিতরণ করতে দেখা যায়নি। শীত কমার সঙ্গে সঙ্গে শীতবস্ত্র বিতরণের হিড়িক পড়ে যায়। অথচ প্রয়োজনের সময় তাদের দেখা মেলে না।

সোমবার সকাল ৯টা পর্যন্ত কুয়াশার চাদরে ঢাকা ছিল পুরো জেলা। হেডলাইট জ্বালিয়ে গাড়ি চালাতে হয়েছে চালকদের। তবে এখন সূর্যের দেখা মিলেছে। চুয়াডাঙ্গা আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে আজ মেহেরপুর-চুয়াডাঙ্গা অঞ্চলের তাপমাত্রা ৫.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এ অবস্থা আরও কয়েকদিন থাকতে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অফিস।

Meherpur-Cold-(2)

এদিকে প্রচণ্ড শীতে অনেকেই আগুন জ্বালিয়ে শীত নিবারণের চেষ্টা করছে। ঠান্ডা বেশি পড়ায় গরম কাপড়ের ব্যাবসায়ীদের কদর বেড়ে গেছে। ফুটপাত থেকে শুরু করে বড় বড় বিপণিবিতানগুলোতে গরম কাপড়ের কদর বেড়ে গেছে। গরমকাপড়, হাতমোজা ও কানটুপি কিনতে ছুটছেন ক্রেতারা।

তীব্র শীতে হাসপাতালে বৃদ্ধি পাচ্ছে শীতজনিত রোগীর সংখ্যা। নিউমোনিয়া, সর্দি-কাশি, ঠান্ডা, ব্রঙ্কাইটিস ও ডাইরিয়া রোগে আক্রান্ত হচ্ছে মানুষ। বড়রা আক্রান্ত হচ্ছে শ্বাসকষ্টজনিত রোগে। বাড়ছে শিশু রোগীর সংখ্যা।

মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. এহসানুল কবির জানান, হাসপাতালে শীতজনিত রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। শীতজনিত রোগ থেকে বাঁচতে গরম স্থানে ও গরম কাপড় পরে থাকতে হবে।

আসিফ ইকবাল/এফএ/জেআইএম

আপনার মতামত লিখুন :