ঠাকুরগাঁওয়ে পুলিশের স্ত্রীর নগ্ন ছবি ধারণ করে টাকা দাবি

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি ঠাকুরগাঁও
প্রকাশিত: ০৮:৪৪ পিএম, ২৩ জানুয়ারি ২০১৮ | আপডেট: ০৮:৪৬ পিএম, ২৩ জানুয়ারি ২০১৮
প্রতীকী ছবি

ঠাকুরগাঁওয়ে পুলিশ কনস্টেবলের স্ত্রী ও যুবককে বিবস্ত্র করে মোবাইলে নগ্ন ছবি ধারণ এবং ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেয়ার ভয় দেখিয়ে ৫০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করার চাঞ্চল্যকর ঘটনা ঘটেছে।

গত শনিবার রাতে ওই গৃহবধূ স্বামী ও আত্মীয়-স্বজনের সঙ্গে পরামর্শ করে ঠাকুরগাঁও সদর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন, পর্ণোগ্রাফি এবং চাঁদাবাজির অভিযোগে ৭ জনের নাম উল্লেখ করে একটি মামলা দায়ের করেন।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, পঞ্চগড় জেলার বোদা থানায় কর্মরত এক পুলিশ কনস্টেবলের স্ত্রী ও ২ ছেলে ঠাকুরগাঁও শহরের গোয়ালপাড়া এলাকায় নিজ বাড়িতে বসবাস করতেন। গত শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ওই গৃহবধূ (পুলিশের স্ত্রী) বাড়িতে একা থাকাকালে ৫/৭ জন যুবক তার বাসায় জোরপূর্বক প্রবেশ করে। তারা মোজাম্মেল হক নামে অপর যুবককে জোরপূর্বক রাস্তা থেকে ধরে নিয়ে শোবার কক্ষে নিয়ে যায়। সেখানে ওই যুবককে বিবস্ত্র করে পুলিশের স্ত্রীর সঙ্গে অশালীন ভঙ্গিমায় মেলামেশার নগ্নছবি মোবাইলে ধারণ করে।

ওই সময় গৃহবধূ বাধা দিলে রিপন, সোহাগ, নাহিদ, বাপ্পী ও নুরজামান তাকে চুলের মুঠি ধরে মারপিট করে। শুধু তাই নয়, ওই দুর্বৃত্তরা একশ টাকার নন জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে পুলিশের স্ত্রী ও মোজাম্মেলকে স্বাক্ষর দিতে বাধ্য করে। পরে নন-জুডিশিয়াল স্ট্যাম্প ও ছবিকে পূঁজি করে ৫০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে।

অন্যথায় তাদের অশালীন ছবি ফেসবুক ও ইন্টারনেটে ছেড়ে দেয়ার ভয় দেখায় তারা। নিরুপায় হয়ে ওই গৃহবধূ তাৎক্ষণিকভাবে ২০ হাজার টাকা দুর্বৃত্তদের হাতে তুলে দেয়। তারপরও তারা অবশিষ্ট টাকা বিকাশ করে দেয়ার জন্য চাপ দেয়।

এ ঘটনায় পুলিশ তাৎক্ষণিক অভিযান চালিয়ে পূর্ব গোয়ালপাড়া মহল্লার আবু তালেবের ছেলে নুর জামান ওরফে ছুটু (২৫), দক্ষিণ সালন্দর মুন্সিপাড়া গ্রামের জামাল ড্রাইভারের ছেলে বাপ্পী ইসলাম (২৬) এবং মাদরাসাপাড়া মুসলিম নগর গ্রামের মৃত আব্দুল মজিদের ছেলে নাহিদ হোসেন (২৮) নামের ৩ জনকে গ্রেফতার করে গত মঙ্গলবার আদালতে সোপর্দ করলে আদালত তাদেরকে জেল হাজতে পাঠায়।

পলাতক আসামিরা হলেন, গোয়ালপাড়া মহল্লার মৃত মোজহারুল ইসলামের ছেলে রিপন (৩০), একই মহল্লার এন্তাজুল ড্রাইভারের ছেলে সোহাগ (২৮), পূর্ব গোয়ালপাড়া মহল্লার মৃত লিয়াকত আলীর ছেলে দিপু খান (২৫) ও একই মহল্লার নুরুল হকের ছেলে মামুন (২৫)।

ঠাকুরগাঁও সদর থানা পুলিশের ওসি আব্দুল লতিফ মিয়া ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, মামলার এজাহারনামীয় ৩ জন আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অন্যান্যদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

রবিউল এহসান রিপন/ এমএএস/আইআই

আপনার মতামত লিখুন :