ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে ক্লিনিকের আয়াকে হত্যা

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি শরীয়তপুর
প্রকাশিত: ০৭:৩৪ পিএম, ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলায় ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে ঝর্ণা আক্তার (২৭) নামে এক নারীকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছে দুই যুবক। ওই নারী উপজেলার লাউখোলা বাজার সিরাজ খান ক্লিনিক অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে আয়ার চাকরি করতেন।

সোমবার দুপুরে শরীয়তপুরের পুলিশ সুপার সাইফুল্লাহ আল মামুন এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান।

প্রেস ব্রিফিংয়ে পুলিশ জানায়, শরীয়তপুর জাজিরা উপজেলার আড়াচন্ডি (সাবেক কাজিয়ারচর ভূঁইয়াকান্দি) গ্রামের মৃত নুরু মুন্সীর মেয়ে ঝর্ণা আক্তার। গত ২০১০ সালে মাদারীপুর জেলার শিবচর উপজেলার আট নাম্বার গ্রামের জীবন বেপারির সঙ্গে পারিবারিকভাবে বিবাহ হয়। তাদের সংসার জীবন সুখেই কাটছিল । সাত বছরের সংসার জীবনে তাদের দুটি ছেলে সন্তান। হঠাৎ করে গত জুলাই মাসে জীবন বেপারি ঝর্ণাকে না জানিয়ে গোপনে আরেকটি বিয়ে করে এবং দুই ছেলেসহ ঝর্ণাকে তার বাবার বাড়ি দিয়ে যায়। ছেলে-সন্তানসহ ঝর্ণার কোনো খোঁজখবর না নেয়ায় সংসার চালাতে জাজিরার লাউখোলা বাজার সিরাজ খান ক্লিনিক অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে আয়ার চাকরি নেন ঝর্ণা আক্তার। এর মধ্যেই ক্লিনিকে আসা-যাওয়ার পথে লাউখোলা বাজারের ইলিয়াস মাদবরের কাঠের দোকানের মিস্ত্রি ও ডিজাইনার সুমন শেখের সঙ্গে প্রথমে পরিচয় ও পরে বন্ধুত্বের সম্পর্ক গড়ে ওঠে।

গত ৩ ফেব্রুয়ারি শনিবার সকালে ঝর্ণা ক্লিনিকে যাওয়ার সময় লাউখোলা আলী জব্বার সিকদারের ধুনিয়াখেতের কাছে পৌঁছালে জাজিরা উপজেলার মানিকনগর শিমুলতলা গ্রামের কলম শেখের ছেলে সুমন শেখ (২৩) এবং তার বন্ধু ও সহকর্মী মানিকগঞ্জ জেলার শ্রীনগর উপজেলার পূর্ব কামারগাঁও গ্রামের আব্দুল মান্নান মৃধার ছেলে মো. বাবুল মৃধা (২০) মিলে ঝর্ণার পথরোধ করে কুপ্রস্তাব দেয় । তখন কুয়াশায় চারদিকে ঢাকা ছিল। কুপ্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় ঝর্ণাকে ধুনিয়াখেতে নিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা করে সুমন ও বাবুল। তখন ঝর্ণা চিৎকার করলে তাকে গলা টিপে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়। ওই রাতেই ঝর্ণার মা আফিরন বেগম জাজিরা থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

পরে গতকাল রোববার রাত ৮টার দিকে হত্যাকারী সুমন শেখ ও মো. বাবুল মৃধাকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে লাউখোলা এলাকা থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ। সোমবার সকালে জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশের কাছে আসামিরা ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন।

প্রেস ব্রিফিংয়ে শরীয়তপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. এহসান শাহ, আব্দুল হান্নান, জাজিরা থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. এনামুল হক এনাম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

ছগির হোসেন/আরএআর/আইআই

আপনার মতামত লিখুন :