প্রভাবশালীদের দখলে স্লুইচ গেট : বিপাকে কৃষকরা

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি পটুয়াখালী
প্রকাশিত: ১১:০২ এএম, ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৮
প্রভাবশালীদের দখলে স্লুইচ গেট : বিপাকে কৃষকরা

পটুয়াখালীর বাউফলে কৃষকরা বোরো আবাদ করতে জমি প্রস্তুত করলেও পানির অভাবে ব্যাহত হচ্ছে চারা রোপন। খালের মুখে নির্মিত পানি উন্নয়ন বোর্ডের স্লুইচ গেট প্রভাবশালীদের নিয়ন্ত্রণে থাকায় তা অধিকাংশ সময় বন্ধ রাখা হচ্ছে। এতে সঠিক সময়ে পানি না পেলে পথে বসতে হবে ভুক্তভোগী কৃষকদের এমনটাই মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

বাউফলের নওমালা ইউনিয়ন ঘুরে দেখা গেছে, বোরোখেতে সেচ দিতে খালের পাড়ে স্যালো পাম্প মেশিন স্থাপন করেছেন কৃষকরা। তবে যেই পানি উত্তোলনের জন্য পাম্প বসানো সে পানির দেখা নেই। তাই বোরো রোপনের জন্য জমি প্রস্তুত করেও চারা রোপন করতে পারছেন না কৃষকরা।

Patuakhali

অপরদিকে পানির অভাবে বীজতলাতেই নষ্ট হচ্ছে বোরো ধানের বীজ। আর যেসব জমিতে ধানের চারা লাগানো হয়েছে তা এখন হলুদ রং ধারণ করেছে। জানুয়ারির মাঝামাঝি থেকে ফেব্রুয়ারি জুড়ে চারা রোপনের কাজ চললেও এবার এখনও পানির অভাবে অনেক জমিতে বীজ রোপন সম্ভব হয়নি।

পানি উন্নয়ন বোর্ডে সূত্রে জানা গেছে, পটুয়াখালী ডিভিশনে প্রায় ১২শ কিলোমিটার খাল রয়েছে। এছাড়া প্রায় ৬ শতাধিক স্লুইচ গেট, আউটলেট ও ইনলেট রয়েছে। এসব স্লুইচ গেট স্থানীয় সুবিধাভোগীদের সমন্বয়ে একটি কমিটি করে পরিচালনা করা হয়।

Patuakhali

বাউফলের নওমালা ইউনিয়নের বটকাজল গ্রামের কৃষক কাজী মো. ইয়াসিন বলেন, প্রতি বছরই এই সময় পানি থাকে না। পানি না থাকার কারণে আমাদের অনেক ক্ষতি হয়। বগা ও কাশিপুর স্লুইচ গেট থেকে প্রভাবশালীরা পানি ছাড়ে না। ওই এলাকার মানুষ ব্যক্তিগত কাজে স্লুইচ গেট ব্যবহার করে। তাই আমরা পানি পাই না। পানির অভাবে আমাদের অনেক ক্ষতি হয়।

পটুয়াখালীর বাউফলের নওমালা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. শাহজাদা হাওলাদার বলেন, এ বছর এই এলাকায় প্রায় ৫শ একর জমিতে বোরো আবাদের জন্য কৃষকরা জমি প্রস্তুত করেছে। প্রয়োজনীয় পানি না পেলে এবার বোরো আবাদ ব্যাহত হতে পারে। আর এতে ক্ষতির মুখে পড়বে কৃষকরা।

পটুয়াখালী পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোহাম্মদ হাসানুজ্জামান বলেন, এ বিষয়ে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

মহিব্বুল্লাহ্ চৌধুরী/এফএ/এমএস