৬৬ বছর পর চার ভাষা সংগ্রামীকে সম্মাননা

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি কক্সবাজার
প্রকাশিত: ১২:৪১ এএম, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

ভাষা সংগ্রামে কক্সবাজার থেকে বিশেষ অবদান রাখায় চার ভাষা সংগ্রামীকে সম্মাননা দিয়েছে কক্সবাজার জেলা প্রশাসন। ভাষা সংগ্রামের ৬৬ বছরের মাথায় প্রথমবারের মতো জেলার জীবিত এ চার ভাষা সংগ্রামীকে সম্মাননা দিয়ে ইতিহাস গড়লেন জেলা প্রশাসক মো. আলী হোসেন। বুধবার রাত ৮টার দিকে কক্সবাজার পাবলিক লাইব্রেরির শহীদ দৌলত ময়দানে এ সম্মাননা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

সম্মাননাপ্রাপ্ত ভাষা সংগ্রামীরা হলেন কক্সবাজারের বরেণ্য শিক্ষাবিদ, লেখক, গবেষক ও রামু কলেজের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ প্রফেসর মোশতাক আহমদ (রামু), কক্সবাজারের কৃতী শিক্ষক, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক এম এ শক্কুর (টেকনাফ), মুক্তিযুদ্ধের চেতনার পক্ষের বলিষ্ঠ সংগঠক, প্রবীণ রাজনীতিক ও জনপ্রতিনিধি বাদশাহ মিয়া চৌধুরী (উখিয়া) ও এক সময়ের বিশিষ্ঠ শ্রমিক সংগঠক, প্রগতিশীল সকল আন্দোলনের অন্যতম পৃষ্ঠপোষক জালাল আহমদ (প্রয়াত জননেতা একেএম মোজাম্মেল হকের বড় ভাই)।

জেলা প্রশাসক মো. আলী হোসেন জানান, বাংলা একাডেমি থেকে প্রকাশিত ‘ভাষা আন্দোলনের আঞ্চলিক ইতিহাস’ গ্রন্থে তৎকালীন কক্সবাজার মহকুমায় ভাষা আন্দোলনের যে গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাস বিবৃত হয়েছে সেই ইতিহাসে এ চার ভাষা সংগ্রামীর উল্লেখযোগ্য ভূমিকার কথা লিপিবদ্ধ রয়েছে। তাই ৬৬তম অমর ভাষা দিবসের অনুষ্ঠানে ইতিহাসের এই চার বরেণ্য সন্তানকে পদক ও উত্তরীয় দিয়ে জেলাবাসীর পক্ষে সম্মানিত করা হয়েছে।

জেলা প্রশাসক বলেন, ভাষা সংগ্রাম থেকেই স্বাধীন সর্বভৌম বাংলাদেশের বীজ বুনন হয়েছে। তাই ভাষা সংগ্রামে যারা অগ্রণী ভূমিকা রেখেছেন তারা দেশের পূজনীয় ব্যক্তিত্ব। তাদের সম্মাননা দেয়া যুক্তিযুক্ত মনে হওয়ায় এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। গুণ বা ভালো কাজের স্বীকৃতি দিলে সমাজে লাভ ছাড়া ক্ষতি নেই। প্রজন্ম ভালো কাজের জন্য উৎসাহিত হয়।

সংবর্ধনার জবাবে কৃতী শিক্ষক ও মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক এম এ শক্কুর বলেন, সম্মাননা পাব বলে সেদিন ভাষা সংগ্রামে আমরা যুক্ত হয়নি। দায়বোধ থেকেই মায়ের ভাষার জন্য আন্দোলনে নেমেছিলাম। আমাদের আন্দোলনের সোনালী ফসল ঘরে এসেছে। আমরা মায়ের ভাষা বাংলায় কথা বলছি, লিখছি মনের ভাব প্রকাশ করছি। তবে, যেকোনো ভালো কাজের স্বীকৃতি দিলে ভালোই লাগে। কখনো ভাবিনি ভাষা সংগ্রামের ৬৬ বছর পরে এসে সেসময়কার আন্দোলনের স্বীকৃতি পাব। জীবনসায়াহ্নে চলে আসা মানুষগুলোর ভালো কাজের স্বীকৃতি দিয়ে সম্মানিত করায় জেলা প্রশাসক মো. আলী হোসেনের প্রতি কৃতজ্ঞতা।

অনুষ্ঠানে সংসদ সদস্য আশেক উল্লাহ রফিক, জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি অ্যাড. সিরাজুল মোস্তফা, সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান, কক্সবাজার সরকারি কলেজ অধ্যক্ষ একেএম ফজলুল হক চৌধুরী, জেলা জাসদ সভাপতি নঈমুল হক চৌধুরী টুটুলসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন।

সায়ীদ আলমগীর/বিএ

আপনার মতামত লিখুন :