সেতুর অভাবে এক যুগ ধরে ১০ হাজার মানুষের কষ্ট

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি গাইবান্ধা
প্রকাশিত: ০১:৩০ পিএম, ১৬ এপ্রিল ২০১৮
সেতুর অভাবে এক যুগ ধরে ১০ হাজার মানুষের কষ্ট

বন্যায় বিধ্বস্ত হওয়ার এক যুগ পেরিয়ে গেলেও গাইবান্ধা সদর উপজেলার গিদারী ইউনিয়নের দক্ষিণ গিদারী কালির বাজার গ্রামের নালার উপর একটি সেতু নির্মাণ করা হয়নি। বর্তমানে সেতুস্থলে তৈরি করা হয়েছে বাঁশের সাঁকো। এতে মানুষ চলাচল বিঘ্ন সৃষ্টি হচ্ছে। ফলে সাঁকোর নিচে শুকনো নালা দিয়ে মানুষ চলাচল করছে। আসন্ন বর্ষার আগেই সাঁকোটি মেরামত না হলে যাতায়াতে ৭ গ্রামের প্রায় ১০ হাজার মানুষ ও শিক্ষার্থীদের চরম দুর্ভোগে পড়তে হবে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, এক যুগ আগে প্রবল পানির চাপে ব্রহ্মপুত্র নদের বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের চরকেরঘাট এলাকায় প্রায় ১৫০ ফুট ভেঙ্গে গেলে দক্ষিণ গিদারী কালির বাজার গ্রামে নালার উপর সেঁতুটি ভেঙ্গে যায়। পরে ওই সেতুস্থলে একটি বাঁশের সাঁকো নির্মাণ ও বছর বছর মেরামত করে কোনো মতে চলাচলের কাজ চালিয়ে নিচ্ছে গ্রামবাসী। কিন্তু গত বর্ষা মৌসুমের পর আর সাঁকোটি মেরামত না করায় বর্তমানে সোনাইলের ভিটা, চরপাড়া, বালিয়ার ছড়া, কালির বাজার, প্রধানের বাজার, বারো ডিগ্রি, খলিসার পটল গ্রামের প্রায় ১০ হাজার মানুষ ও শিক্ষার্থীকে চলাচলে চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন। এছাড়া অটোরিকসা, রিকসা-ভ্যান, সাইকেল-মোটরসাইকেল চালকদের একই অবস্থা।

jagonews24

কালির বাজার গ্রামের সমাজসেবক খন্দকার শাফায়েতুর রহমান সাফী বলেন, বর্তমানে সাঁকোটি ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়ায় স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থীদের কষ্টের শিকার হতে হচ্ছে বেশি। সামনে বর্ষার আগে সাঁকোটি চালু করতে না পারলে আমাদের কষ্টের শেষ থাকবে না।

গিদারী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হারুনুর রশিদ ইদু বলেন, ইউনিয়ন পরিষদের অল্প বাজেটে সাঁকোটি মেরামত করা হয়। যার কারণে সেটি বেশিদিন টেকসই হয় না। খুব শীঘ্রই সাঁকোটি আবারও মেরামত করা হবে।

সদর উপজেলা পরিষদের প্রকৌশলী মো. আবুল কালাম আজাদ মোল্লা জাগো নিউজকে বলেন, সেঁতুটি নির্মাণের জন্য গত ফেব্রুয়ারি মাসের শেষের দিকে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় অনুমোদন হয়েছে। সেটি প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে প্রায় ছয় মাস লাগে। আশা করি আগামী জুলাই-আগস্ট মাসের দিকে আমরা টেন্ডার করতে পারবো। এরপরেই কাজ শুরু হবে।

jagonews24

আপাতত বাঁশের সাঁকোটি মেরামত করা যায় কিনা এ বিষয়ে তিনি বলেন, বিষয়টি নিয়ে বৃহস্পতিবার (১২ এপ্রিল) উপজেলা পরিষদের বৈঠকে আলোচনা হয়েছে। এজন্য ইউপি চেয়ারম্যানকে সাঁকোটি মেরামতের জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

রওশন আলম পাপুল/আরএ/আরআইপি