সংবাদপত্র বন্ধের আবেদন ইতিহাসে নজিরবিহীন

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি কক্সবাজার
প্রকাশিত: ০৯:১০ পিএম, ১৭ এপ্রিল ২০১৮ | আপডেট: ০৯:১৫ পিএম, ১৭ এপ্রিল ২০১৮

সরকারের সমালোচনা করে সংবাদ প্রকাশ ও কলেজ শিক্ষক হয়ে পত্রিকা সম্পাদনা বেআইনি উল্লেখ কক্সবাজারের স্থানীয় দৈনিক সমুদ্রকণ্ঠের প্রকাশনা বন্ধের দাবিতে কক্সবাজার জেলা প্রশাসন বরাবরে আবেদন করেছেন কক্সবাজার সাংবাদিক ইউনিয়নের একাংশে সভাপতি আবু তাহের ও সাধারণ সম্পাদক জাহেদ সরওয়ার সোহেল।

এ ঘটনাকে ষড়যন্ত্রমূলক চক্রান্ত উল্লেখ করে ওই আবেদনের প্রতিবাদ জানিয়েছে দৈনিক সমুদ্রকণ্ঠ পাঠক ফোরাম। সরকারবিরোধী সংবাদ প্রকাশ করার বানোয়াট অজুহাতে গণমাধ্যমের কণ্ঠরোধ করার ঘৃণ্য চক্রান্তের প্রতিবাদ জানাতে মঙ্গলবার সকাল থেকে পাঠক ফোরামের বিপুল সংখ্যক সদস্য শহরের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার চত্বরে সমবেত হন। এরপর মিছিল সহকারে শহীদ মিনার থেকে প্রেস ক্লাব হয়ে জেলা প্রশাসক কার্যালয় চত্বরে মানববন্ধনের আয়োজন করে।

দৈনিক সমুদ্রকণ্ঠের পরিচালনা সম্পাদক মঈন উদ্দিনের সঞ্চালনায় আয়োজিত সমাবেশে কক্সবাজার সাংবাদিক ইউনিয়নের (একাংশের) সভাপতি ও দি ডেইলি স্টারের প্রতিবেদক মুহাম্মদ আলী জিন্নাত বলেন, সাংবাদিক সংগঠনের নাম ব্যবহার করে সংবাদপত্র বন্ধের আবেদন দেশের ইতিহাসে নজিরবিহীন। এ ঘটনা শুধু কক্সবাজার নয় দেশের গণমাধ্যমের ইতিহাসে কলঙ্কজনক অধ্যায়ের সৃষ্টি করেছে।

সাংবাদিক নামধারী ষড়যন্ত্রকারীদের নাম উল্লেখ করে তিনি বলেন, এদের একজন আবু তাহের ওরফে আবু তাহের চৌধুরী জীবনে কোনোদিন মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষ শক্তির রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডের সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন না। শুধুমাত্র ক্ষমতার স্বাদ গ্রহণ করতেই মুখোশ পরিধান করেছেন। আর জাহেদ সরওয়ার সোহেল বিএনপির অঙ্গসংগঠন ছাত্রদলের প্রথম সারির একজন নেতা ছিলেন।

অন্যদিকে মঈনুল হাসান পলাশ স্বৈরাচার এরশাদবিরোধী আন্দোলন থেকে শুরু করে ১৯৯১ সালে বিএনপি ক্ষমতাসীন থাকাকালেও আওয়ামী লীগের রাজনীতির একজন সক্রিয় কর্মী ছিলেন। মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের একজন সম্পাদককে ঘায়েল করতে ষড়যন্ত্রকারীদের চক্রান্ত কোনোদিন সফল হবে না।

দৈনিক সমুদ্রধারা সম্পাদক কামাল উদ্দিন রহমান পেয়ারো বলেন, পাঠকের কাছে দৈনিক সমুদ্রকণ্ঠের গ্রহণযোগ্যতা অনুধাবন করতে পেরেই ষড়যন্ত্রকারীদের এ গাত্রদাহ। সাংবাদিকতার নাম দিয়ে সরকারি প্লট থেকে শুরু করে যারা ব্যক্তিগত স্বার্থ উদ্ধারে তৎপর একদিন এদেশের মাটিতেই তাদের বিচার হবে।

দৈনিক সমুদ্রকণ্ঠ পাঠক ফোরামের সভাপতি মাস্টার প্রদীপ চন্দ্র শীলের সভাপতিত্বে সমাবেশে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি রাসেল চৌধুরী, দৈনিক সমুদ্রকণ্ঠের বিশেষ প্রতিবেদক শহীদুল্লাহ কায়সার, দৈনিক সমুদ্রকণ্ঠের সহকারী সম্পাদক স্বপন কান্তি দে প্রমুখ।

সভা শেষে পাঠক ফোরাম নেতৃবৃন্দ জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেনের সঙ্গে তার কার্যালয়ে সাক্ষাৎ করেন। তাকে স্মারকলিপি প্রদানের মাধ্যমে প্রতিবাদ জানান ঘৃণ্য এই চক্রান্তের।

সায়ীদ আলমগীর/এএম/আরআইপি