নওগাঁর সেই ওসি প্রত্যাহার

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি নওগাঁ
প্রকাশিত: ০৯:৫৯ পিএম, ২৭ মে ২০১৮

ঘুষের টাকা দিতে না পারায় দুই ব্যক্তিকে মারধরের অভিযোগে নওগাঁর নিয়ামতপুর থানার সেই ওসি আকরাম হোসেনকে জেলা পুলিশ লাইনে প্রত্যাহার করা হয়েছে।

তার বিরুদ্ধে আইনের সহায়তা চাইতে আসা মানুষের কাছে ঘুষ দাবি করা এবং ঘুষ না পেলে মারধরসহ মাদকব্যবসায়ীদের কাছ থেকে ঘুষ নিয়ে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেয়া সহ নানা অভিযোগ রয়েছে।

নওগাঁর পুলিশ সুপার ইকবাল হোসেন জানান, লিখিত অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে গঠিত তদন্ত কমিটির সুপারিশ অনুযায়ী তাকে নিয়ামতপুর থানা থেকে জেলা পুলিশ লাইনে প্রত্যাহার করা হয়েছে।

লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ওসি আকরাম হোসেন এই থানায় যোগদান করার পর থেকে থানায় আইনি সহায়তা চাইতে আসা সাধারণ মানুদের নানাভাবে হয়রানি করা হচ্ছে।

সম্প্রতি দাবি অনুযায়ী, উৎকোচের টাকা দিতে না পারায় উপজেলার নাকইল গ্রামের আইজুল হক ও উপজেলার রাজাপুর দরগাপাড়া গ্রামের সোহেল রানা নামের দুই ব্যক্তিকে মারধর করেন ওসি।

এসব ঘটনা ছড়িয়ে পড়ায় স্থানীয় জনসাধারণের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। এছাড়া ওসির অসহযোগিতার কারণে গ্রাম আদালত কার্যক্রম স্থবির হয়ে পড়েছে।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানদের কাছ থেকে মাদক ব্যবসায়ীদের তালিকা নিয়ে তাদের কাছ মোটা অংকের টাকা নিয়ে ব্যবস্থা না নিয়ে বরং তাদের ব্যবসা চালিয়ে যাবার নির্দেশ দেন।

এতে উপজেলায় মাদকের ব্যাপক বিস্তার ঘটেছে। এ অবস্থায় সরকারের ভাবমূর্তি অক্ষুণ্ণ রেখে নিয়ামতপুরবাসীকে হয়রানি ও দুর্ভোগ থেকে রক্ষার জন্য ওসি আকরাম হোসেনের অপসারণের দাবি জানান জনপ্রতিনিধিরা।

ওসি আকরাম হোসেন গত ১৬ মার্চ নিয়ামতপুর থানায় যোগ দেন। কিন্তু মাস দুয়েকের মধ্যেই তার বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে ঘুষ গ্রহণ, ঘুষ না দিলে আইনের সহায়তা চাইতে আসা মানুষজনকে মারধর, মাদক ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে উৎকোচ গ্রহণ করে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেয়াসহ বিভিন্ন অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ ওঠে।

ওসি আকরামের বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ তুলে গত ২০ মে নিয়ামতপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানসহ উপজেলার ৮টি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানরা তার অপসারণের দাবি জানিয়ে রাজশাহী রেঞ্জের পুলিশের উপ-মহাপরিদর্শকের কাছে লিখিত আবেদন জানান।

আব্বাস আলী/এএম/পিআর

আপনার মতামত লিখুন :