শহর অচল করে দেয়ার ঘোষণা ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির


প্রকাশিত: ০৩:৩২ পিএম, ১৫ আগস্ট ২০১৫

ব্যবসায়ীদের নিরাপত্তায় অপরাধী ও অপরাধ কর্মের প্রতিরোধে কাজ করছেন তিনি। সমিতিভূক্ত ২ শতাধিক ব্যবসায়ীকে একত্রিত করে নানা দুর্যোগে মানুষের পাশে দাঁড়ানোর রীতির তিনি প্রবক্তা। যেকোনো জরুরি মুহূর্তে নিজের ফান্ড থেকে অর্থ ব্যয় করতে কার্পন্য না করায় অল্প বয়সে ব্যবসায়ী ও এলাকার সবার কাছে গ্রহণযোগ্যতায় পর পর ৬ বার সমিতির সভাপতি নির্বাচিত হন। নিজের অঢেল বিত্ত বৈভব থাকায় ব্যবসায়ী সমিতির জমানো টাকা নয়-ছয় করা থেকে তিনি বিরত। এসব কারণে আগামীতে কাউন্সিলর প্রার্থী হতে অনুরোধ করছেন শুভাকাঙ্খিরা। এটিই তার জন্য কাল হয়েছে।  তাকে অপরাধী হিসেবে উপস্থাপন করে ভবিষ্যত পথ চলা রুদ্ধ করতে স্বার্থন্বেষীরা সভাপতির বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের করেছে। এ মামলা প্রত্যাহার না হলে রোববার থেকে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখে কক্সবাজার শহর অচল করে দেয়া হবে।

কক্সবাজার পৌরসভার বৃহত্তর আলীর জাঁহাল ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি সাহাব উদ্দিন সিকদারের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের’র প্রতিবাদে সমিতি কর্তৃক আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলা হয়েছে।

শনিবার সন্ধ্যায় কক্সবাজার শহরের অভিজাত এক হোটেলের সম্মেলন কক্ষে বৃহত্তর আলীর জাঁহাল ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির সাধারণ সম্পাদক আবু বক্কর লিখিত বক্তব্যে বলেন, স্থানীয় জমিদার মৃত মিয়া হোসেন সিকদারের ছেলে মাস্টার মোহাম্মদ হোসাইন পৈত্রিক ভু-সম্পদের মালিক হন। আর বাবার সম্পদের উপর শতাধিক দোকানপাট নির্মাণ করে অল্প বয়সে প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছেন মোহাম্মদ হোসাইনের ছেলে সাহাব উদ্দিন সিকদার। জমিদার হিসেবে সুন্দর ব্যবহার ও ব্যবসায়ীক বিশ্বস্ততার কারণে সাহাব উদ্দিন পর পর ৬ বার ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির সভাপতি নির্বাচিত হন। প্রথমবার সভাপতি হবার পর থেকে সমিতির আর্থিক ফান্ড বাড়ানোর পাশাপাশি অপরাধীদের প্রতিরোধে সবাইকে উদ্বুদ্ধ করেন তিনি। তার কঠোর অবস্থানের কারণে বিগত বছরগুলোতে কোনো সন্ত্রাসী বাহিনী ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে এক টাকাও চাঁদা নিতে সাহস পায়নি। অথচ এক সময় ব্যবসায়ীদের নিয়মিত চাঁদা দিয়ে ব্যবসা পরিচালনা করতে হতো।
 
তিনি আরো জানান, জমি বেচা-কেনার আয়ের পাশাপাশি কোটি টাকা জামানত দিয়ে সমাজ সেবা থেকে একটি ঋণদান ও সঞ্চয়ী প্রতিষ্ঠানের নিবন্ধন নেন সাহাব উদ্দিন। দোকান ভাড়া ও অন্য ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে আয়ের লাভের অংশ লাখ লাখ টাকা তিনি মসজিদ, মাদ্রাসা, এলাকার ভঙ্গুর রাস্তাঘাট মেরামত ও দরিদ্র পরিবারের মেয়েদের বিয়েতে এবং সমস্যাগ্রস্ত মানুষের কল্যাণে ব্যয় করে থাকেন। অথচ সে ব্যক্তির বিরুদ্ধেই একজন নৈশপ্রহরীকে পিটিয়ে ৪০ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয়ার অভিযোগে গত ১৩ আগস্ট কক্সবাজার সদর থানায় একটি মামলা করা হয়েছে। যার নুন্যতম ভিত্তিও নেই। কারণ সাহাব উদ্দিন আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের পৌরসভার ৫ নম্বর ওয়ার্ড সভাপতি ও কমিউিনিটি পুলিশিং ১১ জোন কমিটির সদস্য হিসেবেও দায়িত্ব পালন করে অপরাধ দমনে নিজেই সক্রিয় ভূমিকা রাখেন। যা এলাকার আবাল-বৃদ্ধ-বনিতা সবাই জানে।

এসব বিষয় থানার ওসিকে জানানো হয়েছে উল্লে­খ করে তিনি বলেন, এখনো মামলা প্রত্যাহার হয়নি। তাই রোববার সকালে আলীর জাঁহালের সকল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখে কালো পতাকা প্রদর্শন করবে ব্যবসায়ীরা। পরদিন জেলা প্রাশাসকে স্মরকলিপি দেয়া হবে।

সংবাদ সম্মেলনে সভাপতি সাহাব উদ্দিন সিকদার, সিনিয়র সহ-সভাপতি শফিকুর রহমান, সহ-সভাপতি আবু ছাবের, সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফুল ইসলাম নবাব, সমাজ কল্যাণ সম্পাদক জহির উদ্দিন, প্রচার সম্পাদক শাহাব উদ্দিনসহ বিপুল সংখ্যক ব্যবসায়ী উপস্থিত ছিলেন।

সায়ীদ আলমগীর/এমএএস/এমআরআই