ফেনীতে স্কুলছাত্র হত্যায় জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি ফেনী
প্রকাশিত: ০৬:০৭ পিএম, ২০ এপ্রিল ২০১৯

ফেনীতে স্কুলছাত্র আরাফাত হোসেন শুভ হত্যার ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতারপূর্বক দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শনিবার দুপুরে ফেনীর ট্রাংক রোডের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সামনে মানববন্ধন ও সমাবেশ করেছে বিভিন্ন স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও নানা শ্রেণিরপেশার মানুষ।

মানববন্ধন ও সমাবেশে স্কুলছাত্র আরাফাত হোসেন শুভ হত্যার ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতারপূর্বক দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়ে বক্তব্য রাখেন- ফেনী পৌরসভার মেয়র হাজী আলাউদ্দিন, ফেনী জেলা পরিষদের সদস্য জেলা আওয়ামী লীগ নেতা মাহবুবুল হক লিটন, শান্তি নিকেতন স্কুল পরিচালনা কমিটির সভাপতি কেবিএম জাহাঙ্গীর আলম, ফেনী জজ কোর্টের আইনজীবী সমির চন্দ্র কর, ফেনী জেলা কিন্ডার গার্টেন অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি এম. মামুনুর রশিদ, জেলা শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক জালাল আহাম্মদ হাজারী ও ফেনী শহর ছাত্রলীগের সভাপতি ইয়াছিন আরাফাত রাজু।

সাংবাদিক শাহজালাল ভূঞার সঞ্চালনায় এতে আরও বক্তব্য রাখেন- নিহত স্কুলছাত্র আরাফাত হোসেন শুভর মা খাদিজা আক্তার স্বপ্না, চাচা ইসমাঈল হোসেন, মো. ইউছুফ, মুক্তিযোদ্ধার সন্তান জাহাঙ্গীর আলম, সাংবাদিক আমজাদুর রহমান রুবেল, মানবাধিকার কর্মী এম.এ দেওয়ানী, যুবলীগ নেতা জিয়া উদ্দিন, শ্রমিক লীগ নেতা আরিফুল ইসলাম, মাঈন উদ্দিন সুমন ও মীর হোসেন প্রমুখ।

৩১ মার্চ বিকেলে নিখোঁজ হয় দক্ষিণ কাশিমপুর এলাকার সৌদিপ্রবাসী ইমাম হোসেনের ছেলে আরাফাত হোসেন শুভ (১৪)। ঘটনার সাতদিন পর মাথিয়ারা এলাকার একটি ডোবা থেকে অর্ধগলিত অবস্থায় শুভর মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

এ ঘটনায় বাদী হয়ে নিহত শুভর মা খাদিজা আক্তার থানায় মামলা করেন। ঘটনায় জড়িত সন্দেহে শুভর সহপাঠী ইসমাইল হোসেন ইমনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ। মঙ্গলবার দুুপুরে ফেনী সদর আমলী আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয় ইমন।

জবানবন্দিতে ইমন জানায়, ৩০ মার্চ একটি মেয়ের মোবাইল নম্বর নিয়ে ইমনের সঙ্গে শুভর বাগবিতণ্ডা হয়। এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ হয়ে ৩১ মার্চ বিকেলে শুভকে বাড়ি থেকে ডেকে আনে ইমন। পরে দুইজনে তেমুহনী বাজারের ডেন্টাল গলিতে বসে ইউটিউবে বিভিন্ন ভিডিও দেখে। বিকেল ৪-৫টার দিকে ইমন সহপাঠী শুভকে পাশের কলাবাগানে নিয়ে ছুরি দিয়ে গলা ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে কেটে হত্যা করে। গ্রেফতারকৃত ইমন মধ্যম মাথিয়ারা গ্রামের কামাল উদ্দিনের ছেলে। ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি গ্রহণ শেষে ইমনকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন আদালত।

রাশেদুল হাসান/এএম/এমকেএইচ

আপনার মতামত লিখুন :