রোগীর স্ত্রীর শ্লীলতাহানি করলেন ডাক্তার!

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি টাঙ্গাইল
প্রকাশিত: ০৯:১৫ পিএম, ২৭ মে ২০১৯

টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন মুকুল আকন্দের মৃত্যুর ঘটনায় বিচার ও দোষীদের শাস্তির দাবিতে বিক্ষোভ করেছেন মৃতের স্বজন ও এলাকাবাসী।

সোমবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে শহরে বিক্ষোভ মিছিল শেষে দোষীদের শাস্তির দাবিতে জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপারসহ বিভিন্ন দফতরে স্মারকলিপি দেয়া হয়েছে।

জানা যায়, গত ২৩ মে টাঙ্গাইল পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ড পশ্চিম আকুর টাকুর পাড়ার মৃত. তালু আকন্দের ছেলে মুকুল আকন্দকে অ্যাজমা ও শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যার কারণে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে নেন পরিবারের সদস্যরা। এ সময় কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে অক্সিজেন দেয়ার মাধ্যমে হাসপাতালে ভর্তি করেন। এভাবে কয়েক ঘণ্টা অতিবাহিত হওয়ার পর রোগীর শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়। এ অবস্থায় রোগীকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা নেয়ার পরামর্শ দেন চিকিৎসকরা।

ওই দিন সন্ধ্যার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক শফিকুল ইসলাম সজিবের সঙ্গে রোগীকে কিভাবে ঢাকায় নেয়া যায় সে বিষয়ে পরামর্শ নিতে গেলে রোগীর ভাই, স্ত্রী ও সন্তানের সঙ্গে অসৌজন্যমূলক আচরণ করেন।

নিরুপায় হয়ে তারা ট্রলিতে করে রোগীকে হাসপাতালের অক্সিজেন ও মাস্কসহ নিচে নামানোর চেষ্টা করেন। এ সময় চিকিৎসক শফিকুল ইসলাম সজিব, মজনু মিয়া ও সুমন মিয়া ক্ষিপ্ত হয়ে রোগী মুকুল আকন্দের মুখ থেকে অক্সিজেন মাস্ক খুলে নিয়ে হাসপাতালের দোতলা থেকে নিচে নামিয়ে দেন।

অক্সিজেনবিহীন রোগীকে নিচে নামানোর সময় রোগীর অবস্থার অবনতি দেখে পুনরায় ওই চিকিৎসকসহ সহযোগীদের রোগীর অক্সিজেন ও মাস্কটি লাগিয়ে দেয়ার দাবি জানান স্বজনরা। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে রোগীর স্বজনদের মারধর করেন চিকিৎসক। এমন পরিস্থিতিতে রোগী মুকুল আকন্দ মারা যান। রোগীর মৃত্যুর জন্য চিকিৎসককে দায়ী করা হলে চিকিৎসক সজিবসহ আরও কয়েকজন লাঠিসোঁটা নিয়ে স্বজনদের মারধর করেন।

মৃতের স্বজনরা জানান, ওই দিন হামলাকারী সুমনের লাঠির আঘাতে মৃতের ছেলে মাসুম আকন্দের মাথা ও মুখে আঘাত লাগে। এ সময় চিকিৎসক সজিবের নেতৃত্বে মজনু ও সুমন রোগীর স্ত্রী হাসিনাকে বিবস্ত্র করে শ্লীলতাহানি করেন।

চিকিৎসকের অবহেলায় রোগী মৃত্যু হয়েছে। সেই সঙ্গে মৃতের স্ত্রী হাসিনাকে বিবস্ত্র করে শ্লীলতাহানি করেছেন চিকিৎসক- এসবের বিচার চেয়ে স্মারকলিপি দেন ভুক্তভোগীরা। স্মারকলিপিতে দ্রুত দোষীদের গ্রেফতার করাসহ চাকরিচ্যুতের দাবি জানিয়েছেন মৃতের স্বজনসহ এলাকাবাসী।

বিক্ষোভ ও স্মারকলিপি দেয়ার সময় উপস্থিত ছিলেন- টাঙ্গাইল শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি সিরাজুল হক আলমগীর, ৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হেলাল ফকির, শহর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি কোরবান আলী, দলিল লেখক সমিতি টাঙ্গাইল সদর উপজেলা শাখার সভাপতি জহুরুল হক, ৩ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ও দলিল লেখক সমিতির সাধারণ সম্পাদক হুমায়ন রশিদ সোনা আকন্দ প্রমুখ।

আরিফ উর রহমান টগর/এএম/পিআর

আপনার মতামত লিখুন :