দুই নারী সহকর্মীকে সমাজসেবা কর্মকর্তার যৌন হয়রানি

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি সিরাজগঞ্জ
প্রকাশিত: ০৮:৩০ পিএম, ১৪ জুন ২০১৯
সমাজসেবা কর্মকর্তা মো. শাহাদৎ হোসেন

সিরাজগঞ্জের তাড়াশ উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা মো. শাহাদৎ হোসেনের বিরুদ্ধে দুই নারী সহকর্মীকে যৌন হয়রানির অভিযোগ উঠেছে। তবে তিনি অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। এ ঘটনায় জেলা সমাজসেবা অফিস থেকে তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

এর আগে গতকাল বৃহস্পতিবার দুই নারী মাঠকর্মী তাড়াশ উপজেলা প্রেসক্লাবে এসে স্থানীয় সাংবাদিকদের কাছে এ অভিযোগ করেন। একই সঙ্গে তারা সিরাজগঞ্জ জেলা সমাজসেবা অফিসের উপ-পরিচালক বরাবর দুই মাস আগে একটি লিখিত অভিযোগ দেয়ার কথাও জানান।

অভিযোগে জানা যায়, তাড়াশ উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা মো. শাহাদৎ হোসেন তার অফিসের ওই দুই নারী মাঠকর্মীকে দীর্ঘদিন যাবৎ যৌন হয়রানি করে আসছেন। অভিযোগের মধ্যে রয়েছে- নারী কর্মীদের অনৈতিক প্রস্তাব দেয়া, অকারণে নারী কর্মীদের তার টেবিলে বসিয়ে রেখে শারীরিক সেবা করতে বলা, বাইরে থেকে অপরিচিত নারী অফিসে এনে বাথরুমে অসামাজিক কার্যকলাপ করা, বেছে বেছে সুন্দরী নারীদের ঋণ দিতে বলা, কোনো কোনো ঋণগ্রহিতা নারীর বাসায় গিয়ে দাওয়াত খাওয়া, প্রতিবন্ধী মেয়ে শিশুদের স্পর্শকাতর স্থানে হাত দেয়া ও নারী সঙ্গী নিয়ে অফিসের নারী কর্মীদের বাসায় একান্তে থাকতে চাওয়া ইত্যাদি।

এ ব্যাপারে যৌন হয়রানির শিকার এক নারী মাঠকর্মী জানান, শাহাদৎ হোসেনের নানা অনৈতিক প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় তাকে তিনি দূরে বদলি করার হুমকি দেন এবং চাকরি নিয়ে নানা জটিলতা সৃষ্টি করেন।

অভিযোগ সম্পর্কে তাড়াশ উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা মো. শাহাদৎ হোসেন বলেন, আমার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ সত্য নয়। ওই দুই নারী কর্মী কর্মক্ষেত্রে কাজকর্ম ফাঁকি দেয়া, ভাতা দেয়ার কথা বলে বিভিন্ন অসহায় মানুষের কাছ থেকে অবৈধভাবে টাকা আদায়, বিনা অনুমতিতে অফিসে অনুপস্থিত থাকা, ভাতাভোগীর নাম কেটে দিয়ে টাকার বিনিময়ে আরেক জনের নামে ভাতা বহি ইস্যু করতেন। ফলে তাদের অন্যত্র বদলি করা হয়। এ কারণে তারা একটি মহলের সহযোগিতায় আমাকে সামাজিকভাবে হেয় করতে এসব ষড়যন্ত্র করছে।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে সিরাজগঞ্জ জেলা সমাজসেবা অফিসের উপ-পরিচালক তৌহিদুল ইসলাম জাগো নিউজকে বলেন, একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। এ বিষয়ে সমাজসেবা অফিসের এক কর্মকর্তাকে প্রধান করে তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। এ সপ্তাহের মধ্যেই তদন্ত সাপেক্ষে অভিযোগ প্রমাণিত হলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ইউসুফ দেওয়ান রাজু/আরএআর/পিআর

আপনার মতামত লিখুন :