বেশি নম্বর দেয়ার কথা বলে ছাত্রীকে যৌন হয়রানি, শিক্ষক লিটন বরখাস্ত

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি লক্ষ্মীপুর
প্রকাশিত: ০৬:৫৭ পিএম, ২২ আগস্ট ২০১৯

লক্ষ্মীপুর কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের (টিটিসি) শিক্ষক লিটন চন্দ্র সরকারের বিরুদ্ধে পরীক্ষার খাতায় বেশি নম্বর দেয়ার কথা বলে নবম শ্রেণির এক ছাত্রীকে যৌন নিপীড়নের অভিযোগ উঠেছে।

এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার দুপুরে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। সেই সঙ্গে অভিযুক্ত শিক্ষক লিটনকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

প্রতিষ্ঠানের উপাধ্যক্ষ মির্জা ফিরোজ হাসানকে তদন্ত কমিটির সভাপতি, শিক্ষক লাভলী ত্রিপুরাকে সদস্য সচিব ও মো. আরিফুর রহমানকে সদস্য মনোনীত করা হয়েছে। আগামী ১০ দিনের মধ্যে কমিটিকে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য বলা হয়েছে।

নির্যাতনের শিকার ছাত্রীর স্বজনরা জানান, দীর্ঘদিন ধরে ওই ছাত্রীকে প্রাইভেট পড়াতেন শিক্ষক লিটন চন্দ্র সরকার। এ সুযোগে খাতায় বেশি নম্বর দেয়ার কথা বলে ছাত্রীকে বিভিন্ন সময় যৌন নিপীড়ন করে আসছিলেন লিটন। একপর্যায়ে ওই ছাত্রী বিষয়টি পরিবারকে জানায়। পরে ঘটনার বিচার চেয়ে ছাত্রীর অভিভাবকরা বুধবার (২১ আগস্ট) দুপুরে টিটিসির অধ্যক্ষ প্রকৌশলী মাহবুবুর রশিদ তালুকদারের কাছে লিটনের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ করেন। ঘটনাটি সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে ওই শিক্ষকের বিচার চেয়েছেন প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা।

তবে অভিযোগ অস্বীকার করে শিক্ষক লিটন চন্দ্র সরকার বলেন, ওই ছাত্রীকে দিয়ে একটি পক্ষ আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে। আমার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ সত্য নয়। আমি ষড়যন্ত্রের শিকার।

তদন্ত কমিটির সভাপতি মির্জা ফিরোজ হাসান বলেন, এ ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। এখন বিস্তারিত কিছু বলা যাচ্ছে না। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে তদন্ত করে প্রতিবেদন জমা দেয়া হবে।

লক্ষ্মীপুর কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের (টিটিসি) অধ্যক্ষ মাহাবুবুর রশিদ তালুকদার বলেন, ছাত্রীর অভিভাবকদের অভিযোগের ভিত্তিতে ওই শিক্ষককে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। একই সঙ্গে তিন সদস্যবিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্তে দোষী প্রমাণিত হলে শিক্ষক লিটন চন্দ্র সরকারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

কাজল কায়েস/এএম/এমকেএইচ