সড়কে প্রাণ গেল শিশুসহ ৬ জনের

জাগো নিউজ ডেস্ক
জাগো নিউজ ডেস্ক জাগো নিউজ ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৮:৪৯ পিএম, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯
ফাইল ছবি

দেশের বিভিন্ন স্থানে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় শিশুসহ ছয়জন নিহত হয়েছেন। এসব দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন অন্তত ১৫ জন।

রোববার সকালে দিনাজপুরের বীরগঞ্জে মাইক্রোবাসের ধাক্কায় মো. মোসাদ্দেক হোসেন মুকুল (১৩) নামে এক স্কুলছাত্র নিহত হয়েছে।

নিহত মুকুল উপজেলার ভোগনগর ইউনিয়নের ভাবকি গ্রামের মো. আমিনুল ইসলামের ছেলে এবং স্থানীয় রহিম বখস উচ্চ বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণির ছাত্র।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সকাল সাড়ে ৮টার দিকে বাইসাইকেল নিয়ে বাড়িতে যাওয়ার সময় উপজেলার ভোগনগর ইউনিয়নের কবিরাজহাট এলাকায় একটি মাইক্রোবাসের ধাক্কায় গুরুতর আহত হয় মুকুল। তাকে উদ্ধার করে প্রথমে বীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হয়। অবস্থার অবনতি হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বেলা সাড়ে ১১টার দিকে তার মৃত্যু হয়।

রহিম বখস উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. সমিজ উদ্দিন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

রোববার বিকেলে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে দুটি সিএনজিচালিত অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষে ইমরান মিয়া (১০) নামের এক শিশু নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও পাঁচজন।

নিহত ইমরান মিয়া কমলগঞ্জ সদর ইউনিয়নের সড়ইবাড়ি গ্রামের মাসুক মিয়ার ছেলে।

কমলগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আরিফুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

ময়মনসিংহের তারাকান্দায় বাসচাপায় রাজা মিয়া (৩৫) নামের এক অটোরিকশাচালক নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও দুই যাত্রী। রোববার দুপুরে ময়মনসিংহ-হালুয়াঘাট সড়কের ফুলপুরের রুপচন্দ্রপুর এলাকায় এই দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত রাজা মিয়া উপজেলার নিতারাশি গ্রামের লাল মিয়ার ছেলে।

পুলিশ জানায়, ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা হালুয়াঘাটগামী ইমাম পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাস ফুলপুরের রুপচন্দ্রপুর এলাকায় ময়মনসিংহগামী একটি যাত্রীবাহী সিএনজিচালিত অটোরিকশাকে চাপা দেয়। এতে অটোরিকশাচালক রাজা মিয়া ও দুই যাত্রী গুরুতর আহত হন। স্থানীয়দের সহযোগিতায় তাদের উদ্ধার করে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে চালক রাজা মিয়া মারা যান। আহতদের ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

তারাকান্দা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মিজানুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

বিকেলে জামালপুরের মেলান্দহে সড়ক দুর্ঘটনায় গিয়াস উদ্দিন (৬৫) নামের এক কৃষক নিহত হয়েছেন। এ সময় আহত হয়েছেন আরও তিনজন।

নিহত গিয়াস উদ্দিন উপজেলার ঘোষেরপাড়া ইউনিয়নের বাগবাড়ি গ্রামের মৃত সৈয়দ বেপারীর ছেলে।

মেলান্দহ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রেজাউল করিম খান জানান, রোববার বিকেলে উপজেলার মালঞ্চ-হাজরাবাড়ী সড়কের তেঘরিয়া এলাকায় একটি চলন্ত ট্রাক্টরকে দুইটি মোটরসাইকেল প্রতিযোগিতা করে ওভারটেক করতে যাচ্ছিল। এ সময় হঠাৎ ট্রাক্টরটির একটি চাকা ফেটে উল্টে গিয়ে দুই মোটরসাইকেলকেই চাপা দেয়। এতে মোটরসাইকেল আরোহী গিয়াস উদ্দিন ঘটনাস্থলেই মারা যান। দুর্ঘটনায় ওই মোটরসাইকেলের চালক নিহত গিয়াস উদ্দিনের ভাতিজা জনি (২৮) ও অপর মোটরসাইকেল চালক ও আরোহী গুরুতর আহত হন।

খবর পেয়ে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা নিহতের মরদেহ উদ্ধার করেছে। আহতদের চিকিৎসার জন্য জামালপুর জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

রোববার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে রাজশাহী বাইপাস মহাসড়কের ভাড়ুয়াপাড়া এলাকায় মোটরসাইকেল নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাজন ইসলাম (৩৫) নামের এক সেনা সদস্য নিহত হয়েছেন।

নিহত রাজন জেলার চারঘাট উপজেলার নন্দনগাছি এলাকার শহিদুল ইসলামের ছেলে। তিনি সৈনিক পদে যশোর সেনানীবাসে কর্মরত ছিলেন।

নগর পুলিশের বেলপুকুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম মোস্তফা জানান, মোটসাইকেলযোগে বিআরটিএ অফিস থেকে বাইপাস সড়ক হয়ে বাড়ি ফিরছিলেন ওই সেনা সদস্য। পথে ভাড়ুয়াপাড়া এলাকার একটি কালভার্ট অতিক্রম করতে গিয়ে তিনি নিয়ন্ত্রণ হারান। পড়ে গিয়ে কালভার্টের রেলিং এ মাথায় মারাত্মক আঘাত পান তিনি।

স্থানীয়দের সহায়তায় তাকে উদ্ধার করে দ্রুত রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাপাতালে নেয়া হলে দায়িত্বরত চিকিৎসক রাজনকে মৃত ঘোষণা করেন।

আইনি প্রক্রিয়া শেষে মরদেহ তার স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

এ ঘটনায় থানায় এইটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে বলে জানান ওসি।

শেরপুরের নকলায় একটি যাত্রীবাহী বাসের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষে বিল্লাল হোসেন (৪০) নামের এক অটোরিকশাচালক নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছে আরও পাঁচজন। রোবাবর সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে উপজেলার চিথলিয়া এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত বিল্লাল হোসেন শেরপুর সদর উপজেলার ভীমগঞ্জ বটতলা এলাকার শামসুল হকের ছেলে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, রোববার সন্ধ্যায় ঢাকা থেকে শেরপুরগামী ‘এফজেড লাইন’ পরিবহনের একটি বাসের (ঢাকা মেট্টো-ব-১২-০০৫৭) সঙ্গে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে চালকসহ অটোরিকশার যাত্রীরা গুরুতর আহত হন। পরে তাদের উদ্ধার করে নকলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক বিল্লালকে মৃত ঘোষণা করেন। আহতদের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাদের উন্নত চিকিৎসার জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

নকলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলমগীর হোসেন শাহ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

পড়ুন : সড়ক দুর্ঘটনার আরও খবর

এমবিআর/জেআইএম