গাড়ির অপেক্ষায় টার্মিনালেই ঘুমিয়ে পড়লেন রহিম মিয়া

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি ঝিনাইদহ
প্রকাশিত: ০১:১৯ পিএম, ১৯ নভেম্বর ২০১৯

নতুন সড়ক পরিবহন আইন সংশোধনের দাবিতে ঝিনাইদহে দ্বিতীয় দিনের মতো চলছে অনির্দিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘট। ফলে জেলার অভ্যন্তরীণ ও দূরপাল্লার সব রুটে সব ধরনের বাস-মিনিবাস চলাচল বন্ধ রয়েছে।

এর আগে সোমবার (১৮ নভেম্বর) শুধু অভ্যন্তরীণ রুটে বাস চলাচল বন্ধ থাকলেও আজ (১৯ নভেম্বর) সকাল থেকে দূরপাল্লার বাস চলাচলও বন্ধ করে দিয়েছেন বাস শ্রমিকরা।

এদিকে ধর্মঘটের কারণে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন সর্বস্তরের মানুষ। অনেকেই ঝিনাইদহ বাস টার্মিনালে এসে বাস না পেয়ে ফিরে যাচ্ছেন। কেউ কেউ ক্লান্ত হয়ে ঘুমিয়ে পড়ছেন, অনেককে মালপত্র নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকতেও দেখা গেছে।

রহিম মিয়া নামের এক যাত্রী জাগো নিউজকে বলেন, ‘মাগুরায় মেয়ের বাড়ি যাওয়ার জন্য টার্মিনালে এসেছি সকালে। কিন্তু গাড়ির অপেক্ষায় থাকতে থাকতে ঘুমিয়ে পড়েছিলাম। আদৌ গাড়ি যাবে কি-না জানি না। কিছুক্ষণ থাকব, গাড়ি না পেলে বাড়ি ফিরে যাব।’

jagonews

রোকসানা নামে এক নারী যাত্রী জানান, তিনি ঝিনাইদহ থেকে যশোর যাওয়ার জন্য এক ঘণ্টা ধরে দাঁড়িয়ে আছেন, কিন্তু গাড়ি পাচ্ছেন না। তিনি বলেন, এভাবে কতদিন থাকবে। সরকারের উচিত দ্রুত সমাধানে আসা।

ঝিনাইদহ জেলা বাস-মিনিবাস মালিক সমিতির সভাপতি রোকনুজ্জামান রানু বলেন, নতুন সড়ক পরিবহন আইনের কারণে কোনো শ্রমিক গাড়ি চালাতে চাচ্ছে না। স্থানীয় রুটের বাসচালক থেকে শুরু করে পরিবহন চালকরাও এ আইন মেনে গাড়ি চালাচ্ছে না। আমাদের সবার দাবি, নতুন আইনের ধারা ও জরিমানা সংশোধন করা হোক। এ দাবি না মানা হলে ভবিষ্যতে আরও কঠোর কর্মসূচি দিতে পারে শ্রমিকরা।

তিনি জানান, সড়ক পরিবহন আইন সংশোধনের বিষয়ে শ্রমিকদের দাবির সঙ্গে মালিক সমিতির সদস্যরাও একমত পোষণ করছেন।

আব্দুল্লাহ আল মাসুদ/এমএমজেড/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]