হত্যার বিচারের দাবিতে পুলিশ কমিশনারের কার্যালয় ঘেরাও

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক রাজশাহী
প্রকাশিত: ০৮:৩১ পিএম, ০২ ডিসেম্বর ২০১৯
দোকানদারকে কুপিয়ে হত্যার বিচারের দাবিতে রাজশাহী মহানগর পুলিশ কমিশনারের কার্যালয় ঘেরাও

রাজশাহী মহানগরীর আসাম কলোনি এলাকার দোকান মালিক রাজন শেখকে (৩০) কুপিয়ে হত্যার বিচারের দাবিতে রাজশাহী মহানগর পুলিশ (আরএমপি) কমিশনারের কার্যালয় ঘেরাও করা হয়েছে।

সোমবার (০২ ডিসেম্বর) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে এলাকাবাসী এবং নিহত রাজনের স্বজনরা বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে পুলিশ কমিশনারের কার্যালয়ে ঢোকার চেষ্টা করেন।

আরএমপি কমিশনার হুমায়ুন কবিরের অস্থায়ী কার্যালয় এখন নগরীর শাহমখদুম থানা ভবনে। বিক্ষোভ মিছিলটি কমিশনারের কার্যালয়ের ভেতর ঢোকার চেষ্টা করলে প্রধান ফটকে আটকে দেয় পুলিশ।

এ সময় বিক্ষোভকারীরা হত্যাকাণ্ডের বিচারের দাবিতে স্লোগান দেয়। পরে পুলিশের পক্ষ থেকে হত্যায় জড়িতদের শাস্তি নিশ্চিতের আশ্বাস দেয়া হলে সেখান থেকেই ফিরে যান তারা।

গত ৩০ ডিসেম্বর আসাম কলোনি ঈদগাহ মাঠ এলাকায় বন্ধুর ধারালো অস্ত্রের আঘাতে নিহত হন পান-সিগারেটের দোকান মালিক রাজন শেখ। এ ঘটনায় রাজনের বন্ধু সোহেল শেখসহ দুজনকে আসামি করে থানায় মামলা হয়। এছাড়া অজ্ঞাতনামা আরও দুই-তিনজনকে আসামি করা হয়।

ঘটনার পরই এজাহারভুক্ত দুই আসামিকে গ্রেফতার করে পুলিশ। আদালতে তাদের সাতদিনের রিমান্ড চাওয়া হয়েছে। তবে বিক্ষোভকারীরা সোহেল শেখের বাবা আরমান শেখ এবং মা শাহানা বেগমেরও বিচার চান। বিক্ষোভের ব্যানারে এ হত্যাকাণ্ডের আদেশদাতা হিসেবে তাদের নাম লেখা হয়।

রাজনের স্বজনরা জানান, কিছু দিন আগে শাহানা বেগম মাদকসহ ধরা পড়ে তিন মাস জেল খাটেন। জেল থেকে বেরিয়ে তিনি ঘোষণা দিয়েছিলেন, রাজনই পুলিশে খবর দিয়ে তাকে ধরিয়ে দিয়েছিলেন। তাকে দেখে নেয়া হবে। এর কয়দিন পরই পাওনা টাকা চাওয়াকে কেন্দ্র করে খুন হন রাজন।

আরএমপির মুখপাত্র গোলাম রুহুল কুদ্দুস বলেন, এ মামলায় দুজন এজাহারভুক্ত আসামি। এদের গ্রেফতার করা হয়েছে। তদন্তে অন্য কারও সংশ্লিষ্টতা পাওয়া গেলে তাদেরও আইনের আওতায় আনা হবে।

বিক্ষোভ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, বিক্ষোভকারীরা আরএমপি কার্যালয়ের সামনে মিনিট দশেক স্লোগান দিয়ে চলে গেছেন। তবে মামলাটি গুরুত্ব সহকারে তদন্ত করছি আমরা।

ফেরদৌস সিদ্দিকী/এএম/এমকেএইচ