মহাসড়কে গাছ ফেলে ডাকাতি, সহযোগীসহ ৭ ডাকাত আটক

উপজেলা প্রতিনিধি উপজেলা প্রতিনিধি কালীগঞ্জ (গাজীপুর)
প্রকাশিত: ০৩:০৭ পিএম, ০৪ ডিসেম্বর ২০১৯

গাজীপুরের কালীগঞ্জে ডাকাত দলের সাত সদস্য ও এক সহযোগীসহ মোট আটজনকে আটক করেছে পুলিশ। এ সয়য় তাদের কাছ থেকে নগদ ৫ হাজার ৬৫৫ টাকা, ১২টি মোবাইল সেট, একটি করে দা, চাপাতি, পাঁটি লাঠি ও একটি রশি জব্দ করা হয়।

আটককৃতরা হলেন- হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার পান্ডরাইল গ্রামের খোরশেদ আলীর ছেলে সবুজ মিয়া (৪৫), ময়মনসিংহের দুবাউড়া উপজেলার গোস্তাবহলী গ্রামের ফজর আলীর ছেলে সুমন মিয়া (২৮), একই জেলার গৌরিপুর উপজেলার পাঁচকাহানিয়া গ্রামের হারুন-অর-রশিদের ছেলে শামীম (২০), বি-বাড়ীয়া বিজয়নগর উপজেলার চাঁনপুর গ্রামের আবু জাহেদের ছেলে এমদাদুল হক মিলন (২৭), নাসিরনগর উপজেলার তারাউল্লাহ গ্রামের আকবর হোসেনের ছেলে শিপন (২৪), বি-বাড়ীয়া সদর উপজেলার শিলাউর গ্রামের আবিদ মিয়ার ছেলে আজিজুল ইসলাম (২০), সুনামগঞ্জের দুয়ারা বাজার উপজেলার রামপুর গ্রামের জনাব আলী মিয়ার ছেলে বশির আহমেদ (৩৫) ও চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ উপজেলার ভাটিয়ানপুর গ্রামের মাসুদুর রহমানের ছেলে তানভীর (২১)।

বুধবার (৪ ডিসেম্বর) দুপুরে কালীগঞ্জ থানায় আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে কালীগঞ্জ সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এ তথ্য জানান।

এ সময় থানার অফিসার ইনচার্জ একেএম মিজানুল হক, পরিদর্শক (তদন্ত) সেহেল রানা, পরিদর্শক (অপারেশন) মোজাহিদুল ইসলামসহ অন্যান্য সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরও জানান, গত ৩০ নভেম্বর দিবাগত রাতে কালীগঞ্জ-ঘোড়াশাল বাইপাস সড়কের বাঘারপাড়া নামকস্থানে প্রাইভেটকারের সামনে গাছ ফেলে গতিরোধ করা হয়। এ সময় ডাকাতরা গাড়ির মালিক ডা. আসাদুজ্জামানের কাছ থেকে নগদ ৮০ হাজার টাকা ও চারটি মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেয়। পরে আরেকটি যাত্রীবাহী বাসের গতিরোধ করার সময় ৯৯৯ ফোন করলে পুলিশ দ্রুত সেখানে পৌঁছালে ডাকাতরা পালিয়ে যায়।

এ ঘটনায় পরদিন সকালে (১ ডিসেম্বর) ডা. আসাদুজ্জামান কালীগঞ্জ থানায় একটি ডাকাতি মামলা (মামলা নম্বর-২) করেন। সেই মামলায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তদন্ত কর্মকর্তা ওসি একেএম মিজানুল হকের নেতৃত্বে পুলিশ দুইদিন অভিযান চারিয়ে টঙ্গী, ঢাকা, ব্রাক্ষ্মণবাড়ীয়া ও নরসিংদী থেকে এ ঘটনায় সরাসরি জড়িত ৭ জন এবং এক সহযোগীকে আটক করে। এ সময় তাদের কাছ থেকে নগদ টাকা, মোবাইল সেট, দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করা হয়। বুধবার দুপুরে তাদের গাজীপুর আদালতে পাঠানো হয়েছে।

আব্দুর রহমান আরমান/এমএমজেড/এমকেএইচ