হঠাৎ বৃষ্টিতে ১৪ কোটি টাকার কাঁচা ইট নষ্ট

উপজেলা প্রতিনিধি উপজেলা প্রতিনিধি মির্জাপুর (টাঙ্গাইল)
প্রকাশিত: ০৯:০৮ পিএম, ০৪ জানুয়ারি ২০২০

টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে গত বৃহস্পতি ও শুক্রবারের হঠাৎ বৃষ্টিতে উপজেলার পরিবেশবান্ধব জিগজ্যাগ পদ্ধতি ও স্থায়ী চিমনির মোট ৮২টি ইটভাটা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বৃষ্টিতে ভাটাগুলোর অধিকাংশ কাঁচা ইট নষ্ট হয়ে গেছে। এতে প্রায় ১৪ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে ভাটার মালিকরা জানান।

উপজেলার বিভিন্ন ইটভাটায় গিয়ে দেখা গেছে, উপজেলার ৯১টি ইটভাটা রয়েছে। এর মধ্যে ৮২টি ইটভাটায় ইট তৈরি করা হচ্ছে। বৃষ্টিতে ভাটার কাঁচা ইট ভিজে গলে কাদা হয়ে গেছে। ভাটায় কিছু কাঁচা ইট পলিথিন দিয়ে ঢেকে রক্ষা করার চেষ্টা হলেও বাতাসের কারণে সেগুলোও ক্ষতি হয়েছে।

উপজেলার ভাওড়া নয়াপাড়া গ্রামে অবস্থিত এনএসএমবি ইটভাটার মালিক মো. মোকলেস জানান, অসময়ের বৃষ্টিতে তার ভাটায় প্রায় ১২ লাখ কাঁচা ইট নষ্ট হয়ে গেছে। এসব নষ্ট ইট সরানোর জন্য আরও ৩ লাখ টাকা খরচ হবে। সব মিলিয়ে তার প্রায় ৩০ লাখ টাকা ক্ষতি হয়েছে। নতুন করে উৎপাদনে যেতে ১০ দিনের বেশি সময় লাগবে। তাছাড়া আবহাওয়া অনুকূলে না এলে কাঁচা ইটের অভাবে ভাটা বন্ধ রাখতে হবে।

Mirzapur-03-01-2020-Et-Nost

উপজেলার গোড়াই ইউনিয়নের ধেরুয়া গ্রামে অবস্থিত হাকিম ব্রিকস এর মালিক মো. আওলাদ হোসেন জানান, তাদের দুই ভাটায় প্রায় ১৪ লাখ কাঁচা ইট নষ্ট হয়েছে। এতে প্রায় ৪০ লাখ টাকা ক্ষতি হয়েছে বলে তিনি জানান।

টাঙ্গাইল জেলা ও মির্জাপুর উপজেলা ইটভাটা মালিক সমিতির সভাপতি ফিরোজ হায়দার খান বলছেন, মির্জাপুর উপজেলায় বর্তমানে পরিবেশবান্ধব জিগজ্যাগ পদ্ধতি ও স্থায়ী চিমনির মোট ৮২টি ইটভাটা রয়েছে। প্রতিটি ভাটায় ১০ থেকে ১২ লাখ পর্যন্ত কাঁচা ইট নষ্ট হয়ে গছে। নষ্ট হওয়া এসব কাঁচা ইটের মাটি সরিয়ে নিয়ে আবারও নতুন করে ইট তৈরি করতে হবে। এতে বাড়তি শ্রমিক খরচ ও অন্যান্য খরচ মিলিয়ে আকার অনুযায়ী ভাটাগুলোর প্রতিটির ২০ থেকে ২৫ লাখ টাকা পর্যন্ত ক্ষতি হবে।

এস এম এরশাদ/এমএএস/এমকেএইচ