স্বামীর নির্যাতনে মধ্যরাতে নদী সাঁতরে থানায় গৃহবধূ

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি দিনাজপুর
প্রকাশিত: ০৯:৫৫ পিএম, ১৭ জানুয়ারি ২০২০

তীব্র শীতে মধ্যরাতে মানুষ যখন লেপ-কম্বল মুড়িয়ে শীত নিবারণের চেষ্টা করছে তখন স্বামীর নির্যাতন সইতে না পেরে জীবন বাঁচাতে নদী সাঁতরে থানায় হাজির হলেন এক গৃহবধূ। বৃহস্পতিবার (১৬ জানুয়ারি) দিবাগত রাত ১২টার দিকে দিনাজপুরের বিরামপুর থানায় এ ঘটনা ঘটেছে।

থানা সূত্রে জানা গেছে, বিরামপুর উপজেলার বড় বাইলশিরা গ্রামের আবেদ আলীর মেয়ে কামরুন্নাহার রিনার সঙ্গে প্রস্তমপুর গ্রামের রায়হান কবীরের ৬ বছর আগে বিয়ে হয়। তাদের সংসারে ৪ বছরের একটি ছেলে সন্তান রয়েছে। স্বামী রায়হান কবীর প্রায়ই স্ত্রী রিনাকে মারধর করত। বৃহস্পতিবার লাঠি দিয়ে বেদম মারধর করলে স্বামীর বাড়ি থেকে রাত ১২টায় শাখা যমুনা নদী সাঁতরে পার হয়ে বিরামপুর থানায় এসে হাজির হন রিনা।

বিরামপুর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনিরুজ্জামান তাৎক্ষণিক নারী পুলিশের কাছ থেকে শুকনো পোশাক ও কম্বল দিয়ে তাকে শীতের প্রকোপ থেকে রক্ষা করেন। রাতেই স্বামী রায়হানকে আটক করা হয়। নির্যাতনের শিকার গৃহবধূ রিনাকে হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

শুক্রবার বিকেলে বিরামপুর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনিরুজ্জামান বলেন, রিনার সংসার ঠিক রাখার লক্ষ্যে বিষয়টি উভয়পক্ষ নিষ্পত্তির চেষ্টা করছে। তবে নির্যাতিতা রিনা লিখিত অভিযোগ দিলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। আটক স্বামী রায়হানকে থানা হাজতে রাখা হয়েছে। রাতের মধ্যে বিষয়টি নিষ্পত্তি না হলে শনিবার মামলা দিয়ে তাকে কোর্টে চালান দেয়া হবে।

এমদাদুল হক মিলন/আরএআর/পিআর