সিসি ক্যামেরায় সন্তানের ওপর গৃহপরিচারিকার নির্যাতন দেখলেন মা

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি কুষ্টিয়া
প্রকাশিত: ০১:০৪ পিএম, ২৩ মার্চ ২০২০

বাবা-মা দু’জনই চিকিৎসক। সকালে কর্মস্থলে বের হওয়ার আগে ১৪ মাসের সন্তানকে রেখে যান বাসার গৃহপরিচারিকা রেখা খাতুনের কাছে। কিন্তু বাবা-মায়ের অনুপস্থিতিতে বিভিন্ন সময় শিশুটির ওপর অমানবিক নির্যাতন চালাতে থাকে গৃহপরিচারিকা। বাসায় ফিরে সন্তানের শরীরে নির্যাতনের চিহ্ন দেখে জানতে চাইলে উত্তর আসতো ‘পড়ে গিয়ে আঘাত পেয়েছে’। তবে শেষ রক্ষা হয়নি ওই গৃহপরিচারিকার। হাতেনাতে ধরার জন্য গোপনে বাসার ভেতর সিসি ক্যামেরা লাগান ওই দম্পতি। একদিন নির্যাতনের দৃশ্য অফিসে বসে দেখেন মা। বাসায় ফিরে ওই গৃহপরিচারিকাকে সোপর্দ করেন পুলিশের হাতে।

গৃহপরিচারিকার হাতে শিশু নির্যাতনের এই ভয়াবহ দৃশ্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এখন ভাইরাল। কুষ্টিয়া শহরের পূর্ব মজমপুর এলাকায় বহুতল ভবন মনামী ক্রিস্টাল প্যালেসে এ ঘটনা ঘটেছে। শিশুটির বাবা চিকিৎসক রকিউর রহমান গৃহপরিচারিকাকে আসামি করে কুষ্টিয়া মডেল থানায় শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেছেন।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, ক্রিস্টাল প্যালেসের ৮তলার ‘বি’ ফ্লাটে বাস করেন চিকিৎসক দম্পতি রকিউর রহমান ও শারমিন আক্তার। তাদের ১০ বছর ও ৭ বছর বয়সী দুই মেয়ে আছে। তারা স্কুলে পড়ে। এছাড়া ১৪ মাস বয়সী এক ছেলে সন্তানও আছে তাদের। প্রতিদিন সকালে তারা কর্মস্থলে যান। দুই মেয়েও চলে যায় স্কুলে। এ সময় ১৪ মাসের ছেলে বাসার গৃহপরিচারিকা রেখা খাতুনের কাছে থাকে।

কর্মস্থল থেকে বাসায় ফিরে প্রায়ই বাবা-মা সন্তানের শরীরে জখমের চিহ্ন দেখতে পান। রেখাকে জিজ্ঞেস করলেই জানায় ঘরের আসবাবপত্রের সঙ্গে আঘাত লেগে এমন হয়েছে।

এদিকে ছেলের মানসিক অবস্থাও খারাপ হতে থাকে। বিষয়টিতে সন্দেহ হলে বাসার ভেতরে গোপনে সিসি ক্যামেরা লাগান তারা। গত ১৪ মার্চ বাসা থেকে বের হলে স্ত্রী শারমিন আক্তার কর্মস্থল থেকে সকাল সোয়া ১০টার দিকে দেখতে পান রেখা খাতুন তার ছোট্ট ছেলেটিকে বেদম মারধর করছে। এ ঘটনা দেখার পর দ্রুত বাসায় ফিরে আসেন। সিসি ক্যামেরার ফুটেজ খতিয়ে দেখতে পান সকাল পৌনে দশটায় রেখা খাতুন শিশুটির গোপনাঙ্গসহ বিভিন্ন জায়গায় মারধর করছে। মাথার চুল টেনে তুলে ফেলে।

এসব বিষয় রেখাকে জিজ্ঞেস করলে সে সব স্বীকার করে। এরপর তিনি রেখাকে বাড়ি থেকে বের করে দেন এবং থানায় গিয়ে লিখিত অভিযোগ দেন।

গত ১৬ মার্চ রাত সোয়া ৯টার দিকে কুষ্টিয়া সদর থানায় শিশু নির্যাতন দমন আইন- ২০১৩ (সংশোধিত ২০১৮) এর ৭০ ধারায় একটি মামলা দায়ের করেন চিকিৎসক রকিউর রহমান। পরে অভিযুক্ত গৃহপরিচারিকাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। গত ২১ মার্চ (শনিবার) ফেসবুকে শিশু নির্যাতনের এই দৃশ্য ভাইরাল হয়।

কুষ্টিয়ার পুলিশ সুপার এসএম তানভীর আরাফাত বলেন, থানায় মামলা হওয়ার পরপরই আসামিকে গ্রেফতার করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। সিসি টিভি ফুটেজে মারধরের চিত্র পাওয়া গেছে।

আল-মামুন সাগর/এফএ/পিআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]