ঘূর্ণিঝড়ে উড়ে যাওয়া দিনমজুরের ঘর বানিয়ে দিলো সেনাবাহিনী

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি ঝিনাইদহ
প্রকাশিত: ০৯:৫১ পিএম, ২৪ মে ২০২০

ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের তাণ্ডবে ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার মহিষাহাটি গ্রামের দিনমজুর মবজেল হোসেনের ঘরের চাল উড়ে যায়। টাকার অভাবে ঘর ঠিক করতে পারছিলেন না তিনি। এ খবর শুনে তার ঘরটি ঠিক করে দিলেন সেনাবাহিনীর সদস্যরা।

রোববার (২৪ মে) দুপুরে তার বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, সেনাবাহিনীর যশোর ৫৫ পদাতিক ডিভিশনের সদস্যরা নতুন ঢেউটিন ও বাঁশ দিয়ে ঘূর্ণিঝড়ে উড়ে যাওয়া ঘরটি মেরামত করছেন। কেউ টিন দিয়ে ঘরের ছাউনি দিচ্ছেন; আবার কেউ বাঁশ দিয়ে ঘরের খুঁটি লাগাচ্ছেন।

দিনমজুর মবজেল হোসেনের স্ত্রী তানজিরা বেগম বলেন, প্রতিদিনের মতো স্বামীসহ দুই সন্তানকে নিয়ে ঘূর্ণিঝড়ের দিন ঘরেই ছিলাম। হঠাৎ রাত ১২টার দিকে প্রচণ্ড ঝড়ে ঘরের টিনের চাল উড়ে যায়। উপায় না পেয়ে ঘরবাড়ি ফেলে প্রতিবেশীর বাড়িতে আশ্রয় নিই সবাই।

তিনি বলেন, স্বামী দিনমজুরের কাজ করেন। টাকার অভাবে ঘরটি ঠিক করতে পারিনি। ঝড়ের পরের দিন সেনাবাহিনীর সদস্যরা অন্য একটি কাজ করতে আসেন। সেখানে আমার স্বামী গিয়ে ঘরের কথা তাদের কাছে বলেন। রোববার নতুন টিন ও বাঁশ দিয়ে আমাদের ঘরটি মেরামত করে দেয় সেনাবাহিনী।

যশোর ৫৫ পদাতিক ডিভিশনের ২নং ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্টের মেজর তাহসিন সালেহীন বলেন, দেশের যেকোনো সঙ্কটে সেনাবাহিনী মানুষের জন্য কাজ করে। ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের পর সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে ঝিনাইদহ জেলায় ক্ষতিগ্রস্ত প্রায় ৫০ জন গরিব মানুষের ঘর ইতোমধ্যে মেরামত করা হয়েছে। তারই ধারাবাহিকতায় রোববার কালীগঞ্জ উপজেলার মহিষাহাটি গ্রামের ওই দিনমজুরের ঘরটি মেরামত করে দিয়েছে সেনাবাহিনী।

আব্দুল্লাহ আল মাসুদ/এএম/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]