প্রতিবেশীর পুকুরে কীটনাশক দিয়ে ১২ লাখ টাকার মাছ নিধন

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি ব্রাহ্মণবাড়িয়া
প্রকাশিত: ১০:০২ পিএম, ০১ জুন ২০২০

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া উপজেলায় পুকুর ইজারা নিয়ে দ্বন্দ্বের জেরে কীটনাশক প্রয়োগ করে ১২ লাখ টাকার মাছ নিধনের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

২৬ মে উপজেলার ধরখার ইউনিয়নের ঘোলখার গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ২৯ মে ভুক্তভোগী মাছ চাষি মো. বশির আহমেদ ভূঁইয়া ১০ জনের বিরুদ্ধে আখাউড়া থানায় একটি মামলা করেছেন।

মামলার এজাহার থেকে জানা গেছে, ঘোলখার গ্রামের বাসিন্দা বশির আহমেদ গ্রামের একটি পুকুর ইজারা নিয়ে মাছ চাষ করেন। পুকুরে রুই, কাতল ও তেলাপিয়াসহ নানা প্রজাতির মাছ চাষ করেন তিনি। কিন্তু পুকুরটি ইজারা নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে একই গ্রামের বাসিন্দা মো. নিমা মিয়াসহ আরও কয়েকজনের বিরোধ চলে আসছে। নিমা মিয়াসহ অন্যান্যরা জোরপূর্বক পুকুরটি দখলে নিতে চান। ২৫ মে রাত সাড়ে ১১টার দিকে নিমা মিয়াসহ আরও দুইজনকে পুকুরের পাশে দেখতে পান বশির। এ সময় বশির তাদেরকে দেখে পুকুরের কাছে আসার কারণ জানতে চাইলে কোনো কিছু বলেননি।

মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়, ২৬ মে ভোররাতে বশির পুকুরে গিয়ে দেখতে পান তার সব মাছ মরে ভেসে উঠেছে। পুকুরে দুটি কীটনাশকের বোতল পাওয়া যায়। কীটনাশক প্রয়োগের ফলে পুকুরের প্রায় ১২ লাখ টাকার মাছ মরে যায়।

মামলার বাদী বশির আহমেদ ভূঁইয়া বলেন, দীর্ঘদিন ধরে আমার ইজারা নেয়া পুকুরটি দখলে নেয়ার পাঁয়তারা করছিল অভিযুক্তরা। এর প্রেক্ষিতে পুকুরে কীটনাশক প্রয়োগ করে মাছ নিধন করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলা করার পর বিভিন্নভাবে হুমকি দিচ্ছেন অভিযুক্তরা।

আখাউড়া থানা পুলিশের ধরখার পুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক বিমল কর্মকার বলেন, ইতোমধ্যে মামলার এজাহারভুক্ত এক আসামিকে গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। বাকিদের ধরতে পুলিশি অভিযান অব্যাহত আছে।

আজিজুল সঞ্চয়/এএম/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]