৫ দিন পর কূলে ফিরলেন সেন্টমার্টিনে আটকেপড়া পর্যটকরা

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি কক্সবাজার
প্রকাশিত: ১২:৩২ এএম, ২৬ অক্টোবর ২০২০
ফাইল ছবি

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট নিম্নচাপের কারণে সমুদ্রবন্দরে সতর্ক সংকেত থাকায় গত বুধবার প্রবালদ্বীপ সেন্টমার্টিনে আটকা পড়েন পর্যটকরা। শনিবার (২৪ অক্টোবর) নিম্নচাপটি দুর্বল হয়ে আবহাওয়া স্বাভাবিক হওয়ায় রোববার সকালে সেন্টমার্টিনের উদ্দেশ্যে যাত্রা করে পর্যটকবাহী জাহাজ ‘কর্ণফুলী এক্সপ্রেস’।

নিয়মমতো ফিরতি যাত্রি নিয়ে রোববার বিকেলে কক্সবাজারের উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেয় জাহাজটি। এতে বৈরী আবহাওয়ায় সেন্টমার্টিনে আটকেপড়া দুই শতাধিক যাত্রীসহ প্রায় ৬শ পর্যটক নিয়ে রাত সাড়ে ৯টায় জেটিতে ভিড়েছে জাহাজটি।

কর্ণফুলী এক্সপ্রেসের কক্সবাজার অফিসের ইনচার্জ হোসাইন ইসলাম বাহাদুর জানান, আবহাওয়া স্বাভাবিক থাকায় প্রশাসনিক নির্দেশনায় রোববার সকাল আটটায় সেন্টমার্টিনের উদ্দেশ্যে কক্সবাজার ছেড়ে গেছে কর্ণফুলী। যাত্রীদের নিয়ে বিকেলে সেইন্টমার্টিন থেকে রওনা দেয় জাহাজটি। রাত সাড়ে নয়টার দিকে জাহাজটি কক্সবাজার ঘাটে ভেড়ে।

তিনি আরও জানান, গত ২১ অক্টোবর কর্ণফুলী জাহাজে অর্ধসহস্রাধিকের চেয়েও বেশি পর্যটক সেন্টমার্টিনে যান। হঠাৎ প্রতিকূল আবহাওয়ায় যারা চলে আসতে চান তাদের ফিরে আসতে মাইকিং করা হয়। কিন্তু দুই শতাধিকের চেয়ে পর্যটক বেশি রাত্রি যাপনে থেকে যান। স্বেচ্ছায় দ্বীপে থেকে যাওয়া পর্যটকদের নিজ দায়িত্বে নিরাপদ অবস্থানে থাকতে মাইকিংয়ে অনুরোধ করা হয়েছিল।

কক্সবাজার আবহাওয়া অধিদফতরের সহকারী আবহাওয়াবিদ আবদুর রহমান জানান, সাগরে সৃষ্ট নিম্নচাপটি দুর্বল হয়ে পড়ায় কক্সবাজার সমুদ্রবন্দরে দেখানো সংকেত নামিয়ে ফেলা হয়েছে। সমুদ্র শান্ত হওয়ায় জাহাজ চলাচলে কোনো অসুবিধা নেই।

সেন্টমার্টিনের ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মদ জানান, নিম্নচাপের কারণে সমুদ্রবন্দরে সতর্ক সংকেত থাকায় বৃহস্পতিবার পর্যটকরা প্রবাল দ্বীপটিতে আটকে পড়েন। টানা তিন দিন ভারী বর্ষণের পর শনিবার দ্বীপের আবহাওয়া স্বাভাবিক হওয়া শুরু করে। আবহাওয়া পরিচ্ছন্ন থাকায় রোববার পর্যটকবাহী ‘কর্ণফুলী এক্সপ্রেস’ জাহাজটি এসে আটকা পড়াদের নিয়ে গেছে। নতুন আসা অনেক পর্যটক রাত্রি যাপনে সেন্টমার্টিনের অতিথি হয়েছে রোববার।

এদিকে, শনিবার আবহাওয়া স্বাভাবিক ঘোষণা আসার পর দ্বীপে আনন্দঘন সময় পার করেছে আটকা পড়া পর্যটকরা। সন্ধ্যা থেকে রাত নাগাদ বিভিন্ন মার্কেট ও দোকান থেকে তারা কেনাকাটা করেন। বিকেল থেকে রাত নাগাদ পর্যটকদের বিনোদন করতে দেখা গেছে বলে জানিয়েছেন ইউপি সদস্য হাবিব খান।

টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সাইফুল ইসলাম জানিয়েছেন, দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার কারণে গত কয়েকদিন ধরে সেন্টমার্টিন নৌরুটে জাহাজ চলাচল বন্ধ ছিল। তাই সেখানে আটকে থাকা পর্যটকরা কক্সবাজার কূলে ফিরে আসতে পারেননি। কিন্তু আটকেপড়া পর্যটকদের প্রশাসনিক তদারকিতে নিরাপদে রাখা হয়। আবহাওয়া স্বাভাবিক হওয়ায় জাহাজ চলাচল শুরু হওয়ায় রোববার তারা কূলে ফিরেছেন। নিরাপদে কূলে ফেরা পর্যন্ত আটকেপড়াদের দেখভাল করায় সেন্টমার্টিন পুলিশ ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের প্রতি সন্তুষ প্রকাশ করেন তিনি।

সায়ীদ আলমগীর/এমএসএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]