শায়েস্তাগঞ্জে মশার উৎপাতে অতিষ্ঠ পৌরবাসী

উপজেলা প্রতিনিধি উপজেলা প্রতিনিধি শায়েস্তাগঞ্জ (হবিগঞ্জ)
প্রকাশিত: ০৮:৫১ এএম, ০৬ মার্চ ২০২১
প্রতীকী ছবি

শীতের রেশ এখনো কাটেনি। কিন্তু এরইমাঝে হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জ পৌর এলাকায় মশার উৎপাতে অতিষ্ঠ জনগণ। বিশেষ করে জলাশয় ও পৌরসভা নির্মিত খোলা নর্দমার আশপাশ দিয়ে চলাচল যেন দুষ্কর হয়ে দাঁড়িয়েছে।

দেখে মনে হয় মানুষ যেন মশার রাজ্যে বসবাস করছেন। এদিকে গত বছরের ন্যায় করোনা ভাইরাস ও ডেঙ্গুর প্রকোপ বৃদ্ধির আতঙ্কে দিনাতিপাত করছেন এলাকাবাসী। তবে এ সমস্যা নিরসনে পৌর কর্তৃপক্ষকে কোনো পদক্ষেপ নিতে দেখা যাচ্ছে না।

সরেজমিনে পৌর এলাকার বিভিন্ন পাড়া-মহল্লা ঘুরে দেখা যায়, স্থানে স্থানে নোংরা পানির নর্দমা ও খোলা ড্রেনগুলোতে ভন ভন করে উড়ছে মশার ঝাঁক। অন্যান্য সময়ের তুলনায় এবার মশার ঘনত্বও অনেক বেশি।

শায়েস্তাগঞ্জ পৌর এলাকার উদয়ন আবাসিক এলাকার বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এ বছর শীত আসার পর থেকে এ পর্যন্ত মশা নিধনের কোনো উদ্যোগ নেয়নি পৌরসভা কর্তৃপক্ষ। সন্ধ্যার পর শিক্ষার্থীরা পড়াশোনায় মনোনিবেশ করতে পারে না এই মশার যন্ত্রনায়।

পৌর এলাকার নিজগাঁও মহল্লার বাসিন্দা ফজর আলী জানান, শীতের শেষে মশার উৎপাতে অতিষ্ঠ সবাই। দুর্ভোগ লাঘবে প্রশাসনকে কোনো পদক্ষেপ নিতে দেখা যাচ্ছে না।

শায়েস্তাগঞ্জ পৌরসভার দাউদ নগর মহল্লার বাসিন্দা চৌধুরী জুনাইদ বলেন, ‘রাতেও মশা, দিনেও মশা- এটি কোনো কথা? ঘরের ভিতরে বাড়ির আঙ্গিনায় অলিগলি কোথায় নেই মশার যন্ত্রনা? একদিকে ডেঙ্গুর ভয় অন্যদিকে করোনা। এ নিয়েই দুর্ভাবনা।’।

অপরদিকে শায়েস্তাগঞ্জ পৌরসভার বড়চর, মহলুলসুনাম, দক্ষিণবড়চর, বিরামচর, সাবাসপুর, উবাহাটা, সুদিয়াখলা, চরনুর আহমদ ও দাউদনগরের বাসিন্দারা সবাই মশার উপদ্রবে থাকার কথা জানান।

এ বিষয়ে শায়েস্তাগঞ্জ পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত সচিব মো. সিরাজুল ইসলাম বলেন, মশার উৎপাতের বিষয়টি নজরে এসেছে। খুব দ্রুত মশা নিধনের জন্য ওষুধ দেয়া হবে।

কামরুজ্জামান আল রিয়াদ/এসএমএম/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]