ম্যাজিস্ট্রেট ও ডিবি পরিচয়ে চাঁদা দাবি, গ্রেফতার ৩

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি গাজীপুর
প্রকাশিত: ০৮:৩৪ পিএম, ০৮ এপ্রিল ২০২১

গাজীপুরের চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ও ডিবি পুলিশ পরিচয়ে সিটি কর্পোরেশনের এক কাউন্সিলর এবং এক হাসপাতাল মালিকের কাছে মোবাইল ফোনে চাঁদা দাবির অভিযোগে তিন ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

বৃহস্পতিবার (৮ এপ্রিল) ভোরে গাজীপুর মহানগরীর বাসন থানার দিঘীরচালা এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। পিবিআই গাজীপুরের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মাকছুদের রহমান জাগো নিউজকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, গত ৬ এপ্রিল গাজীপুর সিটির ১৪ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. সোয়েব আল আসাদ (মনির) এবং কালিয়াকৈর থানার সফিপুর বাজারের খাজা বদরুদ্দোজা মডার্ন হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডা. মো. বখতিয়ারকে অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিরা মোবাইল ফোনে নিজেদেরকে গাজীপুর জেলা চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট এবং ডিবি পুলিশের এসআই পরিচয় দেয়। তারা বিভিন্ন মোবাইল ফোন নম্বর ব্যবহার করে চাঁদা দাবি করে।
পরবর্তীতে কাউন্সিলর ও হাসপাতালের মালিক উভয়েই বিষয়টি জেলা চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটকে ফোন করে জানান। এ ঘটনায় কাউন্সিলর সোয়েব আল আসাদ বাদী হয়ে বাসন থানায় এবং ডা. বখতিয়ার বাদী হয়ে কালিয়াকৈর থানায় মামলা করেন।

মামলাটির তদন্ত শুরু করে পিবিআই। পরে পিবিআইয়ের পুলিশ পরিদর্শক মো. হাফিজুর রহমান ও এসএম শাকিল হাসানের নেতৃত্বে একটি টিম প্রযুক্তি ও গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে বৃহস্পতিবার ভোরে নগরীর বাসন থানার দীঘিরচালা এলাকায় অভিযান চালিয়ে ঘটনায় প্রত্যক্ষভাবে জড়িত ওই এলাকার মো. সজীব হাসান শিপনকে (২২) গ্রেফতার করে। পরে তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী একই এলাকার আনোয়ার হোসেনের ছেলে মো. শফিকুল ইসলাম (২৭) এবং ওই এলাকার মো. হৃদয়কে (২১) গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারকৃত সজীবের কাছ থেকে চাঁদাবাজিতে ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটি উদ্ধার করেছে পিবিআই।

বৃহস্পতিবার অভিযুক্তরা গাজীপুর আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে।

মো. আমিনুল ইসলাম/এসএস/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]