ফেসবুকে ‘সচল’ সেই উস্কানিদাতা উজ্জ্বল, পুলিশ বলছে ‘পলাতক’

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি ব্রাহ্মণবাড়িয়া
প্রকাশিত: ০৭:১৭ পিএম, ১৫ এপ্রিল ২০২১

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের প্রতিবাদে এবং ঢাকা ও চট্টগ্রামে মাদরাসাছাত্রদের ওপর পুলিশের হামলার খবরে গত ২৬ থেকে ২৮ মার্চ পর্যন্ত ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ব্যাপক তাণ্ডব চালায় হেফাজতে ইসলামের কর্মীরা। এতে ক্ষতিগ্রস্ত হয় জেলা শহরের ৩৮টি প্রতিষ্ঠা। নিহত হন ১২ জন। এই তাণ্ডবকে উসকিয়ে দেয়ার অভিযোগ রয়েছে ‘আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া’ নামের একটি ফেসবুক গ্রুপের অ্যাডমিনের বিরুদ্ধে। বিষয়টি নিয়ে ফেসবুক জুড়ে চলছে সমালোচনার ঝড়। পুলিশ জানিয়েছে, এই গ্রুপটির অ্যাডমিন আদনান হোসেন উজ্জ্বলকে গ্রেফতারে বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চালানো হয়েছে। তবে পুলিশ তাকে খুঁজে না পেলেও তার ব্যক্তিগত ফেসবুক আইডি সচল রয়েছে বলে জানা গেছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত ২৬ মার্চ বিকেল থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় রেলস্টেশনসহ শহরের বিভিন্ন স্থাপনায় হামলা করেন মাদরাসাছাত্র ও হেফাজতে ইসলামের নেতাকর্মীরা। ২৭ ও ২৮ মার্চও চলে জেলা শহরে তাণ্ডব। ২৭ মার্চ রাতে ‘আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া’ নামের ফেসবুক পেজের অ্যাডমিন আদনান হোসেন উজ্জ্বল গ্রুপে উস্কানিমূলক পোস্ট করেন। তিনি লেখেন, ‘বোঝা যাচ্ছে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার তৌহিদী জনতা গর্জে উঠেছে। আল্লাহ আমাদের ঈমানকে আরও শক্ত করার তৌফিক দান করুক। ভয়কে নিয়ে নয় আমরা গর্ব করে বলতে পারি, আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া আপনাদের পাশে আছে সার্বক্ষণিক।’

আরেকটি ফেসবুক স্ট্যাটাসে লেখেন, ‘আপনারা যারা একটু ফ্রি আছেন, আপনাদের ফ্রেন্ডলিস্টের সকল মুসলিম ভাই ও বোনকে ইনভাইট করে গ্রুপের সাথে যুক্ত করুন....ইসলামের জিহাদের সাথে...বা প্রত্যেকটি আপডেট পেস্ট ফ্রেন্ডলিস্টের সকল ফ্রেন্ডদের মেনশন করুন।’

এই গ্রুপে এসএম সোহেল রানা নামের একজন তার পোস্টে লেখেন, ‘বি-বাড়িয়াতে অসংখ্য পুলিশ, বিজিবি অ্যাম্বলেন্স প্রবেশের তথ্য পাওয়া গেছে। যা বিশ্বযোগ্য ও নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিবর্গ জানিয়েছেন। অনেকে এমনও জানিয়েছেন, বিএসএফ প্রবেশ করেছে দলে দলে। ভয়ংকর কিছু অপেক্ষা করছে বি-বাড়িয়ায়। আশপাশের শহরের ভাইয়েরা বি-বাড়িয়ার দিকে যাওয়া আব্যশক হয়ে গেছে। সাহসী মানসিকতা তৈরির সময় এসে গেছে। ভিতু থাকলে এবার শুধু রক্তই ঝড়বে।’

jagonews24

ফেসবুক গ্রুপের এমন দায়িত্বজ্ঞানহীন কর্মকাণ্ডে সমালোচনার ঝড় ওঠে৷ গ্রুপে এমন উস্কানিমূলক পোস্টের ফলে আদনান হোসেন উজ্জ্বলকে গ্রেফতারকে দাবি জানানো হয়। এরপর থেকে গা ঢাকা দিয়েছেন আদনান।

জেলা ছাত্রলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি সুজন দত্ত বলেন, ‘আমরা দেখছি আদনান হোসেন উজ্জ্বল সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে অ্যাকটিভ। কিন্তু তাকে কেন এখনও গ্রেফতার করা হচ্ছে না তা বুঝে আসছে না।’

জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ ও প্রশাসন) রইছ উদ্দিন বলেন, ‘আমরা ফেসবুক পেজগুলো মনিটর আগেও করেছি, এখনও করছি। যারা সহিংসতায় উস্কানিদাতা তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

তিনি বলেন, ‘আদনান হোসেন উজ্জ্বলকে গ্রেফতার করতে ইতোমধ্যে আমরা বিভিন্ন জায়গায় অভিযান পরিচালনা করেছি। সে পলাতক আছে। ফেসবুকে অপপ্রচারকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

আবুল হাসনাত মো. রাফি/এসআর/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]