শরীয়তপুরে বিয়ের প্রলোভনে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ, অভিযুক্ত গ্রেফতার

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি শরীয়তপুর
প্রকাশিত: ০৫:০৩ পিএম, ২০ এপ্রিল ২০২১

শরীয়তপুরের ডামুড্যা পৌরসভায় বিয়ের প্রলোভনে নবম শ্রেণির এক স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে আবির মালো (২২) নামের এক যুবকের বিরুদ্ধে। সোমবার (১৯ এপ্রিল) রাতে এ ঘটনায় অভিযুক্ত আবিরকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

অভিযুক্ত আবির মালো ডামুড্যা পৌরসভা এলাকার বুধাই মালোর ছেলে।

ডামুড্যা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. জাফর আলী বিশ্বাস বলেন, সোমবার বিকেলে ভুক্তভোগীর মা ডামুড্যা বাজারে ছোট মেয়েকে নিয়ে ডাক্তার দেখাতে যান। যাওয়ার সময় বাড়িতে তার বড় মেয়েকে রেখে যান। এসময় তার বাবাও বাইরে ছিলেন।

এসময় একই এলাকার আবির মালো ওই স্কুলছাত্রীকে প্রাইভেট পড়াতে আসেন। দু’জনের মধ্যে অনেকদিন ধরে প্রেমের সম্পর্ক চলছিল। সন্ধ্যা ৬টায় ওই ছাত্রীকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করেন আবির।

এসময় হঠাৎ ওই স্কুলছাত্রীর বাবা বাড়িতে আসেন। বিষয়টি টের পেয়ে বাইর থেকে দরজা আটকে দেন তিনি।

এ ঘটনায় একইদিন রাতে রাতে আবিরকে আসামি করে ডামুড্যা থানায় ওই ছাত্রীর মা বাদী হয়ে মামলা করেন। মামলার পর আবিরকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

ভুক্তভোগী স্কুলছাত্রীর বাবা বলেন, আমার মেয়েকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণ করেছে আবির। আমি হাতেনাতে দু’জনকে আটক করেছি।

অভিযুক্ত আবির মালো বলেন, আমি ওই ছাত্রীকে বাসায় গিয়ে প্রাইভেট পড়াই। সে আমাকে বিভিন্ন সময় প্রেমের প্রস্তাব দিতো। রাজি না হওয়ায় সোমবার ক্ষিপ্ত হয়ে ছাত্রীর পরিবার আমাকে ঘরে আটকে রাখে। পরে মারধর করে বিয়ের চাপ দেয়। রাজি না হওয়ায় আমার বিরুদ্ধে মামলাও করেছে।

অন্যদিকে গত রোববার (১৮ এপ্রিল) বিকেলে ডামুড্যা উপজেলায় চকলেটের কিনে দেয়ার কথা বলে চার বছরের এক শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে এক কিশোরের বিরুদ্ধে।

এ ঘটনায় থানায় মামলা করেন ওই শিশুর বাবা। অভিযুক্তকে এখনো গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি বলে জানান ওসি।

ওসি আরো বলেন, মঙ্গলবার (২০ এপ্রিল) দুপুর ১২টায় ধর্ষণের শিকার ওই শিশু ও স্কুলছাত্রীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য ১০০ শয্যা বিশিষ্ট শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

ছগির হোসেন/এসএমএম/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]