বগুড়ায় রোগীর স্বজনকে মারধর, ক্লিনিক পরিচালকসহ আটক ৩

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক বগুড়া
প্রকাশিত: ০১:৪৫ এএম, ০৫ মে ২০২১

বগুড়ায় হেপাটাইটিস-বি পরীক্ষার রিপোর্ট ভুল দেয়ার অভিযোগ করায় রোগীর স্বজনকে মারধর করেছে সাইক জেনারেল নামের একটি বেসরকারি হাসপাতালের কর্মচারীরা। পরে বিক্ষুদ্ধ লোকজন হাসপাতাল ভাঙচুর করে।

মঙ্গলবার (৪ মে) বিকেলে বগুড়া শহরের ঠনঠনিয়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এসময় হাসপাতালের পরিচালকসহ তিনজনকে আটক করে।

আটকরা হলেন, সাইক জেনারেল হাসপাতালের পরিচালক রুহুল কুদ্দুস খন্দকার, ম্যানেজার প্রসেণজিৎ কুমার ও কর্মচারী জাহিদ হোসেন।

জানা যায়, বগুড়ার নিশিন্দারা উপশহরের সৌরভ হোসেন সোমবার (৩ মে) তার বোনকে নিয়ে হেপাটাইটিস বি পরীক্ষার জন্য সাইক জেনারেল হাসপাতালে যান। পরীক্ষার পর রিপোর্টে হেপাটাইটিস-বি শনাক্ত হয়। পরে মঙ্গলবার হেপাটাইটিস-বি আসলেই হয়েছে কিনা এমন সন্দেহে তারা পুনরায় একই পরীক্ষা আরো দুই জায়গায় করে। পরীক্ষার রিপোর্ট দুই জায়গা থেকেই নেগেটিভ আসে।

এরপর সৌরভ ওই রিপোর্টগুলোসহ আগে দেয়া রিপোর্ট নিয়ে আবারও বিকেলে সাইক জেনারেল হাসপাতালে যান। সেখানে রিপোর্ট ডেলিভারি সেন্টারে গিয়ে জানান যে, তারা যে রিপোর্ট দিয়েছে সেটি ভুল। এ নিয়ে সৌরভের সঙ্গে কর্মচারীদের বাগ-বিতণ্ডা শুরু হয়।

একপর্যায়ে কর্মচারীরা সৌরভকে মারধর শুরু করেন। সৌরভ হাসপাতাল থেকে দৌঁড়ে বাইরে এসে নিরাপদে যাওয়ার চেষ্টা করলে কর্মচারীরা তাকে সেখানে এসে মারধর করতে থাকেন।

এসময় স্থানীয়রা বিষয়টি জানার পর হাসপাতাল ভাঙচুর করে।

বনানী ফাঁড়ির ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহমুদ হাসান বলেন, পুলিশ সেখানে গিয়ে উত্তেজিত জনতাকে শান্ত করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করে। এসময় পরিচালক রুহুল কুদ্দুস এসে ওই যুবককে পুলিশের সামনেই আবারও কিল-ঘুষি মারেন। পরে হাসপাতালের পরিচালকসহ তিনজনকে আটক করে থানায় পাঠানো হয়।

এসএমএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]