‘ফ্রুটস সিরাপের’ অনুমোদনে তৈরি হচ্ছিল যৌন উত্তেজক সিরাপ

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি পাবনা
প্রকাশিত: ০৮:৩৭ পিএম, ০৬ মে ২০২১

পাবনা পৌর সদরে ‘আফুরিয়া ফাস্ট ফ্রুটস ইন্ডাস্ট্রিজ প্রাইভেট লিমিটেড’ নামের একটি প্রতিষ্ঠানে অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমাণ যৌন উত্তেজক সিরাপ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (৬ মে) বিকেলে এ অভিযান চালানো হয়।

পুলিশ জানিয়েছে, প্রতিষ্ঠানটির মালিক আব্দুর রাজ্জাক (৪৭) ফ্রুট সিরাপ তৈরির অনুমোদন নিয়ে তৈরি করে আসছিলেন উত্তেজক সিরাপ। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে তাকে পাঁচ লাখ টাকা জরিমানা করা হয় এবং কারখানাটি সিলগালা করে দেয়া হয়।

jagonews24

অভিযুক্ত আব্দুর রাজ্জাক শহরের আফুরিয়ার মৃত নিজাম উদ্দিন ওরফে তায়েম উদ্দিনের ছেলে।

পাবনা ডিবি পুলিশের পরিদর্শক (ওসি) আব্দুল হান্নান জানান, আব্দুর রাজ্জাক দীর্ঘদিন ধরে নিজ বাড়িতে কারখানা স্থাপন করে অবৈধ যৌন উত্তেজক সিরাপ তৈরি করছিলেন। এসব অবৈধ যৌন উত্তেজক সিরাপ পাবনা শহরসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে অবৈধভাবে বাজারজাত করে আসছিলেন। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে ওই কারখানায় অভিযান চালানো হয়। এসময় কারখানা থেকে বিপুল পরিমাণ যৌন উত্তেজক সিরাপ, এসএস পাউডার এবং অবৈধ সিরাপ তৈরির উপকরণ জব্দ করা হয়।

ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট খন্দকার মাহামুদুল হাসান।

jagonews24

একটি সূত্র জানায়, গত এক যুগ ধরে কারখানার মালিক আব্দুর রাজ্জাক ফ্রুট সিরাপ তৈরির অনুমোদন নিয়ে যৌন উত্তেজক সিরাপ তৈরি করে বাজারজাত করে আসছেন। আব্দুর রাজ্জাকের সঙ্গে তার শ্যালক আরিফুল ইসলামও এ ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। ২০১৯ সালের জুন মাসে নওগাঁ শহরে এই কোম্পানির তৈরিকৃত যৌন উত্তেজনাবর্ধক ‘ফাস্ট কিংস আপ’ ফ্রুট সিরাপ পান করার পর এক ব্যক্তি একটি বাড়িতে প্রবেশ করে মাকে হত্যার পর মেয়েকে ধর্ষণ করেন।

বিষয়টি নিয়ে সারা দেশে আলোচনা-সমালোচনার ঝড় ওঠে। এই ফ্যাক্টরির উৎপাদিত ‘হট ফিলিং সেক্সুয়াল ড্রিংক’ সেবন করে নওগাঁয় তিনজন মারা যান এবং অনেকে অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। এ ব্যাপারে নঁওগা থানায় একটি মামলাও রয়েছে।

পাবনা জেনারেল হাসপাতালের কনসালট্যান্ট ও বিএমএ পাবনার সেক্রেটারি ডা. আকসাদ আল-মাসুর আনন জানান, এসব ক্ষতিকর সিরাপ পান করলে মানুষের অকাল মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে।

আমিন ইসলাম/এসআর/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]