কাজীরহাট ফেরিঘাটে ঢাকামুখী যাত্রীদের উপচেপড়া ভিড়

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি পাবনা
প্রকাশিত: ০৪:৫৬ পিএম, ১৬ মে ২০২১

পাবনার বেড়া উপজেলার আমিনপুর থানার কাজীরহাট (নগরবাড়ী) ফেরিঘাটে পাবনা জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে ঢাকা অভিমুখী শত শত যাত্রীর ভিড় জমেছে।

রোববার (১৬ মে) দুুপুরে কাজীরহাট ফেরিঘাটে যাত্রীদের ভিড়ে পণ্যবাহী গাড়ি ফেরিতে উঠতে অনেক বেগ পেতে হয়। পণ্যবাহী যান সংখ্যায় খুবই কম ছিল।

Pabna

অনেক যাত্রী সকাল থেকে বিকেল সাড়ে ৩টা পর্যন্ত অপেক্ষার পর ফেরিতে উঠতে পারেন। অনেকে উঠতেও পারেননি। কাজীরহাট- আরিচা নৌরুটে নিয়মিত চারটি ফেরির জায়গায় দুটি ফেরি চলাচল করায় এ দুর্ভোগ বলে যাত্রীদের দাবি। বিআইডব্লিউটিসি কর্মকর্তারাও জানিয়েছেন, রোববার দুটি ফেরি চলাচল করছে।

Pabna

বিকেলে কাজীরহাট ফেরিঘাটে গিয়ে দেখা যায়, কয়েকশ’ যাত্রী পারাপারের অপেক্ষায়। যাত্রীরা জানান, তারা সকাল ১০টা থেকে অপেক্ষা করেও ফেরির দেখা পাননি। স্পিডবোট ও ট্রলার চলাচল বন্ধ থাকায় তারা বিকল্পভাবে যেতে পারছেন না। দীর্ঘ অপেক্ষার পর ঘাটে পৌঁছায় বেগম রোকেয়া ফেরি। অনেকক্ষণ পর ফেরি আসায় যাত্রীরা ফেরিতে উঠতে হুড়োহুড়ি শুরু করে দেন।

বিআইডব্লিউটিএর আরিচার উপ-সহকারী প্রকৌশলী আব্দুল আওয়াল জানান, তারা শুধু ঘাট সংক্রান্ত বিষয় দেখভাল করেন। ফেরি বা লঞ্চ চলাচলের বিষয় বিআইডাব্লিউটিসি দেখভাল করে।

Pabna

বিআইডব্লিউটিসি আরিচা ঘাটের ম্যনেজার মাহবুবুর রহমান জানান, বেগম রোকেয়া ও বেগম সুফিয়া কামাল নামের দুটি ফেরি কাজীরহাট-আরিচা নৌরুটে চলাচল করছে। ঈদের ছুটি শেষ হওয়ায় যাত্রীরা ব্যাপকভাবে ভিড় করছেন। বিভিন্নভাবে চেষ্টা করেও তাদের ভিড় সামলানো সম্ভব হচ্ছে না। তবে এ ভিড় সহসাই কমে যাবে বলে তিনি জানান।

আমিন ইসলাম/এসআর/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]