কুতুবদিয়ায় ১২ গ্রাম প্লাবিত, সাগরে তলিয়ে গেছে ঝাউগাছসহ বালিয়াড়ি

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি কক্সবাজার
প্রকাশিত: ০৮:৫০ পিএম, ২৪ জুলাই ২০২১

লঘুচাপ ও পূর্ণিমার প্রভাবে বাড়ন্ত জোয়ারের পানিতে কক্সবাজারের কুতুবদিয়ার আলী আকবর ডেইল ইউনিয়নের তিনটি ওয়ার্ডের ১২টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। কক্সবাজার সৈকতের ডায়াবেটিকস পয়েন্টের প্রায় ১৫০ মিটার অংশের বালিয়াড়ি সাগরে বিলীন হয়ে গেছে। উপড়ে গেছে অসংখ্য ঝাউগাছ। জোয়ারের ঢেউয়ের তোড়ে ভেঙে পড়েছে কক্সবাজার হিমছড়ির পরিত্যক্ত ‘মাধবী’ রেস্টহাউস।

শনিবার (২৪ জুলাই) দুপুরের জোয়ারের সময় এসব প্লাবন ও ভাঙনের ঘটনাগুলো ঘটে। ভাঙনের ঝুঁকিতে রয়েছে বিমান বাহিনীর স্থাপনাও।

জেলা ও উপজেলা প্রশাসন এবং পানি উন্নয়ন বোর্ডের পক্ষ থেকে ক্ষতিগ্রস্ত সৈকত এলাকা, কুতুবদিয়ার প্লাবিত গ্রামগুলো পরিদর্শন ও ক্ষয়ক্ষতি নিরূপণ করা হয়েছে।

কুতুবদিয়া উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি অ্যাডভোকেট ফরিদুল ইসলাম চৌধুরী বিষটি নিশ্চিত করেছেন।

jagonews24

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, চলিত বছরের মে মাসের শেষের দিকে ঘূর্ণিঝড় ইয়াসে আলী আকবর ডেইল ইউনিয়নের প্রায় তিন কিলোমিটার বেড়িবাঁধ একদম বিলীন হয়ে যায়। ইউনিয়নের বায়ু বিদ্যুৎ এলাকার সাইট পাড়া, কিরণ পাড়া, কাজীর পাড়া, নাছিয়ার পাড়া, তেলিয়াপাড়া, হাদার পাড়াসহ প্রায় ১২ গ্রামের ৫শ' ঘর বাড়ি পানিতে বিলীন হয়ে যায়।

আশ্রয়হীন হয়ে পড়ে এসব এলাকায় বসবাসরত মানুষ। ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাব কেটে গেলেও ভাঙা বাঁধ মেরামত করা সম্ভব হয়নি। ফলে শনিবার পূর্ণিমার জোয়ারের পানিতে আবারও প্লাবিত হয়ে তলিয়ে গেছে এসব এলাকার বসতবাড়ি, দোকান পাট ও ফসলি জমি। বাংলাদেশের একমাত্র বায়ু বিদ্যুৎ কেন্দ্রটিও রয়েছে ঝুঁকিতে।

স্থানীয় বাসিন্দা আবদুল হামিদ বলেন, ‘দেড় মাস আগে ঘূর্ণিঝড়ে আমার ঘরবাড়ি ভেঙে যায়। অনেক কষ্ট করে মেরামত করেছি। কিন্তু আবারও নোনা পানি ডুকে ঘরের আসবাবপত্র নষ্ট হয়ে গেছে। এর একটা স্থায়ী সমাধান চাই।’

jagonews24

আলী আকবর ডেইল ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর সিকদার বলেন, ‘জরুরি ভিত্তিতে জিওব্যাগ দেয়ার জন্য স্থানীয় সাংসদ আশেক উল্লাহ রফিক ও জেলা আ'লীগের সভাপতি ও কুতুবদিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট ফরিদুল ইসলাম চৌধুরী নির্দেশনা দিয়েছিলেন। কিন্তু ঠিকাদার বেড়িবাঁধ মেরামত করেনি, জিওব্যাগও দেয়নি। তাই তিনটি ওয়ার্ড আবারও প্লাবিত হয়েছে। ঠিকাদারের গাফিলতির কারণে এ সমস্যা হয়েছে।’

কুতুবদিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নুরের জামান চৌধুরী বলেন, ‘উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে জেলা প্রশাসক বরাবর জরুরি ত্রাণ সহায়তার চাহিদাপত্র ও পানি উন্নয়ন বোর্ডকে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার অনুরোধ জানিয়ে পত্র পাঠানো হয়েছে।’

কক্সবাজার পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী প্রবীর কুমার গোস্বামী বলেন, ‘পূর্ণিমার জোয়ার ও লঘুচাপের ফলে সাগরে তিন থেকে চার ফুট পানি বৃদ্ধি পায়। এতে ডায়াবেটিক পয়েন্টে সৈকতের ২০০ মিটার অংশ সাগরে বিলীন হয়েছে। ইয়াসের সময় বিলীন হওয়া কুতুবদিয়ার আলীআকবর ডেইল ইউনিয়নের কিছু বেড়িবাঁধ দিয়ে জোয়ারের পানি ঢুকেছে বলে খবর পেয়েছি। কক্সবাজার সৈকত এলাকায় দ্রুত ক্ষতিগ্রস্ত অংশে জিও ব্যাগ দিয়ে প্রতিরক্ষা কাজ এবং কুতুবদিয়াতেও দ্রুত কাজ শুরুর নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।’

কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক আমিন আল পারভেজ বলেন, ‘সৈকতের ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা এমনভাবে মেরামত করার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে যাতে ভবিষ্যতে আর ক্ষয়ক্ষতি না হয়।’

jagonews24

এদিকে, সাগরের জোয়ারের ঢেউয়ের তোড়ে ধ্বসে পড়েছে কক্সবাজার মেরিন ড্রাইভ রোডের হিমছড়িস্থ জেলা পরিষদের রেস্টহাউস ‘মাধবী’। তবে এ ঘটনায় কেউ হতাহত হয়নি বলে জানিয়েছে পুলিশ।

শনিবার বেলা সোয়া ১১টার দিকে উত্তাল সাগরের ঢেউয়ের আঘাতে রেস্টহাউস ধসে পড়ে বলে জানান কক্সবাজার দক্ষিণ বনবিভাগের সদর রেঞ্জ কর্মকর্তা সমীর রঞ্জন সাহা।

জেলা পরিষদ সূত্র জানায়, ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় তিন বছর আগে ভবনটি পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয়। শনিবার বেলা সোয়া ১১টার দিকে হঠাৎ সাগরের ঢেউয়ের আঘাতে ভবনটি ধসে পড়ে। ধসে পড়া ভবনের বিভিন্ন অংশ আটকে আছে জিও ব্যাগে।

কক্সবাজার আবহাওয়া অফিসের সূত্রে জানা গেছে, লঘুচাপের কারণে ৩ নম্বর স্থানীয় সর্তক সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। সাগর উত্তাল থাকার পাশাপাশি বাতাসও রয়েছে। আগামী কয়েকদিন এ অবস্থা অব্যাহত থাকবে।

সায়ীদ আলমগীর/এসজে/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]