মা-বাবার সেবা ও সন্তানকে স্কুলে পাঠানোর শর্তে মুক্তি তিন আসামির

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি ব্রাহ্মণবাড়িয়া
প্রকাশিত: ০৮:০৭ পিএম, ২৬ নভেম্বর ২০২১
ফাইল ছবি

রায়হান বেপারি, আবুল কাশেম ও আনোয়ার হোসেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া উপজেলার ধরখার ইউনিয়নের গুলখার গ্রামের বাসিন্দা। তিনজনই পেশায় সিএনজিচালক। তারা তিনজনই ছিলেন মাদকসেবী। ২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারিতে মাদক সেবন করার সময় পুলিশের হাতে আটক হন তারা। পরে পুলিশ তাদের বিরুদ্ধে মামলা করে।

বৃহস্পতিবার (২৫ নভেম্বর) সংশোধন হওয়ার সুযোগ দিয়ে এ মামলায় ব্যতিক্রমী রায় দিয়েছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক মো. রাকিবুল হাসান রকি।

রায়ে বাবা-মায়ের সেবা, সন্তানদের স্কুলে পাঠানো, গাছ লাগানোসহ বিভিন্ন নির্দেশনা দেওয়া হয়। আসামিরা সংশোধন হলে তাদেরক মামলা থেকে চূড়ান্তভাবে অব্যাহতি দেওয়া হবে বলে আদালত জানান। একইসঙ্গে রায় কার্যকরের জন্য একজন প্রবেশন কর্মকর্তা নিয়োগের নির্দেশনা দেন আদালত।

সংশোধনমূলক রায়ের আসামিরা হলেন-মো. হারুন বেপারির ছেলে মো. রায়হান বেপারি, হেলাল খানের ছেলে মো. আবুল কাশেম ও আব্দুল আজিজের ছেলে ছেলে আনোয়ার হোসেন। তারা সবাই উপজেলার ধরখার ইউনিয়নের গুলখার গ্রামের বাসিন্দা।

রায়ের আদেশে উল্লেখ করা হয়, রাষ্ট্রপক্ষ মামলাটি সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছে। আসামিদের মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে দোষী সাব্যস্ত করে দণ্ড আরোপ করা যৌক্তিক ও যথাযথ বিবেচিত হয়। তবে নথি পর্যালোচনায় দেখা যায়, তিন সিএনজিচালকের বিরুদ্ধে আগের কোনো মামলা নেই অর্থাৎ তারা কোনো পেশাদার অপরাধী নন। পেশায় তারা প্রত্যেকে সিএনজিচালিত অটোরিকশাচালক। তাদের কারাগারে পাঠানো হলে অন্য অপরাধীদের সাহচর্যে তাদের মধ্যে অপরাধ প্রবণতা বৃদ্ধি পাবে।

‘ফৌজদারি বিচারব্যবস্থায় অপরাধীকে সবক্ষেত্রেই সাজা আরোপ করা আইন সমর্থন করে না। কেননা শাস্তি দেওয়ার অন্যতম উদ্দেশ্য সংশোধন, প্রতিহিংসামূলক নয়। এক্ষেত্রে অপরাধীকে সমাজের নিজ পরিমণ্ডলে একজন প্রবেশন কর্মকর্তা নিয়মিত পর্যবেক্ষণে তার অপরাধ প্রবণতা সরিয়ে সু-প্রবৃত্তিকে ফিরিয়ে আনতে পারেন।’

আদালতের রায়ে উল্লেখ করা হয়, আগামী এক বছরের জন্য আসামিরা প্রবেশন কর্মকর্তার তত্ত্বাবধানে থাকবেন এবং তার নির্দেশনা মেনে চলবেন। ওই সময়ে তারা কোনো অপরাধ করবেন না, শান্তি বজায় রাখবেন, সদাচরণ করবেন। আদালত, প্রবেশন কর্মকর্তা ও আইন প্রয়োগকারী সংস্থার তলবমতে যথাসময়ে যথাস্থানে উপস্থিত হবেন। মাদক সেবন ও বিক্রয় করতে পারবেন না। মাদকসেবী ও মাদক ব্যবসায়ীদের সঙ্গে মেলামেশা করবেন না। জুয়া, তাস, ক্যাসিনো, বাজি ইত্যাদি থেকে নিজেকে দূরে রাখতে হবে।

‘আসামি ধূমপান ছাড়বেন। প্রবেশন কর্মকর্তার নির্দেশনামতে বিভিন্ন সভা-সমাবেশে উপস্থিত হয়ে মাদকবিরোধী প্রচারণায় অংশ নেবেন। প্রবেশন কর্মকর্তার অনুমতি না নিয়ে পেশা ও বাসস্থান পরিবর্তন করতে পারবেন না। সবসময় আদালত স্থানীয় অধিক্ষেত্রের মধ্যে নির্দিষ্ট বাসস্থান বা পেশায় থাকতে হবে। প্রবেশনকালে আসামি পরিবেশের প্রতি দায়িত্বশীল হিসেবে ২০টি ফলদ, বনজ ও ওষুধি গাছ লাগাবেন।’

‘আসামিরা প্রবেশনকালে পিতামাতার দেখাশোনা করবেন এবং ভরণপোষণের দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করবেন। সন্তানদের বিদ্যালয়ে পাঠানো ও উপযুক্ত পড়াশোনার বন্দোবস্ত করবেন। নিয়মিত নামাজ আদায় এবং ধর্মীয় কাজ করবেন।’

আদালতের দেওয়া আদেশের কোনো শর্ত লঙ্ঘন করলে এক বছরের সশ্রম কারাদণ্ড ও এক হাজার টাকা অর্থদণ্ড, অনাদায়ে আরও সাতদিনের সশ্রম কারাদণ্ড ভোগ করতে হবে। প্রবেশন কর্মকর্তাকে প্রতি তিন মাস পরপর শর্ত প্রতিপালন ও অগ্রগতি সম্পর্কে রিপোর্ট জমার নির্দেশনা দেওয়া হয়। সফলভাবে আসামিরা সংশোধন হলে তাদের মামলা থেকে চূড়ান্তভাবে অব্যাহতি দেওয়া হবে।

আসামিপক্ষের আইনজীবী মো জাহাঙ্গীর আলম সাংবাদিকদের বলেন, ‘এ রায়ের মধ্যদিয়ে সমাজে অনেক গুরুত্বপূর্ণ মেসেজ পৌঁছাবে। জেলে না পাঠিয়েও যে সংশোধন করানো যায় সেটার উদাহরণ সৃষ্টি হবে। আমি এ রায়ে খুশি। আমিসহ দুই আসামির মা ও স্ত্রী লিখিত দিয়েছেন।’

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী এমদাদুল হক চৌধুরী বলেন, ‘এ মামলায় আসামিদের দুই বছরের সাজা হতে পারতো। সেটা না করে তাদের সংশোধনের যে রায় দেওয়া হয়েছে সেটা দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। যে আইনে এ রায়টি দেওয়া হয়েছে সেটির প্রচলন নেই। আমারও এটা জানা ছিল না। এর আগে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় এমন দৃষ্টান্তমূলক রায় হয়েছে বলে জানা নেই।’

আবুল হাসনাত মো. রাফি/এসআর/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]