ন্যায়বিচার পেয়েছি: টিটিই শফিকুল ইসলাম

জাগো নিউজ ডেস্ক
জাগো নিউজ ডেস্ক জাগো নিউজ ডেস্ক ঈশ্বরদী (পাবনা)
প্রকাশিত: ০৬:৪২ পিএম, ১৬ মে ২০২২

তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে সম্পূর্ণ নির্দোষ প্রমাণিত হয়েছেন ট্রেনের টিকিট পরিদর্শক (টিটিই) শফিকুল ইসলাম। সোমবার (১৬ মে) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে পাকশী বিভাগীয় রেলওয়ের ব্যবস্থাপক (ডিআরএম) শাহিদুল ইসলামের কাছে প্রতিবেদন জমা দেয় তদন্ত কমিটি।

তদন্ত কমিটি যে প্রতিবেদন দিয়েছে তাতে সন্তুষ্টি প্রকাশ করে টিটিই শফিকুল ইসলাম বলেছেন, ‘আলহামদুলিল্লাহ, আমি ন্যায় বিচার পেয়েছি। মহান আল্লাহ তায়ালার কাছে শুকরিয়া আদায় করছি। আমি কোনো অন্যায় ও অপরাধ করিনি। কখনো অপরাধের সঙ্গে আপসও করি না। আল্লাহ তায়ালা আমার সততার মূল্যায়ন করেছে। আগামী দিনেও সততা ও ন্যায়নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করে যাবো ইনশাল্লাহ।’

সোমবার (১৬ মে) বিকেল ৪টায় নিজ কর্মস্থল ঈশ্বরদী জংশন স্টেশনে জাগো নিউজকে এসব কথা বলেন শফিকুল ইসলাম।

তিনি আরও বলেন, ‘আমি কখনো যাত্রীদের সঙ্গে খারাপ আচরণ করি না। ওইদিনও করি নি। আমি প্রথম দিন থেকে যা বলে আসছি তদন্তে সেটা প্রমাণিত হয়েছে।’

ট্রেনের গার্ড শরিফুল ইসলাম কেন ফাঁসাতে চেয়েছিলেন, তার সঙ্গে কোনো ঝামেলা আছে কি না জানতে চাইলে টিটিই শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘কেন তিনি আমাকে ফাঁসাতে চাইলেন তা জানি না। তবে রেলের কোনো কর্মকর্তা ও স্টাফের প্রতি আমার ক্ষোভ নেই।’

গত ৫ মে রাতে ঈশ্বরদী রেল জংশন থেকে ঢাকাগামী সুন্দরবন এক্সপ্রেস ট্রেনে টিকিট ছাড়া এসি কেবিনে উঠে বসেন রেলপথমন্ত্রীর আত্মীয় তিন যাত্রী। এ কারণে টিটিই শফিকুল ইসলাম তাদের জরিমানা করেন।

পরে ওই তিন যাত্রীর একজন ইমরুল কায়েস প্রান্ত টিটিইর বিরুদ্ধে অশোভন আচরণের অভিযোগ তোলেন। এ অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে টিটিই শফিকুল ইসলামকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।

ঘটনাটি বিভিন্ন মিডিয়ায় প্রকাশ হলে সর্বত্র আলোচনা-সমালোচনার ঝড় ওঠে। গত ৮ মে রেলমন্ত্রীর নির্দেশে টিটিই শফিকুলের বরখাস্তাদেশ প্রত্যাহার করে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। ১৬ মে তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়। এতে টিটিই শফিকুল নির্দোষ প্রমাণিত হন।

এসআর/এমএস

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।