জামালপুরে একদিনে ২ বীর প্রতীকের মৃত্যু

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি জামালপুর
প্রকাশিত: ০৫:১৮ পিএম, ২২ মে ২০২২
মতিউর রহমনা (বাঁয়ে) ও সৈয়দ সদরুজ্জামান হেলাল (ডানে)

জামালপুরে এক দিনে খেতাবপ্রাপ্ত দুই বীর মুক্তিযোদ্ধা মারা গেছেন। রোববার (২২ মে) পৃথক স্থানে তারা বার্ধক্যজনিত কারণে মৃত্যুবরণ করেন।

বীর মুক্তিযোদ্ধারা হলেন- জেলার মেলান্দহ উপজেলার দুরমুঠ ইউনিয়নের সাহেববাড়ি গ্রামের সৈয়দ সদরুজ্জামান হেলাল ও অপরজন বকশিগঞ্জ উপজেলার ধানুয়া কামালপুর এলাকার মতিউর রহমান।

সৈয়দ সদরুজ্জামান হেলাল বেলা সাড়ে ১১টার দিকে জামালপুর জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। মতিউর রহমান একই দিন দুপুরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন থেকে মৃত্যুবরণ করেন।

স্থানীয়রা জানান, সৈয়দ সদরুজ্জামান হেলাল ১৯৫০ সালের ৩১ জানুয়ারি জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৬৯ সালের গণ-অভ্যুত্থানের সময় তিনি পূর্ব পাকিস্তান ছাত্র ইউনিয়নের জামালপুর মহকুমা শাখার জ্যৈষ্ঠ সভাপতি ছিলেন। তিনি মহান মুক্তিযুদ্ধে ১১ নম্বর সেক্টরে কোম্পানি কমান্ডার ছিলেন। স্বাধীনতা যুদ্ধে সাহসিকতার জন্য তাকে বীর প্রতীক খেতাব দেওয়া হয়।

মেলান্দহ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. সেলিম মিঞা জাগো নিউজকে বলেন, বিকেল ৫টায় গার্ড অব অনার সম্মান দেওয়া হবে। সোমবার নিজ উপজেলায় তার দাফন সম্পন্ন হবে।

অপরদিকে বীর প্রতীক মতিউর রহমান ধানুয়া গ্রামের মরহুম তসলিমউদ্দীন সরকার ও সখিনা বেগম দম্পতির সন্তান। তিনি ১১ নম্বর সেক্টরে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেন। মুক্তিযুদ্ধে অসামান্য অবদানের জন্য তাকে বীর প্রতীক খেতাবে ভূষিত করা হয়।

এ বিষয়ে বকশিগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মুনমুন জাহান জাগো নিউজকে বলেন, তিনি প্যারালাইজড ছিলেন। সোমবার সকাল ৯টায় রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় জানাজা শেষে তার বাড়িতে দাফন করা হবে।

জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ডেপুটি কমান্ডার সুজাত আলী বলেন, উভয়ের মৃত্যুতে জেলা জুড়ে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। তাদের হারিয়ে আমরা দুজন অভিভাবক হারালাম। মুক্তিযুদ্ধে তাদের বীরত্বগাঁথা অবদান জাতি সারাজীবন মনে রাখবে।

মো. নাসিম উদ্দিন/আরএইচ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]