১৬ বছরেও নির্মাণ হয়নি কালভার্টের সংযোগ সড়ক

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি ফেনী
প্রকাশিত: ০৯:৫৯ পিএম, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২

১৬ বছরেও নির্মাণ হয়নি কালভার্টের দুই পাশের সংযোগ সড়ক। ফলে ভোগান্তিতে বছরের পর বছর পার করছেন ফেনীর পরশুরাম উপজেলার চিথলিয়া ইউনিয়নের ৬ গ্রামের কয়েক হাজার মানুষ। স্থানীয়দের অভিযোগ, ইউপি চেয়ারম্যানসহ জনপ্রতিনিধিদের বার বার জানিয়েও কোনো সুফল আসেনি বলে।

স্থানীয় ও সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ২০০৬ সালে ২০ লাখ টাকা ব্যয়ে উত্তর শ্রীপুর-জগমোহনপুর সড়কে কালভার্টটি নির্মাণ করে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার (পিআইও) কার্যালয়। ভূঁইয়া এন্টারপ্রাইজ নামের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান দুই পাশের সংযোগ সড়ক নির্মাণ না করেই কালভার্টের কাজ বন্ধ করে দেন। এরপর স্থানীয়রা সামান্য মাটি দিয়ে কোনো মতে চলাচল করলেও বেশ কয়েক বছর সে মাটিও সরে যায়। ফলে কালভার্টটি ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে।

সংযোগ সড়ক না থাকায় ইউনিয়নের পশ্চিম সাহেব নগর, দুর্গাপুর, উত্তর শ্রীপুর, জগমোহনপুর, জঙ্গলঘোনা, কুণ্ডের পাড়ের কয়েক হাজার মানুষের চলাচলে বিঘ্ন ঘটে। এসব এলাকার মানুষকে পূর্বসাহেব নগর ও ধনিকুণ্ডা রাস্তা দিয়ে পরশুরামসহ বিভিন্ন এলাকায় যাতায়াত করতে হয়। এতে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে তাদের।

আবুল কাশেম নামের এক ভুক্তভোগী জানান, চিথলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান জসিম উদ্দিনকে একাধিকবার লিখিত ও মৌখিকভাবে জানালেও কোনো সুফল পাওয়া যায়নি।

স্থানীয় ইউপি সদস্য আবদুর রহিম জানান, কালভার্টের দুই পাশে মাটি দেওয়ার জন্য চেয়ারম্যানকে বলে আসছি। কিন্তু কোনো লাভ হচ্ছে না। ফলে এ সড়ক দিয়ে মানুষের চলাচল নেই বললেই চলে। কালভার্টের দুই পাশ যদি মাটি দিয়ে সমান করা হয় তবে চলাচল করা যেতো।

১৬ বছরেও নির্মাণ হয়নি কালভার্টের সংযোগ সড়ক

এ বিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান জসিম উদ্দিন জানান, দুই পাশে মাটি না থাকায় কালভার্টটি ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। এলজিইডি এ সমস্যার সমাধান করে দেওয়ার কথা।

পরশুরাম উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) অজিৎ চন্দ্র দেবনাথ জাগো নিউজকে জানান, ইউনিয়ন পরিষদের অর্থায়নে কালভার্টের দুই পাশ মাটি দিয়ে ভরাট করে দিলে যানবাহনসহ লোকজন চলাচল করতে পারতো।

পরশুরাম উপজেলা প্রকৌশলী (এলজিইডি) এস এম শাহ আলম ভূঁইয়া জানান, কার্যালয়ের দুই সহকারী প্রকৌশলী কালভার্টটি পরিদর্শন করেছেন। প্রয়োজনে এডিবি থেকে বরাদ্দ দিয়ে হলেও কালভার্টের দুই পাশ মেরামত করে দেওয়া হবে।

তিনি আরও জানান, ইউনিয়ন পরিষদ থেকে চাহিদাপত্র পাঠালে কালভার্টের দুই পাশে মাটি ও পাকা করে দেওয়া হবে।

আবদুল্লাহ আল-মামুন/আরএইচ/জেআইএম

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।