রাজনীতিবিদ আব্দুর রশিদের পাশে জাতীয় পার্টি

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক বগুড়া
প্রকাশিত: ০৪:২৪ পিএম, ০২ অক্টোবর ২০২২

হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ যখন রাষ্ট্রপতি, সে সময় জাতীয় পার্টির (জাপা) দাপুটে নেতা ছিলেন বগুড়ার নন্দীগ্রাম উপজেলার ভাটগ্রামের বাসিন্দা আব্দুর রশিদ। তিনি ছিলেন উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি। সেই আব্দুর রশিদ এখন নিঃস্ব। গত এক বছরের বেশি সময় ধরে তিনি একটি বাসস্ট্যান্ডের যাত্রী ছাউনিতে থাকতেন। পরে সেখান থেকে তাকে উদ্ধার করে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

এদিকে, বিষয়টি নজরে আসার পর চিকিৎসাধীন নিঃস্ব আব্দুর রশিদের পাশে দাঁড়িয়েছে জাতীয় পার্টি। তার চিকিৎসাসহ সার্বিক বিষয়ে খোঁজ-খবর নেন দলের নেতারা।

জাপা চেয়ারম্যান ও জাতীয় সংসদের বিরোধীদলীয় উপনেতা গোলাম মোহাম্মদ (জিএম) কাদেরের নির্দেশে আব্দুর রশিদকে দেখতে শনিবার (১ অক্টোবর) দুপুরে হাসপাতালে যান দলটির কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ফারুক আহমেদ। তার সঙ্গে ছিলেন নন্দীগ্রাম উপজেলা জাতীয় পার্টির আহ্বায়ক মেহেদী হাসান মাফু, সদস্য সচিব নজরুল ইসলাম দয়া, যুগ্ম-আহ্বায়ক জহুরুল হক মাস্টার, যুগ্ম-সদস্য সচিব রাসেল মাহমুদ, জাপা নেতা আমিনুল ইসলাম জুয়েল, মিজানুর রহমান, আইযুব আলী, এমদাদুল হক প্রমুখ।

এসময় আব্দুর রশিদকে পোশাক ও ফলমূল উপহার দেওয়া হয়। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. ইকবাল মাহমুদ লিটনের সঙ্গে তার চিকিৎসার বিষয়ে আলোচনা করেন নেতারা।

জানা গেছে, এক সময়ের দাপুটে প্রভাবশালী জাপা নেতা আব্দুর রশিদ ছিলেন তিনটি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক। উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে গোলাপ ফুল মার্কা নিয়ে নির্বাচন করেন তিনি। জমিজমা, বাড়িঘর, স্ত্রী-সন্তান সবই ছিল এক সময়। সব হারিয়ে ৮৮ বছর বয়সী আব্দুর রশিদের ঠাঁই হয় নন্দীগ্রাম উপজেলার কুন্দারহাট বাসস্ট্যান্ডের যাত্রী ছাউনিতে। এক বছরের বেশি সময় ধরে তিনি সেখানেই থাকতেন। যাত্রী ছাউনি থেকে বৃদ্ধ রশিদকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে উপজেলা প্রশাসন।

এ বিষয়ে জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ফারুক আহমেদ জানান, পার্টি চেয়ারম্যান জিএম কাদেরের নির্দেশে তিনি আব্দুর রশিদের খোঁজ নিতে এসেছেন। তাকে বস্ত্রসহ ফলমূল উপহার দেওয়া হয়েছে। চিকিৎসকদের সঙ্গে কথা বলা হয়েছে।

উপজেলা প্রশাসনের সঙ্গে আলোচনা করে আব্দুল রশিদকে সার্বিক সহযোগিতা করবেন বলেও জানান তিনি।

এমআরআর/জেআইএম

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।