পদ্মা সেতুর প্রভাব

যশোর-ঢাকা রুটে অর্ধেকে নেমেছে ফ্লাইট, যাত্রী কমেছে ৪০ শতাংশ

মিলন রহমান মিলন রহমান , জেলা প্রতিনিধি, যশোর
প্রকাশিত: ০৩:০৮ পিএম, ০৪ ডিসেম্বর ২০২২

যশোর-ঢাকা রুটে বিভিন্ন এয়ারলাইন্সে ৪০ শতাংশ যাত্রী কমেছে। এতে করে এ রুটে ফ্লাইটের সংখ্যাও কমে অর্ধেকে নেমে এসেছে। পদ্মা সেতু চালুর পর এ সংকট দেখা দিয়েছে বলে জানান সংশ্লিষ্টরা।

বিমানবন্দর সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, পদ্মা সেতু উদ্বোধনের আগে যশোর বিমানবন্দর যাত্রীদের পদচারণায় মুখর ছিল। সে সময় যশোর-ঢাকা রুটে নিয়মিত ১৫টি ফ্লাইট যাতায়াত করছে। প্রতিদিন বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স, ইউএস-বাংলা ও নভোএয়ারের একাধিক ফ্লাইট বিমানবন্দরে অবতরণ করতো। যশোর-ঢাকা ছাড়াও যশোর-চট্টগ্রাম এবং যশোর-কক্সবাজার রুটেও একদিন পরপর ফ্লাইট ছিল। বিমানের টিকিটও সহজলভ্য ছিল না। বাড়তি চাহিদার কারণে কখনও কখনও টিকিটের দাম দ্বিগুণ হয়ে যেতো।

কিন্তু গত ২৫ জুন পদ্মা সেতু উদ্বোধনের পর পাল্টে গেছে দৃশ্যপট। যোগাযোগ সহজ হয়ে যাওয়ায় অনেকে সড়কপথে ঢাকায় যাতায়াত করছেন। ফেরির কারণে ঢাকায় পৌঁছাতে আগে ৬-১২ ঘণ্টা লাগলেও এখান ৩-৪ ঘণ্টায় পৌঁছানো সম্ভব। ফলে পদ্মা সেতু উদ্বোধনের পাঁচ মাসের মধ্যে যশোর থেকে ৪০-৫০ শতাংশ যাত্রী কমে গেছে।

বিমানবন্দরের ম্যানেজার রিয়াজুল ইসলাম মাসুদ জানান, যশোরে বিমানের যাত্রী কমেছে; এ কারণে ফ্লাইটের সংখ্যাও কমেছে। আগে যশোর-ঢাকা, যশোর-চট্টগ্রাম, যশোর-কক্সবাজার রুটে সবমিলিয়ে ১৮টি পর্যন্ত ফ্লাইট চলেছে। এখন সেখানে যশোর-ঢাকা রুটে সাতটি ফ্লাইট চলছে। এর মধ্যে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের দুটি, নভোএয়ারের দুটি ও ইউএস-বাংলার তিনটি। যশোর-চট্টগ্রাম, যশোর-কক্সবাজার রুটে ফ্লাইট বন্ধ ছিল। সম্প্রতি যশোর-কক্সবাজার রুটে নভোএয়ার সপ্তাহে একটি ফ্লাইট চালু করেছে।

সূত্র আরও জানায়, ইউএস-বাংলা ও নভোএয়ারের সাতটি ফ্লাইট বন্ধ হয়ে গেছে। বর্তমানে ইউএস-বাংলার সাতটি ফ্লাইটের তিনটি ও নভোএয়ারের পাঁচটির মধ্যে চলাচল করছে দুটি। বেসরকারি এয়ারলাইন্স দুটিতে আগে সর্বনিম্ন ভাড়া চার হাজারের ওপর থাকলেও এখন সেটি সাড়ে তিন হাজারে নেমে এসেছে।

ইউএস-বাংলার সিনিয়র এক্সিকিউটিভ অফিসার রথি শিকদার জানান, পদ্মা সেতু উদ্বোধনের আগে যশোর-ঢাকা রুটে ছয়টি ফ্লাইট, চট্টগ্রাম-কক্সবাজার রুটে আরও তিনটি ফ্লাইট চলাচল করতো। এখন সেটি তিনটিতে নেমে এসেছে। শুধু ঢাকা-যশোর রুটে এ তিনটি ফ্লাইট যাতায়াত করছে।

ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের যশোরের ম্যানেজার সাব্বির হোসেন বলেন, বিমানের যাত্রী কমেছে। তাই ফ্লাইটের সংখ্যাও অর্ধেকে নেমে এসেছে। যশোর-ঢাকা রুটে অন্তত ৪০ শতাংশ যাত্রী কমে গেছে। খুলনার যাত্রী কমেছে অনেক।

নভোএয়ারের যশোরের এক্সিকিউটিভ অফিসার সুমন হালদার জানান, আগে যশোর-ঢাকা রুটে আমাদের চার-পাঁচটি ফ্লাইট যাতায়াত করতো। এখন দুটি ফ্লাইট চালু রয়েছে। পদ্মা সেতুর কারণে যাত্রী অনেক কমেছে। তবে সম্প্রতি যশোর-কক্সবাজার রুটে একটি ফ্লাইট চালু হয়েছে। ভাড়া সাড়ে তিন হাজার টাকায় নিয়ে আসা হয়েছে।

মিলন রহমান/আরএইচ/জেআইএম

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।