বাণিজ্য মেলায় আইসক্রিমে সাড়া নেই ক্রেতাদের

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:০৫ পিএম, ১৮ জানুয়ারি ২০১৯

নেই শীতের খুব একটা প্রকোপ। গরমও নেই। না শীত না গরম অনেকটা এমনই আবহাওয়া বিরাজ করছে রাজধানীতে। এমন আবহাওয়ায় অনেকটা ক্রেতাশূন্য হয়ে পড়েছেন আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলার আইসক্রিম বিক্রেতারা। অবস্থা অনেকটা এমন দাঁড়িয়েছে বিক্রয়কর্মীরা হাক-ডাক দিয়েও ক্রেতাদের আকৃষ্ট করতে পারছের না।

মেলা প্রাঙ্গণ ঘুরে ইগলু, লাভেলো, বেলিসিমো, পোলার, ব্লুপ’র স্টল নিয়ে আইসক্রিম বিক্রি করতে দেখা গেছে। তবে প্রতি স্টলই অনেকটা ক্রেতা শূন্য। ফলে স্টলের দায়িত্বে থাকা বিক্রয়কর্মীরা খোশগল্প করে অথবা অলস বসে থেকে সময় পার করছেন।

বিক্রয়কর্মীরা বলেন, এখন বাংলা মাঘ মাস চলছে। এ সময় সাধারণতা প্রচণ্ড শীত থাকে। তবে এবার ঢাকাতে শীতের তেমন কোনো আঁচ পাওয়া যাচ্ছে না। আবার গরমও পড়ছে না। গরম না পড়ায়ই হয় তো আইসক্রিমের প্রতি ক্রেতাদের আগ্রহ কিছুটা কম। এ ছাড়া মেলায়া ক্রেতা-দর্শনার্থীদের ভিড় এখনো সেভাবে জমেনি।

তারা বলছেন, শীতের সময় সাধারণত আইসক্রিমের চাহিদা কম থাকে। তবে এক শ্রেণির মানুষ আছেন যারা সব সময় আইসক্রিম খেতে পছন্দ করেন। এখন সেই শ্রেণির মানুষেরাই কেবল আইসক্রিম কিনছেন। তবে গরম পড়লেই আইসক্রিমের বিক্রি বহুগুণ বেড়ে যাবে। তখন শিশু, বৃদ্ধ, যুবক সবাই আইসক্রিম খেতে চাইবেন।

মেলার ভিআইপি গেট দিয়ে প্রবেশ করে কিছুটা দক্ষিণ-পশ্চিম দিকে গেলেই চোখে পড়বে পোলার আইসক্রিমের স্টল। এ স্টলটিতে গিয়ে দেখা যায়, দু’জন বিক্রয়কর্মী অলস বসে আছেন। তাদের একজন কাজী মোহাম্মদ বলেন, প্রচণ্ড শীত না থাকলেও কিছুটা শীত ঢাকাতে পড়ছে। শীতের কারণে আইসক্রিমের চাহিদা কিছুটা কম। তাছাড়া মেলায় ক্রেতা-দর্শনার্থী এখনো সেভাবে আসেনি। আর কিছুদিন গেলে মেলা জমে উঠবে। তখন ক্রেতা-দর্শনার্থীর সংখ্য বাড়বে। আর ক্রেতা-দর্শনার্থী বাড়লে আইসক্রিম বিক্রি কিছুটা হলেও বাড়বে।

ice-cream-(2)

তৌফিক ফুড অ্যান্ড অ্যাগ্রো ইন্ডাস্ট্রিজ মেলায় নিয়ে এসেছে লাভেলো আইসক্রিম। মেলার প্রধান ফটক দিয়ে প্রবেশ করে পশ্চিম দিকে অগ্রসর হলেই আইসক্রিমটির স্টল দেখা যাবে। স্টলটিতে বিক্রয়কর্মী হিসেবে রয়েছেন বেশ কয়েকজন। তবে তাদের কর্মব্যস্ততা খুব একটা নেই।

এক প্রকার অলস সময় পার করার বিষয়ে মামুন নামের একজন বলেন, ক্রেতা না থাকায় আমরা কিছুটা অলস সময় পার করছি। তবে সব সময় এমন থাকে না। সন্ধ্যার দিকে ক্রেতা বেশি আসেন। তবে এটা সত্য শীতের মৌসুম হওয়ায় আইসক্রিমের বিক্রি কিছুটা হলেও কম। এরপরও আমরা আশা করছি মেলা ১৫ দিন পার হলেই আইসক্রিমের বিক্রি বেড়ে যাবে। তখন কিছু হলেও গরমের আবহাওয়া চলে আসবে। সেই সঙ্গে মেলায় বাড়বে ক্রেতা-দর্শনার্থী।

ক্রেতাহীন অলস সময় পার করতে দেখা যায় ইগলুর স্টলের বিক্রয়কর্মীদেরও। প্রধান ফটক দিয়ে প্রবেশ করে উত্তরদিক ঘেঁষে পূর্বদিকে অগ্রসর হলে এ স্টলটি দেখা যাবে। স্টলটির ভেতরে সারিবদ্ধভাবে দাঁড়িয়ে অথবা বসে আছেন কয়েকজন বিক্রয়কর্মী। যাদের প্রত্যেকেই একই ধরনের পোশাক পরা। সবার মাথায় ধবধবে সাদা পোশাকে মোড়ানো। স্টলটি তৈরিও করা হয়েছে কিছুটা ব্যতিক্রমভাবে। স্টলটির দিকে তাকালে মনে হবে ছাদ থেকে কার্নিশ বেয়ে ফোঁটায় ফোঁটায় দুধ পড়ছে।

স্টলটিতে কথা হয় ইয়াসমিন নামের এক বিক্রয়কর্মীর সঙ্গে। তিনি বলেন, মেলায় ক্রেতা-দর্শনার্থী কম থাকায় বিক্রি কিছুটা কম। সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত আইসক্রিমের কোনো ক্রেতা থাকে না বললেই চলে। বিকেল ও সন্ধ্যায় কিছু ক্রেতা আসেন।

কাজী ফার্ম মেলায় নিয়ে এসেছে বেলিসিমো আইসক্রিম। গোল্ডেন সার্ভেস্ট নিয়ে এসেছে ব্লুপ আইসক্রিম। এ দু’টি প্রতিষ্ঠানের স্টলে গিয়েও বিক্রয়কর্মীদের অলস সময় পার করতে দেখা গেছে।

এমএএস/এনডিএস/এমকেএইচ