বিনিয়োগকারীদের বিক্ষোভ, থানায় গেল ডিএসই

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৯:০২ পিএম, ২৭ আগস্ট ২০১৯

স্টক এক্সচেঞ্জের সামনে বিনিয়োগকারীদের বিক্ষোভের বিরুদ্ধে প্রতিকার চাইতে মতিঝিল থানার দ্বারস্থ হয়েছে দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই)।

এ বিষয়ে মঙ্গলবার ডিএসইর সিনিয়র এক্সিকিউটিভ (সিকিউরিটি ইনচার্জ) মো. মামুন-উর রশিদ মতিঝিল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন।

জিডিতে বলা হয়েছে, ২৭ আগস্ট আনুমানিক দুপুর ২-৩টা পর্যন্ত বাংলাদেশ পুঁজিবাজার ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারী ঐক্য পরিষদের ব্যানারে ৯-১০ জন লোক ডিএসইর সামনে ব্যানার ও মাইকসহ বিক্ষোভ মিছিল করেন। ফলে ডিএসইর সদস্য, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের যাতায়াত এবং অফিসের স্বাভাবিক কার্যক্রম সম্পাদনে বিঘ্ন ঘটে।

আরও উল্লেখ করা হয়, ডিএসইর সামনে কিছুদিন ধরে তারা এ ধরনের বিক্ষোভ করছে এবং পুঁজিবাজারের নিয়ন্ত্রণকারী সংস্থা ও পুঁজিবাজার সংশ্লিষ্ট সব প্রতিষ্ঠানের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার সম্পর্কে সম্মানহানিকর মন্তব্য করছেন।

ডিএসই মনে করে এ ধরনের কার্যকলাপ দেশি-বিদেশি বিনিয়োগকারীদের বিনিয়োগের সিদ্ধান্ত গ্রহণে নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে এবং বহির্বিশ্বে বাংলাদেশ পুঁজিবাজারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করছে। ফলে বাংলাদেশের পুঁজিবাজারে বিদেশি বিনিয়োগ নিরুৎসাহিত হচ্ছে- বলে সাধারণ ডায়েরিতে উল্লেখ করা হয়।

এতে বলা হয়েছে, ডিএসই দেশের প্রাচীন বৃহৎ পুঁজিবাজার। একটি জাতীয় ও জনস্বার্থমূলক প্রতিষ্ঠান হিসেবে পুঁজিবাজার সংশ্লিষ্ট কার্যক্রমে অংশগ্রহণের উদ্দেশ্যে দৈনিক এখানে হাজারো লোকের আগমন ঘটে।

এ বিষয়ে মামুন-উর রশিদ জাগো নিউজকে বলেন, আমরা স্বেচ্ছায় কিছু করি না। উপরের নির্দেশেই কাজ করি। অফিসের নির্দেশেই জিডি করেছি।

তদন্ত কর্মকর্তা এসআই শফিকুল ইসলাম জাগো নিউজকে বলেন, আজ একটি জিডি করা হয়েছে। তবে অফিসিয়ালি এখনও এটি হাতে পাইনি। হাতে পেলে এ বিষয়ে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া হবে।

বাংলাদেশ পুঁজিবাজার বিনিয়োগকারী ঐক্য পরিষদের সভাপতি মিজানুর রশীদ চৌধুরী বলেন, ডিএসই জিডি করে আমাদের চোখ খুলে দিয়েছে। দুর্বল কোম্পানি তালিকাভুক্তির মাধ্যমে বিনিয়োগকারীদের টাকা হাতিয়ে নেয়ার কারণে বিনিয়োগকারীরা ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের বিরুদ্ধে জোর আন্দোলন করবে। একই সঙ্গে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের বিরুদ্ধে মামলা করবে।

এমএএস/জেএইচ/এমকেএইচ