কোরবানির আগে বাড়ল মাংসের মসলার দাম

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১০:৫৮ এএম, ২৩ জুলাই ২০২০

আর এক সপ্তাহ পরেই উদযাপিত হবে মুসলমানদের দ্বিতীয় বৃহত্তম ধর্মীয় উৎসব ঈদুল আজহা। এই ঈদের আগে রাজধানীর খুচরা বাজারে গত এক সপ্তাহে ১০টি নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বেড়েছে। এর মধ্যে রয়েছে পেঁয়াজ, শুকনা মরিচ, দারুচিনি, লবঙ্গ, ধনিয়া, তেজপাতা, হলুদ, আদা, ছোলা এবং ডিম। সরকারি প্রতিষ্ঠান ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে।

রাজধানীর শাহজাহানপুর, মালিবাগ বাজার, কারওয়ান বাজার, বাদামতলী বাজার, সূত্রাপুর বাজার, শ্যাম বাজার, কচুক্ষেত বাজার, মৌলভী বাজার, মহাখালী বাজার, উত্তরা আজমপুর বাজার, রহমতগঞ্জ বাজার, রামপুরা এবং মীরপুর-১ নম্বর বাজারের পণ্যের দামের তথ্য নিয়ে এই প্রতিবেদন তৈরি করেছে টিসিবি।

গত এক সপ্তাহে যেসব পণ্যের দাম বেড়েছে তার মধ্যে ছোলা বাদে প্রতিটি পণ্যের চাহিদা ঈদের আগে বেশি থাকে। এর মধ্যে গত এক সপ্তাহে সবথেকে বেশি দাম বেড়েছে দারুচিনি ও দেশি পেঁয়াজের। এ দুটি পণ্যই মাংস রান্নার ক্ষেত্রে অপরিহার্য। ছোলা ও ডিম বাদে দাম বাড়া অন্যান্য পণ্যগুলো মাংস রান্নায় ব্যবহৃত হয়।

টিসিবির তথ্য অনুযায়ী, এক সপ্তাহে দারুচিনির দাম বেড়েছে ১৮ দশমিক শূন্য ৭ শতাংশ। বর্তমানে প্রতি কেজি দারুচিনি বিক্রি হচ্ছে ৪৮০ থেকে ৫০০ টাকা, যা এক সপ্তাহ আগে ছিল ৩৮০ থেকে ৪৫০ টাকা। অর্থাৎ সপ্তাহের ব্যবধানে কেজিতে দারুচিনির দাম বেড়েছে একশ টাকা পর্যন্ত।

দেশি পেঁয়াজের দাম গত এক সপ্তাহে ১৩ দশমিক ৩৩ শতাংশ বেড়ে কেজি ৪০ থেকে ৪৫ টাকা বিক্রি হচ্ছে। এক সপ্তাহে আগে দেশি পেঁয়াজের কেজি ছিল ৩৫ থেকে ৪০ টাকা। অর্থাৎ সপ্তাহের ব্যবধানে দেশি পেঁয়াজের দাম কেজিতে বেড়েছে পাঁচ টাকা।
গত এক সপ্তাহে বড় অংকে দাম বাড়ার তালিকায় রয়েছে লবঙ্গ ও ধনিয়া। টিসিবি জানিয়েছে, সপ্তাহের ব্যবধানে লবঙ্গের দাম কেজিতে ১০০ টাকা বেড়ে ৮০০ থেকে ১০০০ টাকা হয়েছে। এক সপ্তাহ আগে লবঙ্গের কেজি ছিল ৭০০ থেকে ৯০০ টাকার মধ্যে। শতকরা হিসেবে লবঙ্গের দাম বেড়েছে ১২ দশমিক ৫০ শতাংশ।

গত এক সপ্তাহে ধনিয়ার দাম বেড়েছে ১২ শতাংশ। এতে পণ্যটির কেজি এখন বিক্রি হচ্ছে ১৩০ থেকে ১৫০ টাকা, যা এক সপ্তাহ আগে ছিল ১০০ থেকে ১৫০ টাকার মধ্যে। মাংস রান্নার আরেক মসলা তেজপাতার দাম ৮ শতাংশ বেড়ে কেজি ১২০ থেকে ১৫০ টাকা হয়েছে।

মাংস রান্নার অপরিহার্য পণ্য আদার দাম বাড়ার প্রবণতাও থেমে নেই। গত এক সপ্তাহে দেশি ও আমদানি করা উভয় ধরনের আদার দাম বেড়েছে। দেশি আদার দাম ৪ দশমিক ৫৫ শতাংশ বেড়ে ১০০ থেকে ১৩০ টাকা হয়েছে। আর আমদানি করা আদার দাম ৭ দশমিক ৪১ শতাংশ বেড়ে ১৩০ থেকে ১৬০ টাকা হয়েছে।

আদার মতো দেশি ও আমদানি উভয় ধরনের শুকনা মরিচের দাম বেড়েছে। টিসিবির তথ্য অনুযায়ী, দেশি শুকনা মরিচের দাম ৪ দশমিক ৬৫ শতাংশ বেড়ে কেজি বিক্রি হচ্ছে ২০০ থেকে ২৫০ টাকা। আর আমদানি করা শুকনা মরিচের দাম ৩ দশমিক ৬৪ শতাংশ বেড়ে থেকে ২৫০ থেকে ৩২০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে।

দাম বাড়ার এ তালিকায় রয়েছে দেশি ও আমদানি করা উভয় ধরনের হলুদও। দেশি হলুদের দাম ৭ দশমিক ৪১ শতাংশ বেড়ে কেজি বিক্রি হচ্ছে ১৪০ থেকে ১৫০ টাকা। আর আমদানি করা হলুদের দাম ৫ দশমিক ৭১ শতাংশ বেড়ে ১৫০ থেকে ২২০ টাকা হয়েছে।

ডিমের দাম সপ্তাহের ব্যবধানে ৪ দশমিক ৪১ শতাংশ বেড়ে হালি বিক্রি হচ্ছে ৩৫ থেকে ৩৬ টাকা। আর ছোলা ৭ দশমিক ৬৯ শতাংশ বেড়ে কেজি বিক্রি হচ্ছে ৬৫ থেকে ৭৫ টাকা।

এমএএস/এসআর/পিআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]