তালাক নোটিশের তিন মাস, কবে হচ্ছে শাকিব-অপুর বিচ্ছেদ?

বিনোদন প্রতিবেদক
বিনোদন প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৪:৫২ পিএম, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

ঢাকাই ছবির জনপ্রিয় জুটি শাকিব খান ও অপু বিশ্বাস। গেল বছর প্রকাশ পায় ২০০৮ সালে তাদের বিয়ে হয় গোপনে। ছেলেসহ লাইভে এসে হাটে হাড়ি ভাঙেন অপু বিশ্বাস। সে থেকেই দুই তারকার সম্পর্কের অবনতি। তারই জের ধরে গত বছরের ২২ নভেম্বর অপুকে তালাক নোটিশ পাঠান শাকিব খান। সেই বিবাহবিচ্ছেদের কাগজের আজ তিন মাস পূর্ণ হলো।

পারিবারিক আইন অধ্যাদেশ, ১৯৬১ অনুযায়ী ‘নোটিশপ্রাপ্তির ৩০ দিনের ভিতর চেয়ারম্যান পক্ষদ্বয়ের মধ্যে পুনর্মিলন স্থাপনের উদ্দেশ্যে একটি সালিশি কাউন্সিল গঠন করিবেন এবং এই কাউন্সিল পুনর্মিলন ঘটাইবার জন্য সমস্ত প্রকার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করিবেন।’ এ আইনের আলোকেই শাকিব ও অপুর বিষয়টি এগোচ্ছে বলে জানিয়েছেন ঢাকা সিটি করপোরেশনের (অঞ্চল-৩) প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা হেমায়েত হোসেন।

তবে তিন মাস পূর্ণ হওয়াতেই শাকিব-অপুর সম্পর্কের ব্যাপারে কোনো সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত নয় বলেও জানালেন হেমায়েত হোসেন। তিনি বলেন, ‘তালাক নোটিশ দেয়ার তিন মাস পর কার্যকর হলেই যে তাদের সব চুকে গেল ব্যাপারটা এমন নয়। আমরা সিটি করপোরেশন তাদের তিন মাসে তিনবার ডাকব, সেই তৃতীয়বার শেষ হবার পর বিষয়টির ফয়সালা হবে। আগামী ১২ মার্চ আমাদের তৃতীয় বৈঠক। সেখানে যদি তারা না আসেন, তাহলে মামলা খারিজ হয়ে যাবে। এখানে তালাক নোটিশের তিন মাস হওয়াটা গুরুত্বপূর্ণ কিছু নয়।’

গত বছরের ডিসেম্বরে অপু বিশ্বাসকে তালাকের নোটিশ পাঠান শাকিব খান। তার প্রেক্ষিতে সিটি করপোরেশন ১৫ জানুয়ারি শাকিব খান ও অপু বিশ্বাসকে হাজির হতে বলে। সেদিন অপু হাজির হলেও শাকিব থাইল্যান্ডে একটি ছবির শুটিংয়ে ব্যস্ত ছিলেন। দ্বিতীয়বার ১২ ফেব্রুয়ারি তাদের ডাকা হলে দুজনেই অনুপস্থিত থাকেন।

এবার আগামী ১২ মার্চ তৃতীয়বারের মতো হাজির দেয়ার নির্দেশ রয়েছে তাদের উপর। সেদিনও যদি কেউ না আসেন তবে বিবাহবিচ্ছেদ কার্যকর হয়ে যাবে।

এলএ/আইআই

বিনোদন, লাইফস্টাইল, তথ্যপ্রযুক্তি, ভ্রমণ, তারুণ্য, ক্যাম্পাস নিয়ে লিখতে পারেন আপনিও - jagofeature@gmail.com

আপনার মতামত লিখুন :