আসছে ঈদেও শাকিবের আধিপত্য, থাকছে অনিয়ম-ঝামেলা

বিনোদন প্রতিবেদক
বিনোদন প্রতিবেদক বিনোদন প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৫:৫৬ পিএম, ০৮ মে ২০১৮

উৎসব ছাড়া আজকাল সিনেমা চলছেই না বলা যায়। পহেলা বৈশাখ, বছরে দুই ঈদকে কেন্দ্র করেই আবর্তিত হয় এখন ঢাকাই সিনেমার উৎসব। গেল কয়েক বছর ধরে নিয়মিত ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে ঈদে শাকিব খানের ছবির আধিপত্য। সেইসঙ্গে যোগ হয়েছে ঈদের সময় কথিত যৌথ প্রযোজনায় কলকাতার নির্মাতা-তারকাদের সিনেমা নিয়ে নানা রকম গোলমান-গ্যাঞ্জামের চিত্র।

এবারেও তার ব্যতিক্রম হচ্ছে না। তিনটি ছবি নিয়ে হাজির হতে যাচ্ছেন শাকিব খান। আর যৌথ প্রযোজনা নিয়ে উপস্থিত থাকছে দ্বন্দ্ব-ঝামেলার গোলমালও। এইসবই এখন এই ইন্ডাস্ট্রির নিয়মিত ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। ঈদের আগের দিনের রাতের আগ পর্যন্ত সেই গোলমাল থামবে বলে মনে হচ্ছে না। আর সেখানে শেষ হাসি কে হাসবে তাও বলা মুশকিল। একটা বিরক্তিকর অনিশ্চয়তা মুখে রয়েছে ঢাকাই সিনেমার রোজা ঈদ।

প্রসঙ্গত, অন্যান্য বছরগুলোতে অনিয়মের সাফটা নিয়ে নানামুখী প্রতিবাদ ও আন্দোলনে সরব ছিলেন শাকিব খান। কিন্তু একটা সময় নিজেই সেই স্রোতে গা ভাসালেন। সাফটা চুক্তিতে তিনি আমদানি হয়েছেন নিজের দেশে! যৌথ প্রযোজনা নিয়েও আন্দোলনে সোচ্চার ছিলেন বর্তমান সময়ের দেশসেরা এই নায়ক। কিন্তু বর্তমানে তিনিই হয়ে উঠেছেন যৌথ প্রযোজনার সেরা তুরুপের তাসটি। বিষয়টি বেশ চমকপ্রদ!

তারচেয়েও মজার একটি ব্যাপার হলো, এই প্রথম কোনো ঈদে নিজের দেশে আমদানি হয়ে আসার অভিজ্ঞতা অর্জনের সম্ভাবনায় রয়েছেন কোনো নায়ক। আর সেই নায়কটিও শাকিব খানই। আর তাকে নিয়েই শুরু হয়েছে আসন্ন ঈদের প্রথম ঝামেলাটি।

শোনা যাচ্ছে ‘ভাইজান এলো রে’ ছবিটি ঈদে মুক্তি দেয়ার পরিকল্পনা রয়েছে। এটি এখন পর্যন্ত কলকাতার এসকে মুভিজের সিনেমা বলেই পরিচিত। ভবিষ্যতে ছবিটিকে যৌথ প্রযোজনার পরিচয় দিতে বাংলাদেশি কোনো হৃদয়বান প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান এগিয়ে না এলে ছবিটি সাফটা চুক্তিতেই আমদানি করা হবে আসছে রোজা ঈদে। সেই ছবির নায়ক হিসেবে বিরল অভিজ্ঞতার মুখোমুখি হতে যাচ্ছেন ঢাকাই সিনেমার ‘খান সাহেব’। তবে, বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির মহাসচিব বদিউল আলম খোকনের বক্তব্য এই ছবিটির জন্য ভাবনার বিষয় বটে। তিনি জাগো নিউজকে জানিয়েছেন, ‘যদি বাংলাদেশি প্রযোজনার কোনো সিনেমা ঈদে মুক্তি পায় তবে সাফটা চুক্তিতে কোনো সিনেমা মুক্তি দেয়া যাবে না। এটা আইন অনুযায়ী নিয়মে নেই।’

এমন অবস্থায় ঈদে ‘ভাইজান এলো রে’ ছবিটি আদৌ মুক্তি পাবে কিনা তা নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে। অবশ্য ছবির পরিচালক জয়দীপ মুখার্জি বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির সদস্য পদ চেয়ে আবেদন করেছেন। তার আবেদনের প্রাসঙ্গিকতা নিয়ে বদিউল আলম খোকন জানিয়েছেন, ‘যেহেতু বাংলাদেশ সরকার চলচ্চিত্রে বিদেশী বিনিয়োগের সুযোগ করে দিয়েছে, ভারতের এসকে মুভিজের কর্ণধার অশোক ধানুকা ট্রেড লাইসেন্সসহ অন্যান্য নিয়ম মেনে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রযোজক সমিতিতে নাম নিবন্ধন করছেন। তিনি পরিচালক হিসেবে বাংলাদেশের পরিচালক না নিলেও বাইরের পরিচালক দিয়ে কাজ করাতে পারেন। সেদিক থেকে জয়দীপ অতিথি সদস্য পদটি পেতে পারেন।’ এইসব কাজগ পত্রাদি হাতে পেয়ে চেষ্টা তদবির করে হয়তো এসকে মুভিজ ‘ভাইজান এলো রে’ ছবিটিকে বাংলাদেশি ছবি হিসেবেই ঢাকায় মুক্তি দিতে পারেন। ছবিটিতে শাকিব ছাড়াও অভিনয় করেছেন শ্রাবন্তী, দীপা খন্দকার, পায়েল সরকারসহ আরও অনেকে।

এছাড়াও ঝামেলা শুরু হয়েছে ‘সুলতান - দ্য সেভিয়ার’ চলচ্চিত্র নিয়েও। সুরিন্দর ফিল্মস, জিৎজ ফিল্মওয়ার্কস ও জাজ মাল্টিমিডিয়ার অর্থায়নে এটি যৌথ প্রযোনার ছবি। ছবিটি বাংলাদেশে প্রচলিত যৌথ প্রযোজনার নিয়ম মানেনি বলে অভিযোগ উঠেছে। বাংলাদেশে যৌথ প্রযোজনার সংশ্লিষ্ট কমিটির অনুমতি পাবার আগেই কেমন করে শেষ হলো ছবির শুটিং আর কেমন করেই বা প্রকাশ হলো ছবির গান? সেই প্রশ্নেরও কোনো সদুত্তর মেলেনি প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানগুলো থেকে। তাই এই ছবিটিও আসন্ন ঈদে মুক্তির বেলাতে অনিশ্চয়তার মুখে রয়েছে। এই ছবিতে প্রথমবারের মতো জুটি বেঁধেছেন জিৎ-মিম।

ঈদে মুক্তির সম্ভাব্য তালিকায় আছে শাকিব খানের আরও একটি ছবি। ‘সুপার হিরো’ নামের সেই ছবিটি নিয়েও ঝামেলা শুরু হয়েছে। আশিকুর রহমান পরিচালিত এই ছবিটি প্রযোজনা করেছে হার্টবিট প্রডাকশন। অভিযোগ উঠেছে, সরকারি অনুমতি (ওয়ার্ক পারমিট) না নিয়ে অস্ট্রেলিয়াতে শুটিং করা হয়েছে। রাজস্ব, ভ্যাট ফাঁকি দিয়ে অবৈধ পথে দেশ হতে টাকা নিয়ে গত ২২ জানুয়ারি ২০১৮ থেকে ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ পর্যন্ত অস্ট্রলিয়াতে শুটিং করেছে ‘সুপার হিরো’। এই ছবিটিকে সেন্সর না দিতে আবেদন করেছেন মেসার্স নিপা এন্টারপ্রাইজের কর্ণধার সেলিনা বেগম।

তবে এই অভিযোগের প্রেক্ষিতে প্রযোজক মুখ না খুললেও ছবির পরিচালক প্রযোজকের মুখপাত্র হিসেবে বলেছেন, ‘তাদের অফিস থেকে সব ধরণের প্রসেস মেনেই অস্ট্রেলিয়াতে শুটিং করা হয়েছে। উনার অফিসের লোকজন সব নিয়ম নীতি মেনেই কাজটি করেছেন। হয়তো বা দুয়েকটা প্রসেসিংয়ে কোনো জটিলতায় একটু লেট হয়ে থাকতে পারে। কিন্তু সবকিছু প্রপারলি করা হয়েছে।’ এই ‘হয়তো’র মধ্যে ঘাপলা যে কিছু রয়ে গেছে সেটাই সন্দেহ করছেন চলচ্চিত্র পাড়ার মানুষ। তাই এই ছবিটির ভবিষ্যত নিয়েও এক কথায় কিছু বলে দেয়া যায় না। আপাতত, মুক্তির সম্ভাবনাতেই রাখতে হচ্ছে। ‘সুপার হিরো’ ছবিতে শাকিব খানের সঙ্গে জুটি বেঁধেছেন বুবলী।

এর বাইরে আসছে ঈদকে ঘিরে প্রস্তুত রয়েছে আরও দুটি ছবি। দুটি ছবিই ঝামেলা-গোলমাল মুক্ত, তাই এদের মুক্তি নিয়েও রয়েছে জোর সম্ভাবনা। সেগুলো হলো জাজ মাল্টিমিডিয়ার প্রযোজিত ‘পেড়ামন ২’। সিয়াম ও পূজা জুটির এই ছবিটি নির্মাণ করেছেন নবাগত পরিচালক রায়হান রাফি। ছবিটি এরইমধ্যে রয়েছে আলোচনার শীর্ষে।

পাশাপাশি মুক্তি পাবে উত্তম আকাশ পরিচালিত ‘চিটাগাইঙ্গা পোয়া, নোয়াখাইল্যা মাইয়া’ ছবিটি। এখানে জুটি বেঁধেছেন শাকিব খান ও বুবলী। উত্তম আকাশ বলেন, ‘আমরা ছবিটির কাজ শেষ করেছি। ঈদ মানেই আনন্দ, গৎবাঁধা ছবির বাইরে একটিন গল্প নিয়ে আমি ছবিটি নির্মাণ করেছি, যা দর্শক পছন্দ করবে। এই ছবিটি আঞ্চলিক ভাষার কমেডি অ্যাকশন ধরনের। আমি মনে করি এই ছবিটি ঈদের আনন্দ আরো বাড়িয়ে দেবে।’

তবে চলচ্চিত্র পাড়ার মানুষ ও সাধারণ দর্শকের দাবি- ভালো মান ও রুচির সিনেমা চান তারা। যা ঈদের উৎসবে বিনোদিত করবে, আনন্দকে বাড়তি মাত্রা দেবে। বিশ্বের যে কোনো দেশের নির্মাতা-শিল্পী ও সিনেমা আসতে পারে। তবে সেটা যেন কখনোই দেশে প্রচলিত নিয়মকে অপমান না করে। দেশীয় সিনেমাকে হুমকিতে না ফেলে দেয়।

এলএ/এমএস

বিনোদন, লাইফস্টাইল, তথ্যপ্রযুক্তি, ভ্রমণ, তারুণ্য, ক্যাম্পাস নিয়ে লিখতে পারেন আপনিও - jagofeature@gmail.com

আপনার মতামত লিখুন :