সবচেয়ে ছোট পাইলট ৫ মাসে ঘুরলেন ৩০ দেশ

ফিচার ডেস্ক
ফিচার ডেস্ক ফিচার ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৩:৪৩ পিএম, ২৪ জানুয়ারি ২০২২

বয়স মাত্র ১৮ পেরিয়েছে। এরই মধ্যে ঘুরে ফেলেছেন ৩০ দেশ। নিজেই ছিলেন চালকের আসনে। স্থল পথে নয়। আকাশ পথেই এই যাত্রা শেষ করেছেন জারা রাদারফোর্ড।

আঠারো বছর বয়সেই অহরহ বিরাট দুঃসাহসেরা দেয় যে উঁকি। এ বয়সে প্রাণ তীব্র আর প্রখর, এ বয়সে কানে আসে কত মন্ত্রণা। আঠারো বছর বয়স যে দুর্বার, পথে প্রান্তরে ছোটায় বহু তুফান। তা আবারো প্রমাণ করলেন জারা রাদারফোর্ড। গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে তাকে সর্বকনিষ্ঠ পাইলটের স্বীকৃতি দিয়েছে।

৩২৫ কিলোগ্রামের এক প্রপেলার বিশিষ্ট প্লেন চালিয়ে পাঁচ মাসে বিশ্বভ্রমণ সারলেন সদ্য উনিশে পা দেওয়া জারা রাদারফোর্ড। অর্জন করলেন বিশ্বভ্রমণ করা সর্বকনিষ্ঠ পাইলটের উপাধি। পাইলট অভিভাবকের কাছে বড় হয়ে ওঠা জারা আকাশে উড়ে বেড়ানোকেই করেছেন জীবনের ধ্যান ও জ্ঞান। ব্রিটেন এবং বেলজিয়ামের দ্বৈত নাগরিকত্ব আছে তার।

jagonews24

২০২১-এর ১৮ আগস্ট যাত্রা শুরু করেন জারা। গত ২০ জানুয়ারি বেলজিয়ামের কোরত্রে শহরের মাটি ছোঁয় তার বিমানের চাকা।এখানেই শেষ হয় জারার বিশ্বভ্রমণ। স্পনসরশিপের শর্ত অনুযায়ী রাতের অন্ধকারে বিমানচালনা থেকে তিনি বিরত থাকেন।

জারার বিমান ৩০টি দেশ পেরোলেও সাইবেরিয়ার বরফে ঢাকা অঞ্চলের উপরের আকাশই ছিল তার যাত্রাপথের দুর্গমতম রাস্তা। মাইনাস ২২ ডিগ্রি তাপমাত্রায় বিমান চালানোর সেই চ্যালেঞ্জকেও অতিক্রম করেছেন দুঃসাহসী জারা।

jagonews24

এছাড়াও নানান বাধার সম্মুখীন হতে হয়েছে জারাকে। প্রথমত ভিসার সমস্যায় পড়েছিলেন। পুরো ভ্রমণে তার হয়তো তিন মাস লাগতে পারে। এটি ভেবেই তিনমাসের ভিসার আবেদন করেন। তবে শুরুতে সব জায়গা থেকে ভিসা পাচ্ছিলেন না। পথের আবহাওয়া এবং ভিসা সংক্রান্ত সমস্যার কারণেই তার ভ্রমণের সময় লেগেছে ১৯৯ দিন।

ক্যালিফোর্নিয়ার সিয়াটলে দাবানলের কারণে তাকে পরিকল্পনার বাইরে গিয়ে অবতরণ করতে হয়। চীনের উপর দিয়ে উড়ে যাওয়ার অনুমতিও বাতিল হওয়ায় রাশিয়া এবং আলাস্কার ভ্রমণ বিলম্বিত হয়। সেই সঙ্গে খারাপ আবহাওয়ার সঙ্গে লড়াই করতে হয়েছে প্রায় সময়।

jagonews24

মাত্র ১৪ বছর বয়সে তিনি প্লেন উড়ানোর দক্ষতা অর্জন করেন। তবে ২০২০ সালে এসে তিনি তার লাইসেন্স হাতে পান। এরপর আর সময় নষ্ট করেন নি। এতো দিনের স্বপ্ন বাস্তবায়নে লেগে পড়েন। পাখির চোখে বিশ্বকে দেখার লোভ বেশিদিন আর সংবরণ করতে পারেননি বিশ্বের সর্বকনিষ্ঠ এই পাইলট। আপাতত এক সপ্তাহের বিশ্রাম। এরপর আবার দুর্গম কোনো যাত্রাপথে পাড়ি দেওয়ার প্রস্তুতি নেবেন তিনি।

সূত্র: গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস

কেএসকে/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]