গবেষণা ও প্রশিক্ষণ : অধ্যাপক ড. ললিত মোহন নাথ


প্রকাশিত: ০৬:৩৭ এএম, ১৮ এপ্রিল ২০১৭

গবেষণা ও প্রশিক্ষণ ক্ষেত্রে অসামান্য অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ প্রয়াত অধ্যাপক ড. ললিত মোহন নাথকে স্বাধীনতা পুরস্কার (মরণোত্তর) ২০১৭ প্রদান করা হয়। তাঁকে নিয়ে আজকের আয়োজন-

ললিত মোহন নাথ ১৯৩৫ সালের ০১ নভেম্বর চট্টগ্রাম জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। তিনি চট্টগ্রামের হাবিলাস দ্বীপ উচ্চ ইংরেজি বিদ্যালয় থেকে কৃতিত্বের সঙ্গে মাধ্যমিক এবং কানুনগো পাড়া, স্যার আশুতোষ কলেজ থেকে মেধা তালিকায় চতুর্থ স্থান অধিকার করে উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। পরে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পদার্থবিদ্যায় প্রথম শ্রেণিতে প্রথম স্থান অধিকার করে স্নাতক এবং একই বিষয়ে প্রথম শ্রেণিতে দ্বিতীয় স্থান অধিকার করে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন। পরবর্তী সময়ে তিনি কলম্বো প্ল্যান স্কলারশিপে যুক্তরাজ্যের এডিনবার্গ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেন।

ড. ললিত মোহন নাথ আণবিক শক্তি কেন্দ্রের ঊর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা হিসেবে ১৯৬৪ সালে কর্মজীবন শুরু করেন। ১৯৬৭ থেকে ১৯৭১ সাল পর্যন্ত তিনি যুক্তরাষ্ট্রের পারডিউ ও ফ্লোরিডা বিশ্ববিদ্যালয় এবং কানাডার ওয়েস্টার্ন ওন্টারিও বিশ্ববিদ্যালয়ে গবেষণাকর্মে নিয়োজিত ছিলেন। দেশে ফিরে এসে ১৯৭২ সালে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিজ্ঞান বিভাগে সহযোগী অধ্যাপক হিসেবে যোগদান করেন এবং পরবর্তীকালে বিভাগীয় প্রধান, গবেষক ও একজন জনপ্রিয় শিক্ষক হিসেবে সুনাম অর্জন করেন।

prize

গবেষক হিসেবে ড. ললিত মোহন নাথ ছিলেন আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন। বিভিন্ন অান্তর্জাতিক জার্নালে তাঁর গবেষণাকর্ম প্রকাশিত হয়। ড. নাথের পিএইচডির গবেষণার বিষয়বস্তু ‘ইলেক্ট্রম্যাগনেটিক ইনটার্যাকশনস অব চার্জড ফিল্ডস উইথ স্পিন্স ওয়ান অ্যান্ড টু’ নিউক্লিয়ার ফিজিক্স জার্নালে প্রকাশিত হলে বিজ্ঞানজগতে তা আলোড়ন সৃষ্টি করে। তাঁর গবেষণাতত্ত্ব বিভিন্ন দেশে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে পাঠ্যভুক্ত হয়।

যুক্তরাজ্যে থাকা অবস্থায় ড. ললিত মোহন নাথ আর্থিক সহায়তা প্রদানের মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধের পৃষ্ঠপোষকতায় সম্পৃক্ত হন।

পদার্থবিজ্ঞানে গবেষণা ও শিক্ষা ক্ষেত্রে বিশেষ অবদানের জন্য ড. ললিত মোহন নাথ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃক ‘রাজ্জাক-শামসুন লাইফ-টাইম অ্যাচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ড ইন ফিজিক্স ২০১১’- এ ভূষিত হন। কীর্তিমান এই গবেষক ও শিক্ষক ২০১৬ সালের ০২ জুলাই পরলোক গমন করেন।

এসইউ/পিআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]