ডা. রুমিকে দিয়ে ঢামেকে টিকাদান শুরু

ঢামেক প্রতিবেদক
ঢামেক প্রতিবেদক ঢামেক প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১০:৩৬ এএম, ২৮ জানুয়ারি ২০২১

ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে করোনাভাইরাসের প্রথম টিকা নিয়েছেন হাসপাতালটির ইএনটি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ডা. শেখ নুরুল ফাত্তাহ রুমি। বৃহস্পতিবার (২৮ জানুয়ারি) সকাল সাড়ে ৯টার দিকে তিনি টিকা নেন।

ঢামেক হাসপাতালের জরুরি বিভাগ সংলগ্ন আন্ডারগ্রাউন্ডে তৈরি করা বুথে টিকাদান কর্মসূচি শুরু হয়েছে। ডা. রুমির পর ঢামেক হাসপাতালের ইনডোর অফিসার ডা. ইসমেহান আশরাফ দ্বিতীয় টিকা নেন। তৃতীয় টিকা নেন মেডিসিন বিভাগের রেজিস্ট্রার ডা. ফরহাদ উদ্দিন হাসান চৌধুরী, চতুর্থ টিকা নেন মেডিসিন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. মুরাদ হোসেন ও পঞ্চম টিকা নেন ঢামেকের ১০৩ নম্বর ওয়ার্ডের ইনচার্জ অফিসার হাসান তারেক।

টিকা নেয়ার পর অধ্যাপক ডা. শেখ নুরুল ফাত্তাহ রুমি বলেন, অনেক উন্নত দেশের আগে বাংলাদেশ টিকা আনতে পেরেছে। আমার খুব ভালো লাগছে। আপনারা সবাই টিকা নেবেন। আমি আজ টিকা গ্রহণ করেছি যাতে করে আমাদের অন্যান্য ডাক্তার, নার্স ও সাধারণ জনগণ ঢামেকে করোনা টিকা নিতে উৎসাহিত হন।

এই সময় উপস্থিত স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা.নাসিমা সুলতানা বলেন,গতকাল (বুধবার) আমাদের টিকাদান কর্মসূচি শুরু হয়। প্রথম পাঁচজনের মধ্যে আমিও একজন ছিলাম। আমি টিকা গ্রহণ করেছি। আমি নিজকে সৌভাগ্যবান মনে করছি। আমার কোনো অসুবিধা হয়নি। আপনারাও টিকা গ্রহণ করুন।

তিনি আরও বলেন, আমার ভ্যাকসিন নেয়ার উদ্দেশ্য হচ্ছে কেউ যেন ভয় না পান। টিকা নেয়ার পরে আমার কোনোরকম পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হয়নি এবং কোনো ব্যথা হয়নি। গত রাতেও কোনো সমস্যা হয়নি। আপনারা দেখতে পাচ্ছেন আমি খুব সুস্থভাবে এখানে এসেছি। টিকা নিয়ে কোনো অপপ্রচারে আপনারা কান দেবেন না। এতে কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল নাজমুল হক বলেন, আজ আমাদের ১২০টি টিকা রয়েছে। চারটি বুথে আমরা দুপুর দুইটা পর্যন্ত এই টিকাদান কার্যক্রম চলমান রাখবো। আপনারা সবাই নিবন্ধন করবেন। নিবন্ধনের সিরিয়াল অনুযায়ী আমরা টিকা প্রয়োগ করবো।

এর আগে গতকাল বুধবার বিকেল সাড়ে ৩টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশে করোনা টিকা কার্যক্রম উদ্বোধন করেন। প্রধানমন্ত্রীর উদ্বোধনের সঙ্গে সঙ্গে রাজধানীর কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে পাঁচজনকে টিকা দেয়া হয়। প্রথম টিকা নেন কুর্মিটোলা হাসপাতালের নার্স রুনু বেরোনিকা কস্তা।

গতকাল রুনু ছাড়া টিকা নিয়েছেন- চিকিৎসক আহমেদ লুৎফুল মোবেন, স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা, ট্রাফিক পুলিশের মতিঝিল বিভাগের কর্মকর্তা দিদারুল ইসলাম ও ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এম ইমরান হামিদ। সবমিলিয়ে কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে বিভিন্ন পেশার মোট ২৬ জনকে ভ্যাকসিন দেয়া হয়।

এছাড়া বৃহস্পতিবার সকালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) করোনাভাইরাসের টিকাদান কর্মসূচি শুরু হয়েছে। প্রথম টিকা নিয়েছেন বিএসএমএমইউ উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া।

এমএইচআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]