মিনি স্কার্ট পরে ভিডিও দেয়ায় তোলপাড় সৌদি আরবে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৭:২১ এএম, ১৮ জুলাই ২০১৭

এক তরুণী মডেলের মিনি স্কার্ট পরে জনসমক্ষে ঘুরে বেড়ানোর একটি ভিডিও ঘিরে ব্যাপক তোলপাড় শুরু হয়েছে সৌদি অারবে। দেশটির এক তরুণী মিনি স্কার্ট পরে জনসমাগমস্থলে চলাচলের একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম টুইটারে পোস্ট করায় তা তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। 

খুলুদ নামের ওই মডেল উসাইকির এলাকার ঐতিহাসিক একটি দূর্গের ভেতরে হাঁটার ভিডিও শেয়ার করেছিলেন টুইটারে। ভিডিওটি শেয়ারের পরপরই সামাজিক যোগাযাগমাধ্যমে ব্যাপক বিতর্ক শুরু হয়। রক্ষণশীল মুসলিম দেশ সৌদি আরবে পোশাকের বিধি-বিধান লঙ্ঘনের দায়ে অনেকেই তাকে গ্রেফতারের দাবি জানায়। 

তবে অনেকে তার সাহসের প্রশংসা করে পাশে দাঁড়িয়েছেন। সৌদি আরবে হেডস্কার্ফের সঙ্গে নারীদের ঢিলে-ঢালা পোশাক পরার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। নারীদের দীর্ঘ এই পোশাক ‘আবায়া’ নামে পরিচিত। দেশটিতে নারীদের গাড়ি চালানো এবং অনাত্মীয় পুরুষের সঙ্গে মেলামেশা নিষিদ্ধ। 

saudi

ভিডিওতে দেখা যায়, রাজধানী রিয়াদ থেকে ১৫৫ কিলোমিটার (৯৬ মাইল) দূরের উশায়কির হেরিটেজ গ্রামের একটি দূর্গের ভেতরে জনশূন্য রাস্তায় হাঁটছেন খুলুদ। 

উশায়কির ঐতিহাসিক এই স্থাপনা নাজদ প্রদেশে অবস্থিত। দেশটির সবচেয়ে রক্ষণশীল প্রদেশগুলোর একটি এই নাজদ। ১৮ শতাব্দির শেষের দিকে নাজদ প্রদেশেই সুন্নি মতাবলম্বী ও ওয়াহাবিজম মতাদর্শের প্রবক্তা জন্মগ্রহণ করেছিলেন। সৌদি রাজ পরিবার সুন্নি ইসলামের চর্চা করে আসছে। 

মডেল খুলুদের ওই ভিডিও শেয়ারের কিছুক্ষণের মধ্যেই তা সরিয়ে দেয় সৌদি কর্তৃপক্ষ। তার ওই ভিডিওর নিচে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা যায়। অনেকেই বলছেন, খুলুদের শাস্তি হওয়া উচিত। তবে কেউ কেউ বলছেন, তিনি যে ধরনের পোশাক পরতে চান; তাতে বাধা দেয়া অনুচিত। 

খালেদ জিদান নামের এক সাংবাদিক লিখেছেন, এখানে হায়া (ধর্মীয় পুলিশ) পুলিশকে ফিরিয়ে আনা প্রয়োজন। 

সূত্র : বিবিসি। 

এসআইএস/পিআর