দুই পুলিশকে বাঁচিয়ে অর্ধ কোটি টাকা পেলেন গৃহহীন ‘ট্রলি ম্যান’

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৯:৪৭ পিএম, ১২ নভেম্বর ২০১৮

অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্নের ব্যস্ত একটি সড়কের পাশে ছুরিকাঘাতে একজন খুন ও দুজন আহত হয়েছেন। ছুরিকাঘাতের এ ঘটনায় এগিয়ে আসা দুই পুলিশ কর্মকর্তার ওপরও হামলা চালান হাসান খালিফ আলী নামের কালো পাঞ্জাবি পরিহিত এক যুবক। শুক্রবারের এ ঘটনায় এক ব্যক্তি ওই দুই পুলিশ কর্মকর্তাকে বাঁচিয়ে ইতোমধ্যে বীরের খেতাবে ভূষিত হয়েছেন।

শুধু তাই নয়, ছিন্নমূল ওই ব্যক্তির জন্য দু'হাত প্রসারিত করে এগিয়ে এসেছেন অনেক মানুষ। শুক্রবার মেলবোর্নের ওই হামলার একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়ে ছড়িয়ে পড়েছে।

এতে দেখা যায়, মেলবোর্নের ওই ক্যাফের পাশে জ্বলছে একটি গাড়ি। পথচারীদের পাশাপাশি পুলিশকেও ছুরি দিয়ে আঘাত হানার চেষ্টা করছে হামলাকারী। অনেক চেষ্টা করেও তাকে নিরস্ত্র করতে পারছেন না পুলিশ সদস্যরা। ভয়ঙ্কর এই দৃশ্যের মাঝে হঠাৎ এক ব্যক্তি শপিং ট্রলি হাতে এগিয়ে আসেন। শপিং ট্রলি নিয়ে তিনি ওই হামলাকারীকে পাল্টা আঘাতের চেষ্টা চালাতে শুরু করেন।

মেলবোর্নের সন্ত্রাসী এই হামলায় মাইকেল রজার্স নামে ওই ব্যক্তির লড়াইয়ের ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়তেই বীরের মর্যাদা পাচ্ছেন। ইতোমধ্যে ‘ট্রলিম্যান’ খেতাব দেয়া হয়েছে তাকে। ৪৬ বছর বয়সী গৃহহীন এই ব্যক্তির জন্য অর্থ তহবিল গঠন করতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে একটি সাহায্যের আবেদন জানানো হয়।

jagonews

‘গোফান্ডমি’ নামের ওই তহবিলে সোমবার পর্যন্ত ৪৫ হাজার অস্ট্রেলিয়ান ডলারের (বাংলাদেশি প্রায় ২৪ লাখ টাকা) লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হলেও ইতোমধ্যে তা ছাড়িয়ে গেছে। এখন পর্যন্ত ৫২ লাখ টাকারও বেশি ওই তহবিলে জমা পড়েছে। যা লক্ষ্যমাত্রার প্রায় দ্বিগুণ। সহায়তায় এগিয়ে এসেছেন ৩ হাজার ৭০০ জনেরও বেশি মানুষ।

দেশটির সংবাদমাধ্যম দ্য নিউজ অস্ট্রেলিয়াকে রজার্স বলেন, ঘটনার আকস্মিকতায় আমি খুবই ভয় পেয়েছিলাম। কিন্তু সামনে এগোতেই একটি শপিং ট্রলি দেখতে পাই। পরে ওই ট্রলি দিয়ে হামলাকারীকে আঘাত হানার চেষ্টা করি। বেশ কয়েকবার ট্রলি দিয়ে হামলাকারীকে আঘাত করার চেষ্টা করলেও তাকে থামাতে পারিনি।

এ সময় ব্যস্ত ওই সড়কের অনেক পথচারী ভিডিও ধারণ করে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে শেয়ার করেন। ভিডিও মুহূর্তের মধ্যে ভাইরাল হয়ে যায়। এদিকে, পুলিশ সদস্যদের বাঁচাতে এগিয়ে আসার জন্য দেশটির পুলিশ বাহিনীর পক্ষ থেকে রজার্সকে ধন্যবাদ জানানো হয়েছে।

এসআইএস/আরআইপি