রাখাইনে হবে আরাকান আর্মির সদর দফতর

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৫:৫৭ পিএম, ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

মিয়ানমারের সংঘাতকবলিত রাখাইন প্রদেশে সম্প্রতি সেনাবাহিনী যে সহিংসতা শুরু করেছে তার প্রেক্ষিতে রাখাইনের বিচ্ছিন্নতাবাদী সশস্ত্রগোষ্ঠী আরাকান আর্মি (এএ) উত্তর রাখাইনে সদর দফতর স্থাপন করার ঘোষণা দিয়েছে। গোষ্ঠীটির প্রধান মেজর জেনারেল তুন মিয়াত নাইং এক ভিডিও বার্তায় এ তথ্য জানান।

মিয়ানমারের সংবাদমাধ্যম দৈনিক ইরাবতির এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, আরাকান আর্মি খুব শিগগিরই রাখাইনে তাদের একটি অস্থায়ী সদর দফতর নির্মাণের কাজ শুরু করবে। রাখাইনের জনমানুষের উদ্দেশে সশস্ত্র গোষ্ঠীটির প্রধান তুন মিয়াত এক ভাষণ দেন। গত ১০ ফেব্রুয়ারি আরাকানিজ ভাষায় তিনি ওই ভাষণ দেন।

আরাকান আর্মির প্রধান মেজর জেনারেল তুন মিয়াত নাইং ওই ভিডিও বার্তার মাধ্যমে রাখাইনের বাইরে যেসব আরাকান নাগরিক বসবাস করছেন তাদের রাখাইনে ফিরে আসার আহ্বান জানান। তিনি বলেন, রাখাইনের মানুষ এই অঞ্চলে একটি নতুন ইতিহাস তৈরি করতে যাচ্ছে। সেখানে সবার অংশগ্রহণ জরুরি।

আরাকান আর্মি রাখাইনে নতুন করে শুরু হওয়া সহিংসতার প্রেক্ষিতে চলতি মাসে দুটি ভিডিও বার্তা প্রচার করল। গত সপ্তাহে সশস্ত্র গোষ্ঠীটির উপ-প্রধান ব্রিগেডিয়ার জেনারেল নিয়ো তুন অং একটি ভিডিও প্রকাশ করেন। তার ওই ভিডিও বার্তাতেও রাখাইনের জনগণকে স্বাধীনতার এ আন্দোলনে শরিক হওয়ার আহ্বান করা হয়।

আরাকান আর্মির প্রধান মেজর জেনারেল তুন মিয়াত নাইং ওই ভিডিও বার্তায় বলেন, ‘আমি সম্পূর্ণ বিশ্বাস আছে যে রাখাইনের জনগণ ও আরাকান আমি কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে স্বাধীনতার এ সংগ্রাম করবে। কেননা আমরা বারবার বলছি যে, সেনাবাহিনী সমগ্র রাখাইনের মানুষের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছে।’

নৃতাত্ত্বিক সশস্ত্র গোষ্ঠীদের নিয়ে গবেষণা করা ইউ মং মং সোয়ে বলেন, ‘প্রতিষ্ঠার পর থেকেই আরাকান আর্মি রাখাইনে একটি শক্ত ঘাঁটি স্থাপনের চেষ্টা করছে। সম্ভবত তারা সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে বেশ কিছু হামলা চালাবে। তাছাড়া ২০২০ সালে মিয়ানমারের আসন্ন নির্বাচনে দেশটির রাজনীতিতে প্রবেশের আকাঙ্খা থেকেই সদর দফতর স্থাপন করছে তারা।’

এসএ/এমকেএইচ

আপনার মতামত লিখুন :