সৌদিতে দুই ভারতীয় নাগরিকের শিরশ্ছেদ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৪:৩৯ পিএম, ১৭ এপ্রিল ২০১৯

ডাকাতির টাকা ভাগ-বাটোয়ারা নিয়ে বিতর্কের জেরে নিজ দেশের এক নাগরিককে হত্যার দায়ে অভিযুক্ত দুই ভারতীয় প্রবাসীর শিরশ্ছেদ করেছে সৌদি আরব। গত ২৮ ফেব্রুয়ারি তাদের শিরশ্ছেদ করা হলেও রিয়াদে অবস্থিত ভারতীয় দূতাবাসকে এ নিয়ে কিছুই জানায়নি সৌদি কর্তৃপক্ষ।

বুধবার ভারতীয় ইংরেজি দৈনিক টাইমস অব ইন্ডিয়া এক প্রতিবেদনে বলছে, সৌদি আরবে আদিম পদ্ধতিতে দেয়া ওই প্রাণদণ্ডের শিকার দুই ভারতীয় নাগরিক হলেন সতিন্ডর কুমার এবং হারজিত সিং। তারা দু’জনই ভারতের পাঞ্জাব প্রদেশের বাসিন্দা।

রিয়াদে অবস্থিত ভারতীয় দূতাবাস বলছে, দুই ভারতীয় নাগরিককে শিরশ্ছেদ করার আগে তাদের কিছু জানায়নি সৌদি কর্তৃপক্ষ। শিরেশ্ছেদের পর তাদের মরদেহ পরিবারের কাছে ফেরত পাঠানো হয়নি।

অভিযুক্ত দুই ব্যক্তি ইমান উদ্দিন নামে আরেক ভারতীয় মুসলিমকে হত্যা করেছিল। ডাকাতির কিছু টাকা ভাগাভাগি নিয়ে বিবাদ বাধলেঅভিযুক্ত এ দুই ভারতীয় ইমান উদ্দিনকে খুন করেন।

এ ঘটনার কিছুদিন পর মদ্যপান ও বিবাদের জেরে গ্রেফতার হন তারা। কিন্তু তাদেরকে দেশে ফেরত পাঠানোর প্রক্রিয়া যখন প্রায় শেষ, তখন জানা যায় ইমান উদ্দিন নামের ওই ব্যক্তির হত্যাকারী তারা দু’জন।

হত্যার ঘটনায় জড়িত থাকার প্রমাণ পাওয়ার পর তাদের বিচারের মুখোমুখি করার জন্য রিয়াদের কারাগারে প্রেরণ করা হয়। সেখানেই সবার অজান্তে তাদের শিরশ্ছেদ করা হয়েছে; যা ভারত কিংবা তাদের পরিবারের কেউই জানতে পারেনি।

সম্প্রতি ওই ঘটনা ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানতে পারে; যখন সতিন্ডর কুমারের স্ত্রী তাদেরকে বিষয়টি সম্পর্কে অবহিত করে। তারপর পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এ নিয়ে তাদের প্রতিক্রিয়া জানায়।

গত সোমবার সতিন্ডরের স্ত্রী সীমা রাও এ নিয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে একটি চিঠি দেন। তার ওই চিঠি থেকে জানা যায়, ইমান উদ্দিনকে হত্যার অভিযোগে ২০১৫ সালের ৯ ডিসেম্বর তাদের গ্রেফতার করে সৌদি কর্তৃপক্ষ।

ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলছে, ‘রিয়াদের কারাগারে প্রেরণ করার পর তারা ইমান উদ্দিনকে হত্যার কথা স্বীকার করে। ২০১৭ সালের ৩ মে মামলার শুনানি হয়; যেখানে দূতাবাসের একজন কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন। কিন্তু শিরশ্ছেদ করার সময় সৌদি কর্তৃপক্ষ কিছু জানায়নি।’

এসএ/পিআর

আপনার মতামত লিখুন :