জাকির নায়েকবিরোধী সমাবেশ বাতিল করলেন আনোয়ার ইব্রাহিম

আহমাদুল কবির
আহমাদুল কবির আহমাদুল কবির , মালয়েশিয়া প্রতিনিধি মালয়েশিয়া
প্রকাশিত: ০৫:১১ পিএম, ২৪ আগস্ট ২০১৯

মুসলিম বক্তা জাকির নায়েকের বিরুদ্ধে প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে মালয়েশিয়ায়। ভারতীয় বংশোদ্ভূত মালয়েশিয়ানরা ২৪ আগস্ট দেশটির কুয়ালালামপুরের লিটল ইন্ডিয়া ব্রিকফ্রিল্ডে সমাবেশের ডাক দিয়েছিলেন। সমাবেশের কারণে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটতে পারে এমন শঙ্কায় ছিল কর্তৃপক্ষ।

এ পরিস্থিতিতে বিবৃতি দিয়েছেন সরকারি জোটের অন্যতম শরিক পিকেআরের সভাপতি ও হবু প্রধানমন্ত্রী আনোয়ার ইব্রাহিম। তিনি জাকিরবিরোধী সমাবেশের আয়োজকদের আহ্বান জানিয়েছেন, যেন এটি বাতিল করা হয়। বিবৃতির কয়েক ঘণ্টার মধ্যে আয়োজকরা সমাবেশ বাতিলের ঘোষণা দেন।

আয়োজক শংকর গনেশ সমাবেশের কয়েক ঘণ্টা আগে ফেসবুক লাইভে এসে সেটি বাতিলের ঘোষণা দেন এবং বলেন, আনোয়ার ইব্রাহিম বিষয়টি দেখবেন বলে আশ্বাস দেয়ায় তারা সমাবেশ বাতিল করছেন। জাকির নায়েকবিরোধি সমাবেশকে ঘিরে শুক্রবার থেকে ব্রিকফিল্ড লিটল ইন্ডিয়া এলাকায় পুলিশি টহল জোদার ছিল। এলাকার রাস্তাগুলো মূলত বন্ধ ছিল, তবে এরপর আবার চলাচলের জন্য খুলে দেয়া হয়েছে।

এদিকে শনিবার লিটল ইন্ডিয়া ওয়াটার ফাউন্টেনে সাক্ষাৎকালে কেএল সিটি পুলিশ প্রধান কমটুক দাতুক সেরি মাজলান লাজিম সাংবাদিকদের বলেন, উদ্দেশ্যমূলকভাবে সমাবেশ করে দেশে অশান্তি সৃষ্টি করার প্রয়োজন নেই। তিনি জনগণকে পরিকল্পিত সমাবেশে অংশ না নেওয়ার জন্য ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

এদিকে জাকির নায়েকের বিরুদ্ধে বর্ণবাদের অভিযোগও উঠেছে। এ ঘটনায় পুলিশি তদন্ত চলছে। অভিযোগের সত্যতা মিললে তার মালয়েশিয়ায় বসবাসের অনুমতি বাতিল করা হতে পারে। ইতোমধ্যে তাকে মালয়েশিয়ায় যেকোনো ধরনের সমাবেশেও বক্তব্য নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

মুসলিম বক্তা জাকির নায়েককে এখনই ভারতে ফেরত পাঠাবে না মালয়েশিয়া। এমন সিদ্ধান্ত জানিয়েছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী ড. মাহাথির মোহাম্মদ। প্রধানমন্ত্রীর এমন অবস্থানের জন্য মালয়েশিয়ান ইসলামিক রাজনৈতিক দলের সভাপতি দাতুক সেরি আবদুল হাদি আভাং প্রশংসা করেছেন।

জাকির নায়েকের বিষয়ে তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী অনুভূতির ভিত্তিতে নয়, তথ্যের ভিত্তিতে বুদ্ধিমান সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। দলটির নেতা হাদি জাকির নায়েকের বিষয়টি নিয়ে উদ্বিগ্ন ছিলেন।

Malesia

২২ আগস্ট পুত্রজায়ায় এক সংবাদ সম্মেলনে মাহাথির মোহাম্মদ বলেন, জাকির নায়েক মালয়েশিয়ায় থাকবে। এখন পর্যন্ত আমি আমার অবস্থান বদলাইনি। জাকির নায়েককে তার দেশে ফেরত পাঠানো হবে কিনা সে বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে এমন মন্তব্য করেন মাহাথির মোহাম্মদ।

প্রায় তিন বছর ধরে মালয়েশিয়ায় বসবাস করছেন জাকির নায়েক। সেখানে তাকে স্থায়ী নাগরিকত্ব দেয়া হয়েছে। তবে সাম্প্রতিক সময়ে নিজের বক্তব্যের কারণে তাকে মালয়েশিয়া থেকে ভারতে ফেরত পাঠানোর দাবি উঠেছে।

অর্থপাচারের সঙ্গে জড়িত এবং জাতিগত বিদ্বেষ ছড়িয়েছেন বলে জাকির নায়েকের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়েছে। সম্প্রতি তার বিরুদ্ধে ১১৫টি অভিযোগ করা হয়েছে।

সংখ্যালঘুদের নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করে সমালোচনার মুখে পড়েছেন জাকির নায়েক। তবে তিনি দাবি করেছেন যে, তার বক্তব্যকে ভুলভাবে ব্যাখ্যা করা হয়েছে।

এ পর্যন্ত বেশ কয়েকবার তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে মালয়েশিয়ার ফেডারেল পুলিশ। ২২ আগস্ট কুয়ালামপুরে ফেডারেল পুলিশ সদর দফতরে তাকে তৃতীয়বারের মতো জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

এদিকে ভারতের এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট ইসলামি বক্তা জাকির নায়েকের বিরুদ্ধে ইন্টারপোলের রেড নোটিশ জারির উদ্যোগ নিতে যাচ্ছে।

২০১৬ সাল থেকে অর্থপাচার মামলা ও জঙ্গিবাদে উসকানির অভিযোগে ভারতীয় কর্তৃপক্ষ তাকে গ্রেফতার করতে চাচ্ছে। কিন্তু তিন বছর ধরে তিনি মালয়েশিয়ায় অবস্থান করছেন। ভারতীয় কর্তৃপক্ষ মুম্বাইয়ের একটি আদালতের দ্বারস্থ হওয়ার পরিকল্পনা করছে। যাতে জাকির নায়েকের বিরুদ্ধে জামিন অযোগ্য গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা হয়।

যদি এ পরোয়ানা জারি করা হয় তাহলে ইন্টারপোলের কাছে রেড এলার্ট নোটিশ জারির আহ্বান জানানো হবে। এর মধ্য দিয়ে উভয় দেশের প্রত্যর্পণ চুক্তি অনুযায়ী তাকে ভারতের হাতে তুলে দেয়ার দাবি জানানো হবে। এর আগে নয়াদিল্লির পক্ষ থেকে তাকে ফেরত পাঠানোর আনুষ্ঠানিক আবেদন করা হলে ২০১৮ সালে মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ এ ব্যাপারে অনিচ্ছা প্রকাশ করেন।

এমআরএম/এমএস